সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ফিলিস্তিনি শিশুর প্রতি ইসরাইলি বাহিনীর এ কেমন বর্বরতা

156508_1আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পশ্চিম তীরের একটি চেকপয়েন্টের নিকটে ১২ বছর বয়সী এক ফিলিস্তিনি কিশোরীর পায়ে গুলি করে আহত করেছে ইসরাইলের নিরাপত্তা বাহিনী।

ইসরাইলের নিরাপত্তা বাহিনীর দাবি, ওই কিশোরীকে থামার জন্য নির্দেশ দেয়া হয় কিন্তু সে তা শুনতে ব্যর্থ হয় এবং পরে তাকে নিবৃত করে ফাঁকা গুলি ছোড়া হয়। তাদের দাবি, শিশুটি আত্মঘাতী হতে কিংবা প্রতিশোধ নেয়ার জন্য বিস্ফোরক দ্রব্য বহন করছিল।

শিশুটি তাদের এ দাবিকে অস্বীকার করে বার বার জানতে চাচ্ছিল ‘প্রতিশোধ মানে কী?’ ইসরাইলি বাহিনীর দাবি যে পুরোপুরি মিথ্যে এটা প্রমাণিত। কেননা প্রতিশোধ কী এটা বুঝারই বয়স যে তার হয়নি।
বারা ওয়াসি নামের ওই কিশোরী জানায়, সে কেবল দেখতে চেয়েছিল কিভাবে তার খালাকে খুন করা হয়েছিল এবং মরার কোনো পরিকল্পনা তার ছিল না।

পশ্চিম তীরের কাছের ‘এলিয়াহু চেকপয়েন্ট’ গতমাসে এই ঘটনা ঘটে। সন্ত্রাসী হামলা চালানোর অভিপ্রায়ে কিংবা মরার উদ্দেশ্যে শিশুটি সেখানে গিয়েছিল- এমন সন্দেহের পর ইসরাইলি সৈন্যরা তার পায়ে গুলি করে।

চ্যানেল-২ নিউজের সাংবাদিক ওহদ হামোকে বারা ওয়াসি বলেন, ‘আমি কখনো তাদের (ইসরাইলের নিরাপত্তা বাহিনী) এরকম কিছু বলিনি।’
পাঁচ মাস আগে ওই চেকপয়েন্টে ওয়াসির খালাকে ইসরাইলি সৈন্যরা হত্যা করে।

বারা ওয়াসি বলেন, ‘আমি দেখতে চেয়েছিলাম কিভাবে তারা আমার খালাকে (ইসরাইলি সৈন্যরা) খুন করেছিল।’

শিশুটি বলেন, ‘ইহুদীরা অব্যাহতভাবে আমার সঙ্গে হিব্রু ভাষায় কথা বলতে থাকে কিন্তু আমি তাদের ভাষা বুঝতে পারিনি। তখন তারা মনে করেছিল আমার কাছে ছুরি আছে কিন্তু আমি কিভাবে ছুরি বহন করতে পারি? সর্বোপরি, আমি যে একজন ছোট মেয়ে।’

ওয়াসি জানান, তার খালার মৃত্যুর প্রতিশোধ নেয়ার কোনো অভিপ্রায় তার ছিল না।

শিশুটি জানতে চান, ‘প্রতিশোধ? প্রতিশোধ নেয়া মানে কি? আমাকে গুলি করে আহত করার সঙ্গে এর কি সংযোগ রয়েছে?’

নিরস্ত্র একটি শিশুর প্রতি এভাবে গুলিবর্ষণের এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, ‘আমি অত্যন্ত ক্ষুদ্ধ। ১২ বছরের একটি কিশোরীকে কিভাবে গুলি করে আহত করতে পারে ওরা। আমি বিশ্বাস করতে পারছি না কিভাবে তার মতো ছোট্ট একটি মেয়ে ওই চেকপয়েন্টে একা যেতে পারে।’

ইসরাইলি নিরাপত্তা বাহিনীর দাবি, মেয়েটি একটি ব্যাগ হাতে তাদের দিকে আসতে ছিল এবং ব্যাগটিতে বিস্ফোরক দ্রব্য থাকতে পারে বলে তারা সন্দেহ করার পর তাকে একাধিক বার থামতে বলা হয়। তারা তার মনোযোগ আকর্ষণ করতে ব্যর্থ হয়ে পরে ফাঁকা গুলি করে।

কিন্তু তাদের দাবিকে অস্বীকার করে শিশুটি জানায়, খুব কাছ থেকে তারা তার পায়ে গুলি করে। যদিও পরে তার শরীর তল্লাশি করে তারা কোনো ধরনের অস্ত্র খুঁজে পায়নি।

সূত্র: ওয়াই নেট নিউজ ডটকম

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: