সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ১৮ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৩ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সুনামগঞ্জে শত্রুমুক্ত দিবস পালিত

downloadসুনামগঞ্জ সংবাদদাতা:: সুনামগঞ্জে বিস্তারিত কর্মসুচির মধ্যে দিয়ে ৬ ডিসেম্বর সুনামগঞ্জ শত্রুমুক্ত দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার সকাল ১১টায় বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সুনামগঞ্জ জেলা ইউনিট কমান্ড এর উদ্যোগে শহরে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। বিকেল ২টায় জেলা কমান্ড কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় এক আলোচনা সভা। জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম,আওয়ামীলীগ নেতা ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলহাজ্ব আব্দুস সামাদ আজাদের পুত্র আজিজুস সামাদ ডন,সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আয়্যুব বখত জগলুল, দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ইদ্রিছ আলী বীরপ্রতীক,জেলা জাসদের সাবেক সভাপতি কমরেড আতম সালেহ,বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সুনামগঞ্জ জেলা ইউনিটের কমান্ডার হাজী নুরুল মোমেন,সাবেক কমান্ডার আব্দুল হাশিম (যোদ্ধাহত),সদর উপজেলা কমান্ডার আব্দুল মজিদ,মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ডের জেলা সভাপতি ওবায়দুর রহমান কুবাদ, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌসী সিদ্দিকা,আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান জেলা শাখার সভাপতি সাংবাদিক আল-হেলাল,সাধারন সম্পাদক ছাদিয়া বখত সুরভিসহ ৭১ এর রণাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানেরা আলোচনা ও র‌্যালীতে অংশ নেন। র‌্যালীর পর মুুক্তিযোদ্ধারা স্থানীয় শহীদ মিনারে শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুস্পস্তবক অর্পন করেন।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা পাকহানাদারদের পরাস্থ করে সুনামগঞ্জ মহকুমা সদর ও ছাতক থানা হানাদার মুক্ত করেন। ৬ ডিসেম্বর ভোরে মেজর এম.এ মোত্তালেব-এর নেতৃত্বে স্থানীয় ইব্রাহিমপুুর গ্রামে সমবেত হন মুক্তিযোদ্ধারা। পরবর্তীতে সংঘবদ্ধ হয়ে সুনামগঞ্জের পিটিআই (প্রাইমারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউট) স্কুল ক্যাম্পে হানাদার বাহিনীর অবস্থান লক্ষ্য করে চারিদিক ঘেরাও করে আক্রমণ চালায়। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণপণ লড়াই আর মুক্তিকামী জনগণের দুর্বার প্রতিরোধে পরিস্থিতি সামাল দিতে না পেরে এইদিন পাকবাহিনী সুনামগঞ্জ ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়। হানাদারদের চুড়ান্ত পরাজয় ঘটে এই দিনে। পাকবাহিনীর পতনের পর এ এলাকার সর্বত্রই ছড়িয়ে পড়ে মুক্তির উল্লাস। আনন্দ উদ্বেলিত কন্ঠে ‘জয়বাংলা’ ধ্বনি আর হাতে প্রিয় স্বদেশের পতাকা নিয়ে ছুটাছুটি করতে থাকেন মুক্তিযোদ্ধারা সহ তরুণ-যুবক সবাই। সুনামগঞ্জ জেলা শহরের বিভিন্ন রাস্তায় বের হয় আনন্দের মিছিল। স্বাধীন বাংলাদেশের জয়ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে জেলা শহর।

অন্যদিকে ৫ ডিসেম্বর রাতে ছাতক সিমেন্ট কারখানা এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থান জানতে পেরে সকালে (৬ ডিসেম্বর) সম্মুখ যুদ্ধ ছাড়াই পিছু হঠতে থাকে পাক সেনারা। পরবর্তীতে হানাদার বাহিনী সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার লামাকাজি এলাকায় আশ্রয় নেয়। ফলে বিনাযুদ্ধে ছাতক উপজেলা হানাদার মুক্ত হয়। বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সুনামগঞ্জ জেলা ইউনিটের কমান্ডার হাজী নুরুল মোমেন বলেন, জেলার অরক্ষিত বদ্ধভুমিগুলো সংরক্ষণ করা প্রয়োজন। এছাড়া স্থানীয় রাজাকারদের তালিকা করে বিচারের আওতায় আনা এবং অমুক্তিযোদ্ধা যারা মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় অন্তর্ভুক্তি হয়েছে তাদের বাতিল করে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকাভুক্ত করে সম্মানী ভাতার আওতায় আনতে সরকারের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন তিনি। এদিকে জেলা সদরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভার মধ্যে দিয়ে শত্রুমুক্ত দিবস পালন করেছে

মুক্তিযোদ্ধা হাজী কেবি রশীদ স্মৃতি সংসদ। এতে সাবেক জেলা ইউনিট কমান্ডার হাজী কেবি রশীদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কেবি মোর্শেদ জাহাঙ্গীর,নেছার আহমদ শফিক,জাহাঙ্গীর আলম,নবাব সাদেক,কাজী সিরাজসহ স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: