সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৩১ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

তাহিরপুরে এক জঙ্গি নারীর শশুর বাড়ি

14883তাহিরপুর প্রতিনিধি:: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় এক জঙ্গি নারীর শশুর বাড়ির সত্যতা খুজে পেয়েছে তাহিরপুর থানা পুলিশ। ঢাকায় র‌্যাবের হাতে গ্রেফতারকৃত এক জঙ্গি নারীর নাম সুলতানা বেগম ওরফে কচি (২৬)। ব্যাপারে তথ্য জানতে গত ৩১অক্টোবর সোমবার রাতে তাহিরপুর থানায় র‌্যাব ১০এর পক্ষ থেকে এক বার্তা প্রেরন করা হয়। ঐ জঙ্গি নারীর ভাষ্য মতে সে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের কামড়াবন্দ গ্রামের হাজি আবু বক্কর সিদ্দিক মাষ্টারের ছেলে ডাঃ আবুল কাশেমের স্ত্রী।

র‌্যাব ও পুলিশ সুত্রে জানাযায়,গত আগষ্ট মাসের র‌্যাব-১০ এক নারী জঙ্গি সুলতানা বেগম ওরফে কচি (২৬) কে গ্রেফতার করে। তার বিরোদ্ধে রাজধানী মিরপুর মডেল থানায় গত ১৬ই আগষ্ট র‌্যাব বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করে। মামলা নং ২৮। গত ৩১অক্টোবর সোমবার রাতে তাহিরপুর থানায় র‌্যাব ১০এর প্রেরিত এক বার্তায় জঙ্গিবাদের সাথে জরিত এই নারীর ভাষ্য মতে তার শশুর বাড়ি তাহিরপুরের বাদাঘাট ইউনিয়নের কামড়াবন্দ হওয়ায় যাচাই-বাচাই করে সত্যতা নিশ্চিত হয়ে জানানোর জন্য তাহিরপুর থানার ওসি কে বলা হয়। চিঠি পেয়ে রাতেই বেরিয়ে পড়ে তাহিরপুর থানা পুলিশ। তদন্তে বাদাঘাট ইউনিয়নের কামড়াবন্দ গ্রামে শশুর বাড়ি হলেও প্রাথমিক ভাবে ঐ জঙ্গি নারী ও তার স্বামীর সাথে শশুর বাড়ির লোকজনের সাথে র্দীঘ দিন ধরে যোগাযোগ সম্পূন্ন ভাবে বিচ্ছিন্ন ছিল বলে জানাযায়। ঐ নারীর পৈতিক বাড়ি বরিশালে হলেও পিতার কর্মস্থল ছিল নরসিংদী। আর সেখানেই ডাঃ আবুল কাশেমের সাথে কোন ভাবে পরিচয় হয়। পরে পরিবারে অসম্মতিতে ঐ জঙ্গি নারীর পিতার কর্মস্থলে নরসিংদীতেই বিয়ে বন্দনে আবদ্ধ হয় দু-জনে।

ডাঃ আবুল কাশেমের ভাই আবুল খায়ের জানান,আমার ভাই সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভেটেনারি ডাক্তার হিসাবে লেখাপড়া শেষে ঢাকায় একটি কোম্পানীতে চাকরী করে। পরে বরিশালে চাকরী করত। আমার বাবা হজ্বে যাবার আগে তার স্ত্রী কে এই একবারেই বাড়িতে আসে আর বাড়ি আসে নি। তার সাথে আমাদের পরিবারের কারো কোন যোগাযোগ নেই।

তাহিরপুর থানার ওসি শ্রী নন্দন কান্তি ধর জানান,গত সোমবার রাতে র‌্যাব-১০এর থেকে একটি চিঠি পেয়েছি। সেই চিঠিতে জঙ্গি নারী সুলতানা বেগম ওরফে কচি (২৬) শশুর বাড়ি তাহিরপুরের বাদাঘাট ইউনিয়নের কামড়াবন্দ গ্রামে চিঠিতে জানতে পারি। চিঠি পেয়ে সাথে সাথে ঐ জঙ্গি নারীর বিষয়ে সব রখমের তথ্য জানতে বাদাঘাট ইউনিয়নের কামড়াবন্দ গ্রামে তদন্ত করে প্রাথমিক ভাবে তার স্বামীর ঐ নারী ও সাথে শশুর বাড়ির লোকজনের কারো যোগাযোগ নেই বলে জানতে পেরেছি। তবে গভীর ভাবে সঠিক তথ্য উদঘাটনের জন্য তদন্ত কার্যক্রম চলছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: