সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৯ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটে গৃহকর্মী হত্যার দায়ে দু জনের যাবজ্জীবন

arrest_jail-thumbnailস্টাফ রিপোর্টার ::
সিলেটের শহরতলির চকগ্রামে গৃহকর্মী নাজমা বেগম হত্যা মামলায় দু জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের এক হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরো দু মাসের সশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেটের মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আকবর হোসেন মৃধা এ রায় প্রদান করেন।
দন্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, সিলেট সদর উপজেলার পলিয়া গ্রামের মৃত ইশরাক আলীর ছেলে রাজমিস্ত্রি আখলাছ মিয়া (৩০) ও একই উপজেলার দেওয়ানেরচক গ্রামের জব্বার আলীর ছেলে নির্মান শ্রমিক সোরমান আলী (২২)। রায় ঘোষণার সময় দন্ডপ্রাপ্ত আসামিরা আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, সিলেট শহরতলির চকগ্রামের মো. আরব আলীর ছেলে মো. আব্দুস ছালামের বাড়িতে রাজমিস্ত্রি আখলাছ মিয়া ও নির্মাণ শ্রমিক সোরমান আলী কাজ করতেন। এ সুযোগে আব্দুস ছালামের গৃহকর্মী নাজমা বেগমের (১৮) সাথে সোরমান আলী প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২০০০ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি রাত ৯ টার দিকে আখলাছ ও সোরমান বিয়ের কথা বলে আব্দুস ছালামের বাড়ি থেকে নাজমাকে ডেকে নিয়ে ছড়াগাং চা-বাগানের এক নম্বর সেকশনে নিয়ে যান। এ সময় আখলাছ ও সোরমান মিলে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালান। এ সময় তারা ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে তার ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে শ্বাসরুদ্ধে তাঁকে হত্যা করে ফেলে যান। পরদিন ২৩ ফেব্রুয়ারি পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় আব্দুস ছালাম বাদি হয়ে রাজমিস্ত্রি আখলাছ মিয়া ও নির্মাণ শ্রমিক সোরমান আলীকে আসামি করে কোতোয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ২৪ ফেব্রুয়ারি গ্রেফতারকৃত আখলাছ মিয়া ও সোরমান আলী সিলেটের আদালতে গৃহকর্মী নাজমা হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দেন।

দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০০০ সালের ১ মে সিলেট কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জাকের হোসাইন মাহমুদ আসামি আখলাছ মিয়া ও সোরমান আলীকে অভিযুক্ত কলে আদালতে এ মামলার চার্জশিট দাখিল করেন। ২০০০ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে আদালত এ মামলার বিচার শুরু করেন। দীর্ঘ শুনানি ও ১১ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার আদালত আসামি আখলাছ মিয়া ও সোরমান আলীকে ৩০২/৩৪ ধারা দোষী সাব্যস্ত করে দন্ডাদেশ প্রদান করা হয়।
রাষ্ট্রপক্ষে এপিপি অ্যাডভোকেট মো. মফুর আলী ও আসামিপক্ষে অ্যাডভোকেট মো. আব্দুল গফ্ফার ও মো. গোলাম রব্বানী তালুকদার মামলাটি পরিচালনা করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: