সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রাবি ছাত্রলীগের সম্মেলন : স্থানীয়দের পাশাপাশি বাইরের নেতাদের মূল্যায়নের দাবি

download-3রাবি প্রতিনিধি:: বিগত সম্মেলনগুলোতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষেত্রে স্থানীয় নেতাদের প্রাধান্যের কারনে এবারও নেতৃত্ব নির্বাচনে স্থানীয়দের গুরুত্ব বেশি পাওয়ার সম্ভবনা দেখা দিয়েছে। বিগত কয়েকটি কমিটিতে যে দশজন দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের অধিকাংশই স্থানীয়। যার কারণে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ দুইটি পদ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদে বাইরে থেকে এসে বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজনীতি করা কেউই পদ পাবেননা বলে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন অনেকেই। নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষেত্রে সংগঠনটির বাইরে থেকে নেতা নির্বাচিত না করায় এক ধরনের অবমূল্যায়ন করা হচ্ছে বলে দাবি তাদের। যে কারনেই স্থানীয়দের সাথে বাইরে থেকে আসা নেতাদের মূল্যায়নের দাবি করছেন তারা।

বিগত সম্মেলনগুলোতে দেখা গেছে, বরাবরই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের পদ দুটিতে স্থানীয় ছাত্রনেতাদের প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। এতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগে নেতৃত্বের পরিবর্তন হচ্ছে ঠিকই তবে এক ধরনের প্রাধান্য বিস্তার করেছে স্থানীয়রা। তবে রাজশাহীর বাইরে থেকে এসে ছাত্রলীগের রাজনীতি করায় একেবারে খালি হাতে চলে যেতে হচ্ছে বলেই দাবি সংগঠনটির একাধিক নেতাকর্মীর। তাই আসন্ন সম্মেলনে স্থানীয়দের পুনরাবৃত্তি না হওয়া এবং বাইরের নেতাদের মূল্যায়নের দাবি করছেন তারা।

ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, পাবনার ইব্রাহীম হোসেন মুনকে সভাপতি ও মোহনপুরের আয়েন উদ্দিন আয়েন বর্তমান এমপি কে সাধারণ সম্পাদক করে ২০০৯ সালে কমিটি ঘোষনা করা হয়।

পরবর্তী বছরও দেখা যায় একই চিত্র। সংগঠনটির নীতিনির্ধারকেরা পাবনার আওয়াল কবির জয়ের উপর সভাপতির দায়িত্ব ও রাজশাহী নগরীর মাজেদুল হক অপুকে সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব দেন।

তবে ২০১১ সালে একটু পরিবর্তন এনে আবারও স্থানীয় তথা নাটোরের আহম্মদ আলী মোল্লাকে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি করা হয়। সাধারণ সম্পাদক পদটি পায় দিনাজপুরের বীরগঞ্জের আবু হোসাইন বিপু।
সর্বশেষ ২০১৩ সালে আবারও পূর্বের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে রাজশাহীর মিজানুর রহমান রানাকে সভাপতি এবং বাঘার তৌহিদ আল হাসান তুহিন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। জানা যায়, এই কমিটির দুই গুরুত্বপূর্ণ নেতাই দল থেকে বহিস্কৃত হয়।
বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সংগঠনের কার্যক্রম চলছে। তবে বিষয়টি হলো বর্তমানে দুই জন ভারপ্রাপ্তের বাড়ি বিশ^বিদ্যালয়ের পাশর্^বতী কাজলা এবং তালাইমারী এলাকায়।

এভাবেই বিশ^বিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে স্থানীয় নেতৃত্বের কারণে এক ধরনের হতাশ হয়ে পড়েছেন দেশের বাইরে থেকে আসা নেতাকর্মীরা। কেউ কেউ দাবি করছেন বিশ^বিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ রাজশাহী মহানগর আ’লীগ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। যার কারণে এমনটিই হয় বলে তাদের অভিযোগ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ছাত্রলীগ নেতা অভিযোগ করে বলেন, রাবি শাখা ছাত্রলীগ মহানগর আ’লীগ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতারা তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কিছু করতে চান না। তাই মহানগর থেকে যাদের প্রাধান্য দেন তাদের হাতেই আসে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ দুইটি পদ। এতে করে রাজশাহীর বাইরে থেকে আসা নেতারা বাদ পড়ে যান। যে কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতি করতে নিরুৎসাহিত হচ্ছেন বাইরে থেকে আসা অনেক নেতাকর্মী।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমানে সভাপতি পদপ্রার্থী মিনারুল ইসলাম বলেন, আমার কথা হচ্ছে শুধু স্থানীয় বা বাইরের বলে কোন কথা নয়; যারাই যোগ্য তারাই নেতৃত্বে আসবে। যারা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগকে গতিশীল করবে, দেশনেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২১ বাস্তবায়ন করতে যার ভূমিকা পালন করতে তাদের নেতৃত্বে আনা হোক।
এ বিষয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদকের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করতে চাইলে তারা ফোন রিসিভ করেননি।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: