সর্বশেষ আপডেট : ৩১ মিনিট ০ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গাজীপুরে ৮ ঘণ্টার উদ্বেগ উৎকণ্ঠার অবসান

201-2নিউজ ডেস্ক:
গাজীপুরে একই দিনে এক কিলোমিটার দূরত্বে দুটি জঙ্গি আস্তানায় অভিযানকে কেন্দ্র করে শনিবার গাজীপুর শহর কার্যত থমকে গিয়েছিল। সারাদিন সাধারণ মানুষের মধ্যে ছিল উদ্বেগ উৎকন্ঠা আর আতঙ্কের ছাপ।

সকাল ৮ দিকে হাড়িনাল লেবু বাগান এলাকার ব্যবসায়ী আতাউর রহমানের বাড়ি এবং একই দিন সকাল ১০টার দিকে ওই আস্তানার এক কিলোমিটার পূর্ব দিকে নোয়াগাঁও পাতারটেক আবাসিক এলাকার সৌদি প্রবাসী সোলাইমান মিয়ার দুতলা বাড়িতে অভিযান চালানো হয়।

দুই ঘণ্টার ব্যবধানে দুটি জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের খবর জানতে পেরে এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে যেমন কৌতুহল সৃষ্টি হয় তেমনি অভিযানের খবর দেখতে অনেকে টেলিভিশন সেটের সামনে বসে থাকেন। ওই দুটি এলাকার আশপাশের শতশত উৎসুক মানুষ জঙ্গি আস্তানা দুটির আশপাশে ভিড় করে। আইনশৃখলা বাহিনীর সফল অভিযান শেষ হলে ওই এলাকার সাধারণ মানুষের ৮ ঘণ্টার উদ্বেগ উৎকন্ঠার অবসান ঘটে।

সকাল ১০টার দিকে হাড়িনাল লেবু বাগান এলাকায় র্যাব-১ এর সদস্যরা অভিযান শেষ করে। সেখানে রাশেদ ও তৌহিদুল ইসলাম নামে দুই জঙ্গি নিহত হয়।

এ অভিযান শেষ না হতেই ওই এলাকার কাছে নোয়াগাঁও পাতারটেক এলাকায় আরেকটি জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অভিযানের খবরে স্থানীয় লোকজন স্তম্বিত হয়ে পড়ে। বিশেষ করে র্যাব, সোয়াদ, জেলা পুলিশ, পুলিশের এন্ট্রি টেরোরিজম ইউনিট, ফায়ার সার্ভিসসহ আইনশৃংলা বাহিনীর সদস্যদের ব্যাপক তৎপরতায় সাধারণ মানুষের মাঝে উদ্বেগ উৎকন্ঠা বিরাজ করে।

বিশেষ করে সকাল ১০টার পর গাজীপুর শহর ও আশপাশের এলাকায় বিদুৎ ও গ্যাস সংযোগ বন্ধ করে দেয়া হলে এলাকায় এক প্রকার আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। পাতারটেকের জঙ্গিরা সিলিন্ডার বিষ্ফোরণ ঘটাতে পারে এমন খবরের ভিত্তিতে কর্তৃপক্ষ গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগ সাময়িক বন্ধ করে দেয়।

পাতারটেক আবাসিক এলাকার দুতলা জঙ্গি আস্তানাটি ছিল কার্যত একটি নিরিবিলি এলাকা। এখানে জঙ্গিরা আস্তানা গড়ে তুলতে পারে বিষয়টি ওই এলাকার সাধারণ মানুষের ধারণারও বাইরে ছিল। সকাল ১০টার দিকে অভিযান শুরু হলে জঙ্গিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে মুমূর্হু গুলি ও গ্রেনেড ছোড়তে থাকে।

এসময় অভিযানে অংশ নেয়া পুলিশের এন্ট্রি টেরোরিজম ইউনিট, সোয়াত ও গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদের নেতৃত্বে জেলা পুলিশ জঙ্গিদের আস্তানা লক্ষ্য করে পাল্টা গুলি ছুড়ে। সকাল ১০টা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত টানা ৬ ঘন্টার অভিযানে কিছুক্ষণ পর পর থেমে থেকে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে জঙ্গিদের গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

গুলির শব্দে আশপাশের বাড়ি ঘরের মানুষে মধ্যে আতংঙ্ক সৃষ্টি হয়। অনেকে ঘরের দরজা জানালা বন্ধ করে গ্যাস ও বিদ্যুৎহীন অবস্থায় বসে থাকে। বিকাল ৪টার দিকে অভিযান শেষ হলে ওই এলাকার মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে আসে। তখন বিভিন্ন এলাকার শতশত নারী পুরুষ জঙ্গি আস্তাটি দেখতে আসেন। তখন জঙ্গি আস্তানার বাইরে নিহত সাত জঙ্গির লাশ আস্তানা থেকে বের করে আনে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা।

এর মধ্যে নব্য জেএমবির আঞ্চলিক কমান্ডার ফরিদুল ইসলাম আকাশ নামে এক জঙ্গির পরিচয় নিশ্চিত করেছে আইনশৃংলখা বাহিনীর সদস্যরা।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: