সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
বুধবার, ২৩ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

তাহিরপুরে চাঁদাবাজদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী, ডিআইডির কাছে অভিযোগ

2-daily-sylhet-666-2সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা:: সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে মামলা দিয়েও ঠেকানো যাচ্ছে না দুই সহোদরের চাঁদাবাজি। তাদের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী। দুই সহোদর চাঁদাবাজরা হলেন-উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের কামড়াবন্দ গ্রামের বিশিস্ট সুদি ব্যবসায়ী বদ মিয়ার ছেলে হাবিব সারোয়ার আজাদ ও তার ছোট ভাই সাজ্জাদ হোসেন শাহ। সোমবার সকাল ১১টায় তাহিরপুর উপজেলার সীমান্ত নদী যাদুকাটার বারকি ও বালি,পাথর শ্রমিকরাসহ ব্যবসায়ীরা ওই দুই সহোদরের চাঁদাবাজি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সিলেট বিভাগীয় পুলিশ কমিশনারের নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানাযায়,হাবিব সারোয়ার আজাদ ও সাজ্জাদ হোসেন শাহ দৈনিক যগান্তর ও দৈনিক ভোরের কাগজসহ আরো একাধিক প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার পরিচয় দিয়ে বিজিবি,র‌্যাব ও পুলিশসহ সাংবাদিকদের নাম ভাঙ্গিয়ে দীর্ঘদিন যাবত যাদুকাটা নদীর বারকি ও বালি-পাথর শ্রমিকসহ ব্যবসায়ীদের কাছে থেকে চাঁদাবাজি করছে। তাদের কথা মতো চাঁদার টাকা না দিলে নিরীহ শ্রমিক ও ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করছে। উপজেলার ঘাগটিয়া গ্রামের পাথর ব্যবসায়ী আব্দুস সাত্তারের কাছে ২১হাজার টাকা মূল্যের ১টি মোবাইল ফোন ও ১লক্ষ টাকা চাঁদা চাওয়ার ঘটনায় সুনামগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাবিব সারোয়ার আজাদ ও সাজ্জাদ হোসেন শাহ বিরুদ্ধে গত ১৭ই নভেম্বর চাঁদাবাজি মামলা নং-সি আর ১৮৩/১৬ইং,ধারা-৩৮৫/৩৪ দায়ের করা হয়েছে। এছাড়াও তাদের বিরুদ্ধে আদালতে আরো ৪টি চাঁদাবাজি মামলাসহ সুনামগঞ্জ সদর ও তাহিরপুর থানায় একাধিক জিডি এন্টি রয়েছে। তাদের চাঁদাবাজির অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে গত ২৫.০৪.২০১১ইং তারিখে আজাদ ও সাজ্জাদকে তাহিরপুরের ইউএনও কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন। এবং গত ১৭/০৩/১৫ইং তারিখ রাত ৯টায় সীমান্তের শাহ আরেফিন মেলায় ও ২৪/০৩/১৬ইং তারিখে দুপুর ১২টায় বড়ছড়া শুল্কষ্টেশনেসহ চাঁনপুর সীমান্তে ও বাদাঘাট বাজারে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে ৪বার গণধৌলাই খেয়ে সালিশের মাধ্যমে মুসলেখা দিয়ে নিজেকে রক্ষা করে আজাদ ও সাজ্জাদ। তাদের চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় স্থানীয় সাংবাদিক রাজু আহমেদ রমজানকে ডেকে নিয়ে মারধর করার ঘটনায় তাহিরপুর থানায় জিডি নং ৬৩১,তারিখ:২০/০৪/১১ইং দায়ের করা হয়। একই কারণে মাইটিভির সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়ার উপর হামলা চালিয়ে ক্যামেরা ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনায় আজাদ ও সাজ্জাদসহ ১০জনের বিরুদ্ধে আদালতে,মামলা নং-৪৪/২০১৩,ধারা-৪২০/৩৮৫/৩৮০/৩২৫/৩২৪/৩০৭ ও ৩৪ দায়ের করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বাদাঘাট ন্যাশনাল প্রাইভেট স্কুলের প্রিন্সিপাল রফিকুল ইসলাম বলেন,৫০হাজার টাকা চাঁদা না দেওয়ায় হাবিব সারোয়ার আজাদ তার সহযোগী আলম শেখ তাদের বাহিনী নিয়ে আমার স্কুল ভাংচুর ও লুটপাট করেছে। বাদাঘাট বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাসুক মিয়া বলেন,আজাদ ও সাজ্জাদের অত্যাচারে সাংবাদিক সমাজসহ এলাকার মানুষ অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। উত্তর বড়দল ইউপি সদস্য নোয়াজ আলী,বালি-পাথর উত্তোলনকারী শ্রমিক সমিতির সভাপতি তাজুত আলী ও ব্যবাসায়ী রহিম উদ্দিন,নুর হোসেন মল্লিকসহ আরো অনেকেই বলেন,আজাদ ও সাজ্জাদের কথা মতো চাঁদা না দিলে অন্যায় ভাবে হয়রানী করে,আমরা তাদের হাত থেকে মুক্তি চাই। তাহিরপুর থানার ওসি নন্দন কান্তি ধর বলেন,আদালতের নির্দেশে হাবিব সারোয়ার আজাদ ও সাজ্জাদ হোসেন শাহর চাঁদাবাজি মামলার তদন্ত শুরু হয়েছে,তদন্ত শেষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সিলেট বিভাগীয় সহকারী পুলিশ কমিশনার নজরুল ইসলাম বলেন,দায়েরকৃত লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে জরুরী ভিত্তিতে আজাদ ও সাজ্জাদের চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: