সর্বশেষ আপডেট : ৬ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চারিকাটা ইউনিয়ন কেন ৪ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্ভুক্ত হবে না : হাইকোর্টের রুল

highcourtbuildingnewজৈন্তাপুর সংবাদদাতা ::
জেলা পরিষদ নির্বাচনে জৈন্তাপুর উপজেলার ৩ নম্বর চারিকাটা ইউনিয়নকে কেন ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের পরিবর্তে ৪ নম্বর ওয়ার্ডে অন্তর্ভূক্ত করা হবে না- সেজন্য হাইকোর্ট কারণ দর্শানোর নোটিস জারি করেছেন। একই সাথে ৪ নম্বর ওয়ার্ডে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য আবেদন এক মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির জন্য সিলেটের জেলা প্রশাসককে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। চারিকাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েলের করা এক রিটের পরিপ্রেক্ষিতে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে সিলেটের ওয়ার্ড গুলোর সীমানা নির্ধারণ করে গত ২ অক্টোবর নোটিস প্রকাশ করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়। এতে জৈন্তাপুরের ৩ নম্বর চারিকাটা ইউনিয়নকে ৪ নম্বর জৈন্তাপুর ওয়ার্ড থেকে আলাদা করে কানাইঘাটের সাথে ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্ভুক্ত করা হয়। জৈন্তাপুরের একমাত্র চারিকাটা ইউনিয়কে এককভাবে অন্য উপজেলার সাথে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ব্যাপারটি কোনো ভাবেই ইউনিয়নবাসী মেনে নিতে পারেননি। এজন্য তারা ইউনিয়নকে ৪ নম্বর জৈন্তাপুর ওয়ার্ডের সাথে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য আন্দোলনে নামেন। তারা ইতোমধ্যে মানববন্ধন, স্মারকলিপি প্রদান, সভাসহ নানা কর্মসূচি পালন করেছেন।

এলাকাবাসীর পক্ষে চারিকাটা ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল গত ১৩ নভেম্বর হাইকোর্টে রিট করেন। বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকী ও বিচারপতি শেখ হাসান আরিফের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে বাদির আবেদনের উপর শুনানি হয়। শুনানি শেষে হাইকোর্ট স্থানীয় সরকার, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সচিব ও সিনিয়র সহকারী সচিব, নির্বাচন কমিশনের সচিব, সিলেটের জেলা প্রশাসক, জৈন্তাপুর ও কানাইঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার প্রতি রুল জারি করেন। তাদেরকে ৪ সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। একই সাথে সিলেটের জেলা প্রশাসককে ৭ এবং ৮ অক্টোবর করা বাদির আবেদন এক মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশনা দেওয়া হয়। বাদিপক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. মাহবুব আলী ও অ্যাডভোকেট কামরুজ্জামান সেলিম।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে চারিকাটা ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল জানান, দীর্ঘ আন্দোলন করার পরও আমাদের দাবি পূরণ না হওয়ায় ন্যায় বিচারের জন্য হাইকোর্টের শরণাপন্ন হয়েছি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: