সর্বশেষ আপডেট : ৬ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আজ বিজয়া দশমী : ঐক্যে-ভালোবাসায় পরস্পরের সাথে পরস্পরের মিলনের দিন

protima-bishorjon1রবি দাস শংকর ::
আজ শুভ বিজয়া দশমী। দেবী-বিদায়ের আজকের দিনে, পরম এই পুণ্যময় দিনটি ঐক্যে-ভালোবাসায় পরস্পরের সাথে পরস্পরের মিলনের দিন। এককালের অভিজাত শ্রেণীর ব্যক্তিক পর্যায়ের উদ্যোগ-আয়োজন বর্তমানে সর্বজনীন দুর্গোৎসব পরিণত হয়েছে, সমষ্টির যৌথ-সাধনায়। কালের অগ্রগতির সাথে সাথে সমাজে নানা পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। এই প্রবাহের রাতে আমাদের এই বাংলা ভূখণ্ডে আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবনে যে পরিবর্তন সংঘটিত হয়েছে তারই প্রেক্ষাপটে বাঙালি সনাতনী তথা হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান উৎসব দুর্গাপূজা কেবল শারদোৎসবের আনন্দ-আয়োজনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ হয়ে নেই। জীবনের নানা ক্ষেত্রের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণের বোধনে রূপান্তরিত হয়েছে। মাতৃ-প্রতীকে পূজিতা দেবী দুর্গার কাছে, সৃষ্টির স্বাভাবিক বিকাশ ও জ্ঞানপথের সকল আবিষ্কারকে সাথে নিয়ে সনাতনী বাঙালিসমাজ তাদের নিজেদের সন্তানরূপী অবস্থানকে সর্বোচ্চে স্থান দিয়ে সর্বমঙ্গলময় ও কল্যাণের জীবনকালের প্রার্থনা আন্তরিকভাবে করে।

দেবী দুর্গা মহাশক্তির আধার। কালাতীত কাল থেকেই এই উপমহাদেশের হিন্দুসমাজ আশ্বিনের শুক্লা পঞ্চমী তিথি থেকে দশমী পর্যন্ত সেই মহা মাতৃকাশক্তি সিংহবাহিনী দেবী দুর্গার, দেশভুজা প্রতিমার প্রতীকে, বিশ্বের মহাশক্তিরই আরাধনা করে আসছে। পৃথিবীতে প্রতিনিয়ত শুভাশুভের দ্বন্দ্ব চলছে। মাতৃসাধনার মধ্য দিয়ে শুভানুগত সন্তানদল চায় অশুভকে পরাভূত করে সত্যম, শিবম ও সুন্দরমের প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে জয়লাভ করতে। মাতৃরূপিনী মহাশক্তি দেবী দুর্গা শরণাগত সন্তানের সামনে তাই পূজিতা হন দশ শস্ত্রধারিণী প্রতীকে। এর অর্থ দশ দশপ্রহরণ ধারণ করে তিনি তার সন্তানদের রক্ষা করেন, দশদিক থেকে উত্থিত যে কোনো অশুভ শক্তির অমঙ্গলের হাত থেকে।
মাতৃকাশক্তির পূজা আসলে এক মহাভাবের পূজা। এর মধ্যে নিহিত থাকে সর্বকল্যাণের লক্ষ্যে এক মহাসমন্বয়ের সুর। বহুভাবে, বহু মতে, সে প্রকৃতপক্ষে একেরই পূজা। সে-ই একমেবাদ্বিতীয়মের সাধনা। একের ভেতর বহু এবং বহুর ভেতরে একেরই প্রকাশ। হিন্দুধর্মে রয়েছে জগৎকল্যাণের আকাক্সক্ষায় বহুবিচিত্র সাধন মার্গে নিজেকে প্রবৃত্ত করার সুযোগ। মনে রাখতে হবে দেবী দুর্গা ভক্তি ও মুক্ত প্রদায়িনী।

বাঙালি জীবনে দেবী দুর্গা কন্যারূপিনী আত্মজারই মর্যাদা পায়। শারদীয় দুর্গোৎসবে কৈলাসের স্বামীগৃহ থেকে যেনো পুত্রকন্যা সমভিব্যাহারে তিনি বেড়াতে আসেন পিতৃগৃহে। স্নেহমমতায় আকীর্ণ এই মানবিক উপলব্ধিই দেবীর মানবায়নে ক্রিয়াশীল হয়েছে। কৃষিজীবীকা নির্ভর কোমল স্বভাবের আবেগপ্রবণ বাঙালি সমাজের কাছে দেবী দুর্গা কেবল শক্তিরূপিনী ও মাতৃরূপিনী মূর্তিতেই বরণীয়া হন নি, গৃহ-প্রাঙ্গণের অন্তরঙ্গতায় বাঙালি দেবী দুর্গাকে কন্যারূপেও পূজা দিয়েছে। শারদীয় দুর্গোৎসবের বহুমুখী মাহাত্ম্যের চমৎকারত্ব এখানেই।

দেবী বিদায়ের দিন আজ। এ দিনে পরস্পরের সাথে মিলে আসুন সকলে আগামীর দিনগুলোতে সত্য সুন্দরের পরিবেশ নির্মাণের লক্ষ্যে শপথ গ্রহণ করি আমরা। আমাদের চরপাশে এখন হাজারো অসুরের উত্থান ঘটেছে। চিন্তা-চেতনার অন্ধকার শিকল পেছনে নিয়ে যেতে চাইছে অগ্রযাত্রার আকাক্সক্ষাকে। সঙ্কটের দিনকাল অসুন্দরের পথ প্রশস্ত করে চলেছে। শুভ বিজয়া দশমীর উদার চেতনার আলো নিশ্চয় এই দুর্গম পথের বাধা পার হতে সহায়ক হবে আমাদের ভবিষ্যতের দিনগুলোতে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: