সর্বশেষ আপডেট : ৩ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাতকে জঙ্গি আতংক

1-daily-sylhet-0-8ছাতক প্রতিনিধিঃ ছাতকে জঙ্গি তৎপরতার বৃদ্ধি নিয়ে উপজেলা জুড়ে বিরাজ করছে এক অজানা আতংক। শীর্ষ ও পুরস্কার ঘোষিত জঙ্গিসহ একাধিক জঙ্গি গ্রেফতার ও সর্বশেষ গাজীপুরে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অভিযানে জঙ্গি সাইফুর রহমান বাবলু নিহত হওয়ায় এখানে জঙ্গির বিষয়টি এখন সর্বত্র আলোচিত হয়ে উঠেছে। ছাতকের সাথে জঙ্গি নামের সম্পর্ক ক্রমেই ঘনিষ্ট হয়ে উঠায় নিজ সন্তানদের নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন এখানের অভিভাবকরা। এখন পর্যন্ত শীর্ষ জঙ্গিসহ ৪ জঙ্গি গ্রেফতার ও এক জঙ্গি পুলিশের অভিযানে নিহত হয়েছে। আরো অনেক জঙ্গি বিভিন্নভাবে ও পরিচয়ে এখানে জঙ্গি তৎপরতা চালাচ্ছে বলে অভিজ্ঞ মহলের ধারনা।

সীমান্ত অঞ্চল হওয়ায় জঙ্গিরা এ অঞ্চলকে নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে বেচে নিয়েছে বলে তাদের অভিমত। ইসলামপুর ইউনিয়নের বৈশাকান্দি-বাহাদুরপুর গ্রামের কথিত পীরের খানকা নামের আস্তানায় জঙ্গী তৎপরতা ও গোপন বৈঠক করার অভিযোগ তুলেছে এলাকাবাসী। অভিযোগের ভিত্তিতে গত ৩ সেপ্টেম্বর আলোচিত খানকা ঘরে তল্লাশী চালিয়ে খানকায় তালা ঝুলিয়ে দেয় থানা-পুলিশ। গোপন বৈঠক ও জঙ্গি তৎপরতার অভিযোগে প্রায় দু’ মাস আগে শহর ও শহরের বাইরে একাধিক স্থানে গভীর রাতে তল্লাসী চালায় র‌্যাব। এখানে জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধির জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর দুর্বলতা ও দায়িত্বহীনতাকেই অনেকে দায়ী করছেন।

চলতি বছরে জঙ্গি তৎপরতায় জড়িত থাকার অভিযোগে এবং প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের একাধিক মন্ত্রী ও এমপিকে হত্যার হুমকী দেয়ার অভিযোগে হুমকীদাতা ইসলামপুর ইউনিয়নের গাংপাড়-নোয়াকোট গ্রামের আব্দুল হককে গ্রেফতার করে পুলিশ। উপমহাদেশের শীর্ষ সাইবার ক্রাইম আব্দুল হকের বিরুদ্ধে ইন্টারনেটে জঙ্গি তৎপরতা চালানোরও অভিযোগে তাকে সিলেট শহর থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আব্দুল হক গ্রেফতার হওয়ার প্রায় এক সপ্তাহ পর তার সহযোগী একই ইউনিয়নের নীজগাঁও গ্রামের তোফজ্জল হোসেনের পুত্র আনিনুর রহমানকেও সিলেট থেকে গ্রেফতার করা হয়। এশিয়ার বৃহত্তম ঈদগাহ কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় গত রমজানের ঈদের জামাতে জঙ্গি হামলার মুল পরিকল্পনাকারী ছাতকের ভাতগাঁও ইউনিয়নের বরাটুকা আল-হিকমা জামেয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মেহেদী হাসানকে বগুড়া থেকে গ্রেফতার করা হয়।

গুলশান ও শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার পর সরকারের ১৮ লক্ষ টাকা পুরস্কার ঘোষিত দেশের ছয় শীর্ষ খুনীর অন্যতম আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের (এবিটি) সামরিক সদস্য শামীম ওরফে সামির ওরফে ইমরান ওরফে সিফাতের বাড়ি ছাতকে। সিফাত ওরফে শামীম কালারুকা ইউনিয়নের মাধবপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কুদ্দুছের পুত্র। সিফাত জঙ্গিদের কিলিং মিশনের সার্বিক সমন্বয়কারী ও প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করতেন। ২৪আগষ্ট তাকে ঢাকার টঙ্গি এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সর্ব শেষ ৮অক্টোবর গাজীপুরে পুলিশের অভিযানে নিহত হয় ছাতক উপজেলার দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়নের মনিরজ্ঞাতি-ডিমকা গ্রামের মতিউর রহমান ওরফে ময়না শাহ ও হোসনেআরা বেগমের একমাত্র পুত্র সাইফুর রহমান ওরফে বাবলু (২৫)।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দাবী মতে গাজীপুরে নিহত ৯ জঙ্গির মধ্যে ৩ জনের বাড়ি ছাতক উপজেলায়। কিন্তু ছাতক থানা-পুলিশ এখন পর্যন্ত সাইফুর রহমান বাবলুকে সনাক্ত করতে পেরেছে। এদিকে একই সাথে নিখোঁজ হওয়া সাইফুর রহমান বাবলুর বাল্যবন্ধু একই গ্রামের আব্দুস ছালামের পুত্র আব্দুল বাছিত (২৩)’র কোন সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। বাছিতও কোন জঙ্গি গ্র“পের সাথে আত্মগোপনে রয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: