সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ২৪ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৯ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রাগীব আলীর জালিয়াতি মামলার বাদীর বিরুদ্ধে সমন

ragib-ali20161028110251ডেইলি সিলেট নিউজ::ভারতে পালিয়ে যাওয়া শিল্পপতি রাগীব আলী ও তার ছেলে আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে ভূমি মন্ত্রণালয়ের চিঠি (স্মারক) জালিয়াতি মামলায় সাক্ষী দিতে না আসায় মামলার বাদী সিলেটের সাবেক সহকারী কমিশনার (বর্তমানে উপসচিব) এসএম আবদুল কাদেরের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার বিকেলে সিলেটের মুখ্য মহানগর বিচারিক হাকিম আদালতে মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের ধার্য তারিখে মামলার বাদী সাক্ষ্য দিতে না আসায় বিচারক মো. সাইফুজ্জামান হিরো সমন জারির আদেশ দেন। আগামী ৮ নভেম্বর মামলার পরবর্তী তারিখে তাকে সাক্ষ্য দিতে বলা হয়েছে।

তবে বৃহস্পতিবার সাক্ষ্য দিয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সিলেটের পরিদর্শক আবুল হোসেন।

গত ১৩ অক্টোবর এ মামলায় প্রথম দফায় সিলেটের সাবেক জেলা প্রশাসকসহ পাঁচজন সাক্ষ্য দিয়েছেন। ওই দিন মামলার বাদী হিসেবে এস এম আবদুল কাদেরকে আদালতে হাজির হয়ে সাক্ষ্য দিতে বলা হয়েছিল।

এরআগে অবশ্য তিনি ৩ অক্টোবর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার মাধ্যমে আদালতকে লিখিতভাবে জানিয়ে ছিলেন পরে সাক্ষ্য দেবেন। বৃহস্পতিবার সাক্ষ্য গ্রহণের দ্বিতীয় পর্যায়ে সাক্ষ্য দিতে আদালতে হাজির না হওয়ায় তার বিরুদ্ধে সমন জারি করেন আদালত।

আদালতের অতিরিক্ত সরকারি কৌঁসুলি (এপিপি) মাহফুজুর রহমান এ বিষয়টি নিশ্চিত করে জাগো নিউজকে জানান, এ মামলায় মোট সাক্ষী ১৪ জন। এ পর্যন্ত ৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ হয়েছে। আগামী ৮ নভেম্বর সাক্ষ্যগ্রহণের পরবর্তী এ তারিখে বাদীকে পুলিশ পাহারায় আদালতে এসে সাক্ষ্য দিতে সমন জারি হয়েছে।

উল্লেখ্য, সিলেট নগরের উপকণ্ঠ পাঠানটুলায় দেবোত্তর সম্পত্তির তারাপুর চা-বাগান ভূমি মন্ত্রণালয়ের চিঠি জালিয়াতি করে বন্দোবস্ত নেন দৈনিক সিলেটের ডাকের সম্পাদকমন্ডলির সভাপতি রাগীব আলী ও তার ছেলে আবদুল হাই।

এ ঘটনায় ২০০৫ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর সিলেটের তৎকালীন সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস এম আবদুল কাদের বাদী হয়ে রাগীব আলী ও তার ছেলে ওই পত্রিকার সম্পাদক আবদুল হাইকে আসামি করে মামলা করলে পুলিশ তদন্ত করে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়ে মামলা নিষ্পত্তি করে।

গত ১৯ জানুয়ারি প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ তারাপুর চা-বাগান পুনরুদ্ধারের রায় দেন। এ রায়ে ১৭টি নির্দেশনার মধ্যে এ মামলাটি পুনরায় তদন্ত করার নির্দেশও দেওয়া হয়।

উচ্চ আদালতের নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে সিলেট মহানগর বিচারিক হাকিম আদালত এক আদেশে পিবিআই পুনরায় তদন্ত করার নির্দেশ দেন। ১০ জুলাই রাগীব আলী ও ছেলেকে অভিযুক্ত করে পিবিআই আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করে।

১০ আগস্ট দুজনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হলে ওই দিনই রাগিব আলী স্বপরিবারে ভারতে পালিয়ে যান। এ অবস্থায় দুই আসামির অনুপস্থিতিতে ১৯ সেপ্টেম্বর মামলার অভিযোগ গঠন করে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: