সর্বশেষ আপডেট : ২০ মিনিট ৫০ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২৩ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জামাতার পত্রিকায় বিরোধীদের দমনে এফবি আই হস্তক্ষেপ কামনা ট্রাম্পের!

unnamed-17আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ট্রাম্পের নির্বাচনের পর মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা আন্দোলনকে দমাতে ট্রাম্পের মেয়ের জামাই মিডিয়াকে অস্ত্র হিসেবে বেছে নিয়েছে। ডোনাল্ড ট্রাম্পের বড় মেয়ে ইভানকা ট্রাম্পের স্বামী জারেড কাশনার তার মালিকানাধীন নিউ ইয়র্ক অবজারভারে এমন একটি কলাম ছেপেছেন যা আলোচনার জন্ম দিয়েছে। ওই কলামে চলমান আন্দোলনকে দমাতে ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (এফবি আই) সরাসরি হস্তক্ষেপ চাওয়া হয়েছে।

কলামটি কাশনার নিজে লিখেননি। লিখেছেন অবসরপ্রাপ্ত রিজার্ব কর্নেল অস্টিন বে। কলামের শিরোনামটি ছিলো এমন যে কমির (কবি এখন এফবি আই প্রধান) এফবি আইয়ের উচিত ডেমোক্রেটদের অযাচিত ক্রোধের তদন্ত করা।

কাশনার ২০০৬ সালে পত্রিকাটির বৃহত্তম শেয়ার কেনেন মাত্র এক কোটি ডলারে এবং তিনিই এখন পত্রিকাটির প্রকাশক। তাই এটি অন্য কারও মতামত হলেও তিনি এর দায় এড়াতে পারেন না বলে মতামত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

মতামতে বে বলেন, এফবি আইয়ের উচিত এই বিষয়টির বিস্তার তদন্ত করা। কারণ বামপন্থীদের এই আন্দলনকে তিনি উল্লেখ করেন জঘণ্য ও বিপদজনক হিসেবে। বে এই আন্দোলনকে শান্তিপূর্ণ হিসেবে ভাবতেও নারাজ। বরং তিনি বলেন এই আন্দোলন থেকে ভাংচুর ও সম্পদ ধ্বংস করা হচ্ছে। তিনি এই আন্দোলন, জর্জ সরস (একজন বিলিয়নিয়ার যিনি বামপন্থী আন্দোলনকে অর্থায়ক করতেন) ও গ্রিন পার্টির ভোট পূনঃগণনার দাবিকে একসূত্রে বাঁধেন।
পত্রিকাটির এমন কলামের বিষয়ে মুখ খুলেছেন মিডিয়া মনিটরিং ম্যাগাজিন এক্সট্রার সম্পাদক জিম ন্যুরেকাস। তিনি বিষয়টিকে অত্যন্ত বাড়াবাড়ি হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির মেয়ের জামাইয়ের পত্রিকা থেকে তার তার বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে এফবি আই তদন্তের আহ্বান অতিরিক্ত বাড়াবাড়িই বটে।

ট্রাম্প তার নির্বাচনী প্রচারণায় এমন অনেক কথা বলেছেন যা মানুষের মনে অসন্তোষের জন্ম দিতে পারে। যেমন তিনি মুসলিমদের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন। এক কোটি ১০ লাখ অভিবাসিকে বের করে দেওয়ার কথা বলেছেন। ম্যাক্সিকান সীমান্তে দেওয়াল নির্মাণের কথা বলেছেন। সেই ট্রাম্পই নির্বাচনের পর এই আন্দোলনকে সমীচীন নয় বলে উল্লেখ করেছেন টুইটারে। এরপর তার মেয়ের জামাইয়ের পত্রিকা থেকে এমন আহ্বান মানুষকে চিন্তিত করে তুলেছে।
সান ফ্রান্সিসকো বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি বিষয়ের অধ্যাপক স্টিফেন জুনেস বলেন, আন্দোলন, বিদ্রোহ সাংবিধানিকভাবে সংরক্ষিত মুক্তমতের চর্চা।
তিনি আরও বলেন, কংগ্রেসের কলেজ ক্যাম্পাসে ফিলিস্তিনের পক্ষের অ্যাক্টিভিজমের বিরুদ্ধে অভিযানের চিন্তা ও এই ঘটনা সামনের বছরগুলোতে জনস্বাধীনতায় ব্যাপক হস্তক্ষেপের পূর্বাভাস।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: