সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কানাডায় অভিবাসন : ২০১৭ সালে ৩ লাখ অভিবাসী নেয়ার সিদ্ধান্ত

1457004001ডেইলি সিলেট ডেস্ক:
২০১৭ সালে ৩ লাখ অভিবাসী নেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছে কানাডা সরকার। সোমবার কানাডার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালে ৩ লাখ ইমিগ্রান্ট বা অভিবাসী নেবে তারা। যদিও কানাডার অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে আরো বেশি অভিবাসী নেয়ার সুপারিশ ছিল ব্যবসায়ীদের। কানাডার অভিবাসন মন্ত্রী জন ম্যাককালাম বলেছেন, এই ৩ লাখ অভিবাসী নেয়ার ফলে কানাডায় ভবিষ্যতে অভিবাসীর সংখ্যা আরো বৃদ্ধি পাওয়ার ভিত রচিত হবে। এ ব্যাপারে মন্তব্য করতে গিয়ে তিনি বলেন-
‘আমি বিশ্বাস করি যে, ভৌগলিক কারণেই বেশি অভিবাসী নেয়াটা কানাডার জন্য ভালো পলিসি।’
২০১৭ সালে ৩ লাখ অভিবাসী নেয়ার সিদ্ধান্তের ফলে কানাডার ব্যবসায়ী নেতারা অবশ্য হতাশ হয়েছেন। কারণ দুই সপ্তাহ আগেই সরকারের অর্থনৈতিক উপদেষ্টারা আগামী ৫ বছরের মধ্যে ৪ লাখ ৫০ হাজার অভিবাসী নেয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। গত বছর হাজার হাজার সিরিয়ান শরনার্থীকে দেশে ঢুকানোর সিদ্ধান্ত নেয় কানাডা সরকার। তখনই অর্থনৈতিক উপদেষ্টারা ব্যবসা খাতের মেধাবী এবং আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের কানাডায় নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেলেন। তাদের যুক্তি ছিল, এর ফলে বছরের পর বছর ধরে সুফল পাবে কানাডা।
বলা হচ্ছে, ২০১৭ সালে ৩ লাখ অভিবাসী নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ায় অভিবাসন বিরোধীদের কাছে হেরে গেছে সরকার। কানাডার কর্পোরেট জগত অবশ্য দীর্ঘদিন ধরেই অভিযোগ করে আসছে যে, কানাডায় অভিবাসনের প্রক্রিয়াটি বছরের পর বছর ধরে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় আটকে আছে। তাদের অভিযোগ, ওয়ার্ক পারমিট পাওয়ার সমস্যার কারণে পুরো প্রক্রিয়ার গতি শ্লথ হয়ে যায়। মাত্র ৩ লাখ অভিবাসী নেয়ার সরকারি সিদ্ধান্তের ব্যাপারে মন্তব্য করতে গিয়ে ক্রিস্টোফার রিড নামে একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার বললেন-
‘তারা যদি সৃষ্টিশীলতাকে প্রাধান্য দিতে চায় তাহলে এটা আসলে কোন উদ্যোক্তা তৈরির দিকে যাচ্ছে না। আমি এ বছর দু’জন দক্ষ কর্মী নিতে চেয়েছিলাম আমেরিকা থেকে। কিন্তু পুরো প্রক্রিয়াটা এত ঝামেলাপূর্ণ এবং ধীরগতির যে, আমাকে শেষ পর্যন্ত আশাই ছেড়ে দিতে হয়েছে।’
স্টিফেন লেক নামে আরেকজন বললেন, দৃশ্যত: কানাডা তার ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়াকে এমন পর্যায়ে নিয়ে গেছে যাতে করে একজন অতি দক্ষ কারো পক্ষেও এখানে ইমিগ্রেশন পাওয়া কঠিন। অভিবাসীদের টার্গেট যদি পূরণ করতে হয় তবে শর্তগুলো অবশ্যই শিথিল করতে হবে। আগামী বছরের অভিবাসন পরিকল্পনায় অর্থনৈতিক শ্রেণীতে অভিবাসী নেয়ার সংখ্যা ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭২ হাজার। এ বছর অর্থাৎ ২০১৬ সালে এটা ছিল ১ লাখ ৬০ হাজার ৬০০ জন। অন্যদিকে এ বছর শরনার্থী নেয়ার টার্গেট ছিল ৫৫৮০০ জন। ২০১৭ সালে নেয়া হবে ৪০ হাজার জন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: