সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১৯ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৪ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জামালগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর মৌখিক অভিযোগে দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তার পরিদর্শন

untitled-1-copyজামালগঞ্জ প্রতিনিধি:
জামালগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচী নিয়ে মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিভিন্ন ডিলার পয়েন্টে পরিদর্শন করেন। সাম্প্রাতিক জামালগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচী নিয়ে সাচনার রামনগর, ভীমখালীর লালবাজারসহ কয়েকটি ডিলার এলাকার এলাকাবাসীর মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলার একাধিক পয়েন্টে পরির্দশন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা ও উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক কর্মকর্তা।

রবিবার দিনব্যাপী জামালগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সাচনা লামাবাজারে অসিত রায় চৌধুরীর পয়েন্ট, ভীমখালী ইউনিয়নের লাল বাজারে আবু তাহেরের পয়েন্ট, কারেন্টের বাজারে শাহাব উদ্দিন, ফেনারবাকের লক্ষীপুর বাজারে গোলাম জিলানী আফিন্দির পয়েন্ট পরিদর্শন করা হয়েছে। পরির্দশনের সময় উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক রফিকুল হক, ভীমখালী ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির, ওয়ার্ড আ:লীগের সভাপতি মালু মিয়া, ইউপি সদস্য তাহির আলীসহ স্থানীয় সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের ৬০৫৭ জন উপকারভোগী ১০ টাকা কেজিতে প্রতিমাসে প্রতিজনে ৩০ কেজি চাল পাচ্ছেন। উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিস সূত্রে জানাযায়,জামালগঞ্জ সদর ইউনিয়নে ১১২৭ জন,সাচনা বাজার ইউনিয়নে ১১১৬ জন,বেহেলী ইউনিয়নে ১২৭৯ জন,ভীমখালী ইউনিয়নে ১৫৪৫ জন,ফেনারবাক ইউনিয়নের ১০০০ জন উপকারভোগী আছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধিরা তালিকা জমা দেওয়ার পর তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। আর এই কাজ গুলো বাস্তবায়ন করছেন উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিস ৫টি ইউনিয়নে প্রতিটি ইউনিয়নে ২ জন ডিলার করে ১০ জন ডিলারের মাধ্যমে। সরকারের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচী সফল করতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিটি ডিলার পয়েন্টে একজন তদারকি কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করছেন। সাচনা খাদ্য গোদামের ওসিএলএসডি অসীম কুমার তালুকদার,খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর বিষয়ে আমাদেরকে কড়া নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। খাদ্যগোদাম থেকে প্রতিটি ৩০ কেজির বস্তা ওজন পরিমাপ করে ডিলারদেরকে বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক রফিকুল হক বলেন, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী আন্তরিক। জামালগঞ্জের প্রতিটি ডিলার পয়েন্টে তদারকি কর্মকর্তারা ও খাদ্য অধিদপ্তরের লোকজনও তদারকি অব্যাহত রেখেছে।

সাচনা বাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রেজাউল করিম শামীম বলেন, আমার ইউনিয়নের রামনগর এলাকায় মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে কিছু উপকার ভোগীকে চাল দেওয়া বন্ধ করেছিলো, আমি খাদ্য অধিদপ্তরের সাথে কথা বলে আবারো উপকার ভোগীদেরকে চাল বিতরণের ব্যবস্থা করে দিয়েছি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: