সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ৯ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৭ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ইউনেস্কোর ‘ভুল’ ভাঙাতে চায় সরকার

rampal20161027212705নিউজ ডেস্ক:
সুন্দরবনের পাশে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ নিয়ে জাতিসংঘের সংস্থা ইউনেস্কোর প্রতিবেদন ভুল প্রমাণ করতে চায় পরিবেশ অধিদফতর। একই সঙ্গে এ প্রকল্প স্থাপনের মাধ্যমে ‘সুন্দরবনের ক্ষতি হবে’ এমন অবস্থান থেকেও সংস্থাটিকে সরিয়ে আনতে চায় সরকার।

জানা গেছে, ইউনেস্কোর ভুল ভাঙাতে পরিবেশ অধিদফতরের ছয় সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল সংস্থাটির সদর দফতর প্যারিস গেছে। প্রতিনিধি দলে রয়েছেন- মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, বিদ্যুৎ বিভাগের পাওয়ার সেলের পরিচালক মোহাম্মদ হোসেন, পরিবেশ অধিদফতরের পরিচালক ড. সুলতান আহমেদ, বন অধিদফতরের খুলনা বিভাগের বন সংরক্ষক জহির উদ্দিন আহমেদ ও পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন সংস্থা সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল অ্যান্ড জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সার্ভিসের (সিইজিআইএস) উপনির্বাহী পরিচালক মালিক ফিদা আবদুল্লাহ খান।

সূত্র জানায়, প্রতিনিধি দল সেখানে রামপালের পক্ষে নিজেদের সব কাগজপত্র উপস্থাপন করবে। অন্যদিকে কিসের ভিত্তিতে ইউনেস্কো এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সেটিও তারা জানতে চাইবে।

এ প্রসঙ্গে পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু মঙ্গলবার বলেন, রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্পের মাধ্যমে সুন্দরবনের ক্ষতি হবে না। এমন তথ্য-প্রমাণ আমাদের কাছে রয়েছে। এখন আমরা ইউনেস্কোর কাছে এসব তথ্য তুলে ধরবো। একই সঙ্গে তাদের প্রতিবেদনের পেছনে কি ভিত্তি আছে সেটাও জানতে চাইব। আমাদের তথ্য-প্রমাণ ঠিক খাকলে তারা মেনে নেবেন, তাদের ঠিক থাকলে আমরা মেনে নেবো।

উল্লেখ্য, বাগেরহাটের রামপালে এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াটের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি হবে বলে দাবি পরিবেশবিদদের। এনিয়ে ব্যাপক আন্দোলনও হয়েছে। পরিবেশবিদদের এই আন্দোলনের সঙ্গে জাতিসংঘের শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থাও (ইউনেস্কো) একই মত দেয়।

প্রতিবেদনে সংস্থাটি রামপাল থেকে বিদ্যুৎকেন্দ্র সরিয়ে নেয়ার আহ্বানও জানায়। এ অবস্থায় সরকারের পক্ষ থেকে সংস্থাটিকে চিঠি দিয়ে জবাব দেয়া হয়। তাতেও কাজ না হওয়ায় পরিবেশ অধিদফতরের কর্মকর্তা সংস্থাটির সদর দফতরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এই সফরে ইউনেস্কো ও বিশ্ব ঐতিহ্য সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবে প্রতিনিধি দল।

জানা গেছে, রামপাল নিয়ে দেশি-বিদেশিসহ বিভিন্ন মহল থেকে তীব্র আপত্তি ওঠার পর গত বছর জার্মানির বনে বিশ্ব ঐতিহ্য কমিটির ৩৯তম অধিবেশনে সুন্দরবন ও রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিদর্শনে একটি বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধি দল পাঠানোর নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়। সে সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে চলতি বছরের ২২ মার্চ তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল এক সপ্তাহের জন্য বাংলাদেশ সফর করে।

দীর্ঘ পাঁচ মাস বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে সংস্থাটি গত আগস্টে সরকারের কাছে একটি প্রতিবেদন পাঠায়। প্রতিবেদনে বলা হয়, সুন্দরবনের পাশে রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মিত হলে পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের মারাত্মক ক্ষতি হবে। রামপালে প্রকল্পের কাজ বন্ধ করে অন্যত্র তা সরিয়ে নেওয়ার কথাও বলা হয়েছিল ওই প্রতিবেদনে।জাগো নিউজ

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: