সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ০ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৮ মে, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বিপিএলে আগ্রহ নেই সিলেটবাসীর !

bpl_dailysylhetহাসান মো.শামীম :: এখন দুনিয়া জুড়েই চলছে ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেটের যুগ। এরমধ্যে বাংলাদেশের একমাত্র ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট  টুর্নামেন্ট বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) । গত ৮ নভেম্বর শুরু হয়েছিল এর  চতুর্থ  আসর ।  ৪ নভেম্বর শুরু হওয়ার কথা থাকলেও  বৃষ্টির কারনে ৩ দিন পিছিয়ে শুরু হয় খেলা ।  ঘটন অঘটনে বিপিএল পাড়ি  দিয়েছে   প্রায় অর্ধেক পথ , ডিসেম্বরের ৯ তারিখে ফাইনাল ম্যাচের মধ্যদিয়ে শেষ হবে এবারের আসর ।
বলা হয়ে থাকে, আইপিএলের পরই  বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দর্শক পছন্দের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট এই বিপিএল।  অথচ এই বিপিএল নিয়ে কোন আগ্রহ উন্মাদনা নেই সিলেটবাসীর ! এর অন্যতম কারন এবারের আসরে নেই সিলেটের কোন দল। আর্থিক বিশৃঙ্খলায় বাদ পড়েছে গত আসরের দল সিলেট সুপার স্টারস। আর এবার নতুন যুক্ত হয়েছে খুলনা টাইটান্স ও রাজশাহী কিংস। সিলেটে ভেন্যু না থাকাও বিপিএল নিয়ে অনাগ্রহের জন্ম দিয়েছে সিলেটিদের মনে ।
সিলেট না থাকায় এবারের টুর্নামেন্টে অংশ নিচ্ছে সাতটি দল—কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স, ঢাকা ডায়নামাইটস, রাজশাহী কিংস, খুলনা টাইটান্স, রংপুর রাইডার্স, চিটাগং ভাইকিংস ও বরিশাল বুলস। এবারের আসর টি সম্প্রচার হচ্ছে পৃথিবীর ১২২ টি দেশে ।শুধু  দর্শক সংখ্যা বিবেচনায় নিলে ভারতের   আইপিএলের পরই আছে বিপিএল।  প্রায় শ’খানেক  বিদেশি ক্রিকেটার এসেছেন বিপিএল খেলতে। বিদেশি কোচ, কোচিং স্টাফ, কম্পিউটার অ্যানালিস্ট আছেন। কিন্তু শুধুমাত্র  সমর্থন দেওয়ার মত উপযুক্ত কোন দল  না থাকায় বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের বিপুল পরিমাণ ক্রিকেট প্রেমী মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন বিপিএল থেকে।
নানান ইতিহাসের কারণেই বিপিএল সবার নজরে ছিল। ২০১২ সালে শুরুর পর দ্বিতীয় আসরটি হয়েছে ২০১৩ সালে। তারপর ফিক্সিং বিতর্কে ২০১৪ সালে হয়নি বিপিএল। ২০১৫ সালে তৃতীয় আসরে ভাবমূর্তির সংকট অনেকটাই কাটিয়ে উঠে এই টুর্নামেন্ট। এবার চলতে থাকা বিপিএল ৪ এ ক্রমাগত সুষ্ঠু, সুশৃঙ্খলভাবে সামনে এগিয়ে যাওয়ার পালা  ছিল । স্বচ্ছ ও সুন্দর ভাবমূর্তি নিয়ে বেড়ে উঠার জন্য এবারের বিপিএলে  মুলত শৃংখলা  ধরে রাখতে গিয়েই অনেকটা বাধ্য হয়েই সিলেট সুপার স্টারকে বাদ দিতে হয়েছে বিসিবির।
প্রথম আসরে সিলেটের  নাম দিয়ে বিপিএলে সিলেটের দল হিসেবে আত্ন প্রকাশ করেছিল সিলেট রয়্যালস । দলকে সিলেট  বাসীর সাথে পরিচিত করতে অনেক গুলো অনুষ্ঠানের  আয়োজন করেছিলো সিলেট রয়্যালসের মালিক পক্ষ ওয়ালটন গ্রুপ । এর মধ্যে ছিল রোজভিউ হোটেলে দলের পরিচিতি কনসার্ট, সমর্থক -স্থানীয় সাংবাদিকদের মাঝে দলের জার্সি বিতরণ ইত্যাদি । দর্শকদের ভালবাসা পেলেও মাঠে সিলেট রয়্যালসের পারফরমেন্স ছিল জঘন্য । টানা সাত টি ম্যাচ হেরে ব্যার্থতার ষোলকলা পুর্ণ করে তারা ! পরের আসরেও একই অবস্থা ছিল সিলেট রয়্যালস এর । গ্রুপ পর্বেই বাদ পড়ে যায় তারা। আশানুরুপ সাফল্য না পাওয়ায়  খেলা পাগল সিলেটের মানুষজন  হয়ে পড়েন ভীষন হতাশ। সে সময় কিছু সমর্থক শহীদ  মিনার প্রাঙ্গনে আয়োজন করেন প্রতিবাদী  মানববন্ধনের । সেখানে ব্যানার লিখে বিপিএল এর দল থেকে সিলেটের নাম প্রত্যাহারের দাবি জানান তারা। দলের খারাপ পারফরমেন্সের জন্য ওয়ালটনকে দায়ী করে তারা বলেন খেলোয়াড়  সিলেকশনে ভুলের কারনেই সিলেট রয়্যালসের এমন ভরাডূবি।
২০১৫ সালের বিপিএল তৃতীয় আসরে নতুন ভাবে আত্নপ্রকাশ করে সিলেটের দল । সিলেট রয়্যালস থেকে নাম পালটে  হয় সিলেট সুপারস্টার । মালিকানায় আসে আলিফ গ্রুপ । দলীয় অধিনায়ক করা হয় মুশফিককে । দলে খেলেন জাতীয় দলের সেরা বোলার রুবেল হোসেন, বিদেশী কোঠায় খেলেন শহিদ আফ্রিদি,রবি বোপারা । প্রত্যাশিত সাফল্যও পায় দল। সেমিফাইনালে গিয়ে হারলে ও দলের খেলায় সন্তুষ্ট হোন সিলেটের মানুষ। আশা ছিল এবারের আসরেও ভাল একটি  দল গঠন  করবে তারা । কিন্তু খেলোয়াড় দের পাওনা পরিশোধ না করায় আইন অনুযায়ী সিলেট সুপার স্টারকে বাদ দিতে  বাধ্য হয় বিসিবি । ফলে এবারের আসরে দল হীন হয়ে পড়েন সিলেটি রা। তাই   বিপিএল নিয়ে আগ্রহও  শুন্যের কোঠায় চলে যায়  ক্রিকেট প্রেমি দের। যেখানে আগে পাড়া মহল্লায় ,দোকানে বিপিএলের খেলা দেখার জন্য দর্শকের ভীড় লেগে থাকত সে জায়গা গুলো এখন দর্শক শুন্য । স্কুল পড়ূয়া এক কিশোর নাইম বলেন; ‘ গতবার সিলেটের খেলা দেখার জন্য ফিকচার কেটে দেয়ালে লাগিয়ে রেখেছিলাম,এবার সিলেটের দল নেই,তাই খেলা দেখার আগ্রহ ও পাইনি ‘।
ব্যবসায়ী শেখর বলেন,’সিলেটের মানুষের তো টাকার অভাব নেই,যেখানে কুমিল্লার নামে বিপিএলে দল আছে সেখানে সিলেটের নামে কোণ দল না থাকাটা দুঃখ জনক ! তার মতে খেলার উন্মাদনা ফিরিয়ে আনতে হলে বিপিএলে সিলেটের নামে একটা দল থাকতেই হবে ,না হলে এই অঞ্চলের মানুষ কোণ ভাবেই খেলা দেখবে না ।
সিলেট লিডিং ইউনিভার্সিটির ছাত্র রুমি বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম খেয়াল করলেই বুঝা যায় বিপিএল উন্মাদন্মা কত টা শুন্যের কোটায়।
আগে ফেসবুক আলোচোনা সমালোচোনায় সরব থাকত বিপিএল নিয়ে কিন্তু এখন আর কেউ বিপিএল নিয়ে কোন পোস্ট দেননা । সিলেটের মানুষ খেলা না দেখায় মুলত ক্ষতি হচ্ছে পুরো ক্রিকেট ব্যবসার ই।’

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: