সর্বশেষ আপডেট : ৫০ মিনিট ০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘কাপ সং’ দিয়ে ফেসবুকে ঝড় তোলা অবন্তীর গল্প

shutibg220161005225416বিনোদন ডেস্ক:: অবন্তীকে প্রথম দেখি ফেসবুকে, ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে। খালি গলায় গান গাইছিলেন। বাদ্যযন্ত্র বলতে তেমন কিছুই ছিল না। ফয়েল পেপার, ধাতব মুদ্রা আর প্লাস্টিকের দুটি কাপ। সুরের মায়াজাল তৈরি করে গেয়ে চলছিলেন ‘যেখানে সীমান্ত তোমার…’। একবার নয়, বেশ কয়েকবার গানটি শুনি আর নিজের অজান্তেই বলে উঠি, ‘আহা, কী মিষ্টি গলা! কী নিখুঁত পারফরমেন্স!’

পোস্টের নিচের কমেন্টগুলোর দিকে তাকাতেই চোখ ছানাবড়া! এত কমেন্ট, এত প্রশংসা! লাখ লাখ ভিউয়ার্স দেখে ফেলেছে ভিডিওটি। কেউ কেউ মেয়েটির গলার প্রশংসা করার পাশাপাশি রূপের প্রশংসা করতেও ছাড়েনি।

ফেসবুকের সেই কাপ সিঙ্গার অবন্তী বললেন তার কাপ সংগীতের গল্প। গান হলো, আড্ডা হলো। পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো অবন্তীর সেই গল্প-

অবন্তী। পুরো নাম অবন্তী দেব সিঁথি। বেড়ে ওঠা জামালপুরে। মফস্বল শহরের আলো-ছায়ায় বেড়ে ওঠা অবন্তী কখনো ভাবেননি কণ্ঠশিল্পী হবেন। গান গেয়ে মানুষের মন জয় করার চিন্তা তো আরও বহুদূর! আর কাপ সং? ওটা তো কল্পনাতেই ছিল না।

নিজের ভেতর গুটিয়ে থাকা একটি মেয়ে। লক্ষ্মী স্বভাবের। বড়বোনের পাশে বসে গান শুনতেন। সেখান থেকেই গানের প্রতি আগ্রহ বাড়ে। এভাবেই একসময় নিজেই বাদ্যযন্ত্র নিয়ে গেয়ে ওঠেন মিতালী মুখার্জির গান, সাবিনা, রুনার সুরে নিজের গলা ভেজে পরখ করেন।

বড় বোন পড়াশোনার চাপে গান ছেড়ে দেন। কিন্তু তিনি শুরু করেন ভালোভাবে। মা-বাবাও মেয়ের গানের প্রতি আগ্রহ দেখে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন। ওস্তাদ সুশান্ত দেব কানু’র কাছ থেকে নেন গানের তালিম।8

তারপর…। একদিন আসে সেই সময়, নিজেকে জাতীয় পর্যায়ে মেলে ধরার সুযোগ। ২০০৬ সালে ক্লোজআপ ওয়ান প্রতিযোগিতায় নিজের নাম লেখান, কিন্তু শুরুতেই থেমে যায় স্বপ্ন। প্রথম ৫৫ জনের ঘরে এসেই ছিঁটকে পড়েন অবন্তী। তারপর পড়ালেখার কারণে গানের জগতে সময় দেয়া কমিয়ে দেন।

২০১১ সাল। অবন্তী তখন ঢাকায় বাস করেন। এবার নিজেই গান শেখানো শুরু করেন। ছাত্রদের গান শেখানোর পাশাপাশি নিজের চর্চাটাও শুরু করেন পুরোদমে।

২০১২ সালে আবারো নাম লেখান ক্লোজআপ ওয়ান প্রতিযোগিতায়। এবার আর পিছিয়ে পড়া নয়, আস্তে আস্তে জায়গা করে নেন সেরা দশে। কিন্তু বিধিবাম, পরবর্তী রাউন্ডে বাদ পড়ে যান। তবে এ নিয়ে তার কোনো খেদ নেই। হাসিমুখেই জানালেন ছিঁটকে পড়ার গল্প- “ক্লোজআপ ওয়ানের নাম্বার ওয়ান হওয়া আমার লক্ষ্য ছিল না। আমি চেয়েছি অন্তত সেরা দশে যেন জায়গা হয়। সেটা আমি পেয়েছি। ফলে ছিঁটকে পড়ার বিষয়ে আমার ভেতরে কোনো আফসোস কাজ করেনি।”

ক্লোজআপ ওয়ানে সেরা দশে থাকার কল্যাণে স্টেজ শোসহ গান গেয়ে উপার্জনের পথটা খুলে যায় অবন্তীর। এরইমধ্যে দুটি সিনেমার দুটি প্লেব্যাকে কণ্ঠও দিয়েছেন তিনি। সায়মন তারিক পরিচালিত ‘মাটির পরী’ ও ওয়াজেদ আলী সুমন পরিচালিত ‘পাগলা দিওয়ানা’ ছবিতে গান গেয়েছেন।

15032125_556694411198987_405311533513065499_nস্টেজ শো, প্ল্যেব্যাক করলেও এখন পর্যন্ত তার কোনো একক অ্যালবাম প্রকাশিত হয়নি। কেন এই বিলম্ব? অবন্তী বলেন, “নিজেকে আরও ভালো করে প্রস্তুত করছি। দু’চারটি গান তৈরি করেছি। কিন্তু অ্যালবাম করব করব করেও করা হচ্ছে না। তবে শিগগিরই করে ফেলব।”

এবার আসি মূল চমকে। এবার আমরা প্রবেশ করব কাপ সংয়ের নেপথ্যের গল্পে। প্রথম বাংলাদেশি মেয়ে, যে ‘কাপ সং’ পারফর্ম করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। যে কারণে অবন্তীকে আজ সবাই চেনে। সেই মাহেন্দ্রক্ষণের গল্পটি শোনা যাক অবন্তীর মুখেই।

“আমি কখনো ভাবিনি কাপ সং আমাকে রাতারাতি জনপ্রিয় করে দেবে। দুই তিন-ঘণ্টার ব্যাবধানে হাজার হাজার দর্শক মিলবে। খুলেই বলি, মাস কয়েক আগের ঘটনা। ইউটিউবে দুটি বিদেশি মেয়ের কাপ সং পারফর্ম দেখে ভালো লাগে আমার। এরপর ইউটিউব ঘেঁটে কাপ সংয়ের ওপর কিছু টিউটোরিয়াল দেখে নিই। পরে নিজে নিজেই চেষ্টা করি। কয়েকটি গান ট্রাই করার পর ভাবলাম যে এবার নিজের কিছু গান ভিডিও করে ইউটিউবে ছাড়লে কেমন হয়! নিজের ইউটিউব চ্যানেলে নিজের গান পোস্ট করার মজাই আলাদা। এরই মধ্যে একদিন বাসার সবাই চলে গেছে গ্রামের বাড়ি। একা বাড়িতে বসে ভিডিও করে ফেললাম ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’ গানটি। তখন সন্ধ্যা। গানটি আপলোড করে ফেসবুকে শেয়ার দিয়ে আমি ঘুমিয়ে পড়ি। ঘণ্টা দুয়েক পরে ফেসবুকে ঢুকে দেখি প্রচুর নোটিফিকেশন। আমি তো দেখে অবাক। সাধারণত এত লাইক এত কমেন্ট কখনো আমি পাইনি। ফেসবুকে ঢুকে দেখি প্রায় ২০ হাজার ভিউয়ার্স। এরপর অন্য আরেকটি পেজে দেখলাম আমার এই গানটি। সেখানে প্রায় ৫ লাখ ভিউয়ার্স। আমি, তো তাজ্জব।”

অবন্তীর গল্প এখানেই শেষ নয়, সামনে আসছে আরও চমক। অবন্তীর কাপ সং নিয়ে কাজ করছেন ডিজে রাহাত। শিগগিরই ডিজে রাহাতের ফিচারিংয়ে অবন্তির গলায় শোনা যাবে ‘সোনা বন্ধুরে’ গানটি। পাঠক তার আগে অবন্তীর কণ্ঠে শুনে নিন নিউজবাংলাদেশ অফিসে পারফর্ম করা তার দুটি কাপ সং।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: