সর্বশেষ আপডেট : ১৯ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২১ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৬ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

খাদিজা হত্যাচেষ্টা মামলা যাচ্ছে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে : শীঘ্রই চার্জশিট

bp-2016-10-08-097-25_20152স্টাফ রিপোর্টার ::
খুব শিগগিরই সিলেট সরকারি মহিলা কলেজছাত্রী খাদিজা হত্যা চেষ্টা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর হচ্ছে। একই সঙ্গে দ্রুততম সময়ে মামলার চার্জশিট দাখিল করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। অন্যদিকে, খাদিজা ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠছেন। এখন নরম খাবার খাচ্ছেন। শুধু স্পষ্টভাবে গুছিয়ে কিছু বলতে পারছে না। সম্প্রতি সিলেটের আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় খাদিজা হত্যা চেষ্টা মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে আলোচনা হয়। চার্জশিট হলেই মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করা হবে।

এসএমপি পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার রোকন উদ্দিন জানান, পুলিশ খুব গুরুত্ব দিয়ে মামলা তদন্ত করেছে। খাদিজার সঙ্গে তদন্ত কর্মকর্তা আলাপ করলে ভালো হতো। ডাক্তাররা জানিয়েছেন, খাদিজা কথা বলতে আরও ৬/৭ মাস লাগবে। কিন্ত তার আগেই মামলার চার্জশিট দিতে হচ্ছে।

এদিকে, ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সিলেট মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী খাদিজা আক্তার নার্গিস পরিবারের সদস্যদের সাথে দিন কাটাচ্ছেন। গত ২৬ অক্টোবর রাত ১১টায় ‘হাই ডিপেনডেন্সি ইউনিট’ থেকে কেবিনে নেয়া হয় তাঁকে। এর পর থেকেই তিনি পরিবারের সদস্যদের সাথে দিন কাটাচ্ছেন। খাদিজার বাবা মাসুক মিয়া জানান, খাদিজার শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে অনেক ভালো। ধীরে ধীরে সে সুস্থ হয়ে উঠছে। খাদিজার পাশে পরিবারের সদস্যরা রয়েছেন। কখনো খাদিজার মা, কখনো ফুফু, আবার চাচা, কখনো চাচাতো বোন তার পাশে থাকছে। মাসুক মিয়া জানান, ডাক্তারের পরামর্শে খাদিজাকে নরম খাবার খাওয়ানো হচ্ছে। এতে কোনো সমস্যা হচ্ছে না। এছাড়াও প্রতিদিন তাকে নিয়ে হুইল চেয়ারে বসিয়ে ঘুরানো হয়।

তিনি আরো জানান, খাদিজা এখন পরিবারের সদস্যদে চিনতে পারছে। তবে কথা বলতে সমস্যা হচ্ছে তার। তবে পরিবারের সদস্যরা সাথে থাকলে খাদিজার স্মৃতি শক্তি ফিরে আসবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত ৩ অক্টোবর সে এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে বখাটে বদরুল আলমের চাপাতির আঘাতে গুরুতর আহত হয় খাদিজা। পরে তাঁকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে থেকে ওই দিন রাতেই তাঁকে স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। ৪ অক্টোবর বিকালে স্কয়ার হাসপাতালে তাঁর দ্বিতীয় দফা অস্ত্রোপচার করা হয়। । এক পর্যাযে লাইফ সাপোর্ট খুলে দেয়া হয়। এখন পর্যন্ত তিনি লাইফ সাপোর্ট ছাড়াই রয়েছেন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: