সর্বশেষ আপডেট : ৩৫ মিনিট ১৯ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

মহাঅষ্টমী ও কুমারী পূজা সম্পন্ন, আজ নবমী

2009-09-26-23-21-57-090406600-durgaস্টাফ রিপোর্টার ::
ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে দেশব্যাপী হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপিত হচ্ছে। গতকাল রোববার সিলেটসহ সারাদেশের পূজামন্ডপে অষ্টমী পূজা ও কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হয়। অষ্টমী পূজার অঞ্জলি দিতে প্রতিটি পূজামন্ডপে বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। কুমারী পূজা উপলক্ষ্যে সকাল থেকেই সিলেট রামকৃষ্ণ মিশন, মির্জাজাঙ্গাল, মনিপুরি রাজবাড়ি, মাছুরদিঘিরপারসহ নগরীর দেড় শতাধিক পূজামন্ডপে ভিড় করেন পূজারি ও ভক্তরা। আজ মহানবমী অনুষ্ঠিত হবে।

‘নারীতে পরমার্থ দর্শন ও পরমার্থ অর্জন’ এই দার্শনিক তত্ত্বে মহাঅষ্টমী তিথিতে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পালন করলেন কুমারী পূজা। সৃষ্টি-স্থিতি-লয়- এই ত্রিবিধ শক্তি বীজ আকারে কুমারীতে নিহিত, সেই বিশ্বাস থেকেই দেবী দুর্গার কুমারীরূপের আরাধনা করেন ভক্তরা। নারীত্বের বন্দনায় আবারও ধ্বনিত হল, নারী ভোগ্যা নয়, পূজ্যা। সারা দেশে রামকৃষ্ণ মিশনের মতো ঢাকার গোপীবাগের রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনে রোববার সকালে কুমারী পূজার আয়োজন করা হয়। ঢাকার রামকৃষ্ণ মঠে সকাল ১১ টায় শুরু হয় কুমারি পূজা। তবে ভক্তদের ভিড় ছিল আরও আগে থেকে।

১৯০১ সালে ভারতীয় দার্শনিক ও ধর্মপ্রচারক স্বামী বিবেকানন্দ সর্বপ্রথম কলকাতার বেলুর মঠে কুমারী পূজার মাধ্যমে এর পুনঃপ্রচলন করেন। তখন থেকে প্রতিবছর দূর্গাপূজার অষ্টমী তিথিতে রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠে এ পূজা চলে আসছে। নববস্ত্র পরিহিতা হয়ে কুমারী দেবী আসেন বিল্বপত্র, পুষ্পাসনে আসীন হয়ে। তার হাতে ফুল, কপালে লাল সিঁদুর এবং পায়ে আলতা। যেহেতু কুমারির বয়স সাত, তাই তার নামকরণ হয়েছে মালিনী।

পূজা শেষে বিদ্যা বলে, জগতের সকলের কল্যাণ হোক, সেটাই আমার প্রার্থণা। জগতের সকলের মঙ্গল হোক, সকলে সুখে শান্তিতে থাকুক। এর আগে সকাল সাড়ে ৬টায় মহাঅষ্টমী পূজা শুরু হয়। পূজা পরিচালনা করেন প্রধান পরিচালক গুনেশ চৈতন্য। তন্ত্রধারক ছিলেন মহারাজ তিরাত্মানন্দ।

রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠের অধ্যক্ষ স্বামী ধ্রুবেশ্বানন্দ কুমারী পূজার মাহাত্ম্য বিষয়ে বলেন, আমাদের নারীদের ওপর অত্যাচার যেন কম হয়, সেজন্য আমরা কুমারী রূপে মায়ের আরাধনা করেছি। আমাদের সকলের মধ্যে থেকে যেন আসুরিক ভাব দমন এবং একই সঙ্গে দৈবশক্তি তথা মাতৃশক্তি জাগরিত হোক – এটাই মূল কথা।হিন্দু সম্প্রদায় সোমবার শারদীয় দুর্গাপূজার মহানবমী পালন করবে। আর মাত্র একদিন পরেই মর্ত্য ছেড়ে কৈলাসে স্বামীগৃহে ফিরে যাবেন দুর্গতিনাশিনী দেবী দুর্গা। পেছনে ফেলে যাবেন ভক্তদের চার দিনের আনন্দ-উল্লাস আর বিজয়ার অত্র“।

গতকাল রোববার ছিল মহাষ্টমী। রাজধানীর রামকৃষ্ণ মিশনে অনুষ্ঠিত হয় পূজার আকর্ষণীয় পর্ব কুমারী পূজা। মাতৃভাবে কুমারী কন্যাকে জীবন্ত প্রতিমা কল্পনা করে জগজ্জননীর উদ্দেশে শ্রদ্ধা নিবেদন করাই কুমারী পূজা। শাস্ত্র মতে, এদিন তার নামকরণ করা হয় উমা। ভক্তদের মতে, এটি একাধারে ঈশ্বরের উপাসনা, মানববন্দনা আর নারীর মর্যাদার প্রতিষ্ঠা। নারীর সম্মান, মানুষের সম্মান আর ঈশ্বর আরাধনাই কুমারী পূজার অন্তর্নিহিত শিক্ষা। কুমারী পূজা দেখতে সকালে রামকৃষ্ণ মিশন জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছিল। সকালে মতিঝিল থেকে গোপীবাগমুখী রাস্তায় ঢুকতেই ঢাকঢোলের আওয়াজ শোনা যাচ্ছিল। বিরামহীন ঢোলের আওয়াজের সঙ্গে থেমে থেমে বেজে উঠে ঘণ্টা আর কাঁসার শব্দ আর নানা বয়সের নারীদের ভক্তিভরা উলুধ্বনি। এরই মাঝে পিতার কোলে চড়ে মন্ডপে অধিষ্ঠিত হলেন কুমারী মা। হাজারো ভক্ত জয়ধ্বনি দিয়ে বরণ করে নেন কুমারী মাকে। সারাদেশের রামকৃষ্ণ মিশন ছাড়াও মিশন নিয়ন্ত্রিত বিভিন্ন মঠেও কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হয়। টুকটুকে লাল শাড়ি পরে আসা কুমারী মায়ের চোখে-মুখে ভীতিমিশ্রিত আনন্দের ছাপ। চারদিকে তখন অগণিত মানুষের ভিড়। কুমারী মা আসনে আসার পর পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় বেলা ১১টায়।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: