সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ২১ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বিমসটেক দেশগুলোতে মুক্ত বাণিজ্য অঞ্চল গঠনের আহ্বান শেখ হাসিনার

1476638473নিউজ ডেস্ক: বিমসটেকভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে বাণিজ্য বাড়াতে মুক্ত বাণিজ্য অঞ্চল (এফটিএ) গঠনের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের ওপর জোর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভারতের গোয়ায় ব্রিকস-বিমসটেক আউটরিচ সামিটের আগে রবিবার বিকালে বিমসটেক নেতাদের রিট্রিটে অংশ নিয়ে এ আহ্বান জানান তিনি।

বিমসটেক মুক্ত বাণিজ্য অঞ্চল গঠনের আলোচনা শুরুর পর একযুগ পেরিয়ে গেলেও চুক্তি চূড়ান্ত না হওয়ার বিষয়টি এ অঞ্চলের নেতাদের আন্তরিকতাকেই প্রশ্নবিদ্ধ করে বলে মন্তব?্য করেন শেখ হাসিনা। বিডি নিউজ এ খবর জানায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এফটিএ বাস্তবায়নের পক্ষে আমাদের রাজনৈতিক সদিচ্ছা পুনর্ব্যক্ত করতে হবে। এটা আমাদের আন্তঃআঞ্চলিক বাণিজ্য বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে এবং বিমসটেকের কার্যক্রম ও কর্মসূচিগুলো জোরদার করবে। আগামী বছর বিসমটেকের ২০তম বর্ষপূর্তির সময় এফটিএ সংক্রান্ত চারটি চুক্তি গ্রহণের জন্য লক্ষ্য স্থির করার আহ্বান জানান তিনি।

গোয়ার লিলা হোটেলে এই রিট্রিটের আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিমসটেকভুক্ত দেশগুলোর নেতাদের স্বাগত জানান। অনুষ্ঠানস্থলের বাইরে একে একে সকলের সঙ্গে তিনি করমর্দন করেন এবং ছবি তোলেন। এরপর সবাই মিলে গ্রুপ ফটোসেশন হয়।

বিমসটেক রিট্রিটের আগে এই জোটের নেতাদের সম্মানে গোয়ার মুখ?্যমন্ত্রী লক্ষ্মীকান্ত পারসেকারের দেওয়া মধ?্যাহ্ন ভোজে অংশ নেন শেখ হাসিনা।

থাইল্যান্ডের রাজা ভূমিবল আদুলিয়াদেজের মৃত?্যুতে শোক প্রকাশ করে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন বিমসটেক নেতারা।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম জানান, বিমসটেকভুক্ত দেশগুলোর নেতারা মধ্যাহ্ন ভোজের সময় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

বিমসটেক অঞ্চলের মানুষের জীবন ও জীবন-যাত্রার মানোন্নয়নে ‘আঞ্চলিক প্রকল্প’ তৈরির প্রস্তাব দিয়ে এ জোটের নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “এতে বিমসটেক যেমন জনগণের সঙ্গে আরও সম্পৃক্ত হবে, সংগঠন আরও স্থিতিশীল ও দৃশ্যমান হবে।”

বিমসটেককে আরও কার্যকর ও ফলপ্রসূ করতে নেতাদের প্রত্যাশার পুনর্মূল্যায়নের সময় এসেছে বলে মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা।

আগামী পাঁচ বছরে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, জ্বালানি, আঞ্চলিক সংযোগ ও সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধের মতো প্রধান ক্ষেত্রগুলোতে নজর দিতে বিমসটেক নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেন, সহযোগিতার প্রধান ক্ষেত্রগুলোতে নিয়মিত মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক হলে তাতে কাজে গতি আসবে।

সড়কপথে যোগাযোগ বাড়াতে বিমসটেক ওয়ার্কিং গ্রুপ ইতোমধে?্য আলোচনা শুরু করেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সংযোগ বাড়াতে আমরা এখন উপকূলীয় জাহাজ চলাচল চুক্তি করার কথা বিবেচনা করতে পারি।

“এখন আমরা চাই, উন্নততর উপ-আঞ্চলিক গ্রিড সংযোগ এবং জ্বালানি বাণিজ্যের বিষয়ে সমঝোতা চুক্তি ও তার বাস্তবায়ন দ্রুততর হবে।”

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে পরাজিত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, “আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস উগ্রবাদ মোকাবিলায় বিমসটেকের মধ্যে সহযোগিতা জোরদারে আমরা সক্ষম হব।”

শনিবার গোয়ায় শুরু হওয়া অষ্টম ব্রিকস সম্মেলনে অংশ নেন এই জোটের সদস?্য দেশ রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট মিশেল টেমের, দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

আর বিমসটেকভুক্ত দেশগুলোর মধে?্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়াও ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে, নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমল দহল, শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা, থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চান-ওচা, আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গানি, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন ও মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রী অং সান সু চি আউটরিচ সামিটে অংশ নিচ্ছেন।

গোয়ায় লাল গালিচা সংবর্ধনা

বাসস জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রিকস-বিমসটেক লিডারস আউটরিচ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে রবিবার সকালে গোয়ায় পৌঁছলে তাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার সফর সঙ্গীদের নিয়ে বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে (ভারতীয় সময়) গোয়া নেভাল বেইজ এয়ারপোর্টে পৌঁছায়।

ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এমজে আকবর, গোয়ার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী আলিনা সালদানহা, গোয়া সরকারের সচিব (কোপারেশন) পদ্মা জেসওয়াল, দিল্লিতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, মুম্বাইয়ে ডেপুটি হাইকমিশনার সামিনা নাজ গোয়া এয়ারপোর্টে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানান। ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর একটি চৌকস দল তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। তখন তার সম্মানে শিল্পীরা স্থানীয় সাংস্কৃতিক কার্যক্রম প্রদর্শন করেন।

পরে একটি মোটর শোভাযাত্রার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে হোটেল দ্য লীলা গোয়ায় নিয়ে আসেন।

গতকাল সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সফর সঙ্গীদের নিয়ে বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট সকাল ৮টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে। এ সময় বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান মন্ত্রিপরিষদের সদস্যগণ, সংসদ সদস্যগণ ও সরকারি-বেসরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: