সর্বশেষ আপডেট : ৯ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গৃহশিক্ষক থেকে যেভাবে খাদিজার ঘাতক বদরুল!

sust-badrul-pic20161004210527-copyনিউজ ডেস্ক: সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসের ওপর ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলমের হামলার ঘটনায় দেশের সর্বমহলের উদ্বেগ ও নিন্দা অব্যাহত রয়েছে। সিলেটে বিভিন্ন সামাজিক ও পেশাজীবি সংগঠন বিক্ষোভ ও মানববন্ধন পালন করছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে দেশের বিভিন্ন স্থানেও একই ধরনের কর্মসূচি পালন অব্যাহত রয়েছে।

শুধু তাই নয়, এ নিয়ে ভাইরাল জগৎ সরব। ঘটনার পর থেকে ফেসবুক-টুইটারসহ অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমে নিন্দা ও উদ্বেগ প্রকাশ করছে সমাজের বিভিন্ন পেশার নাগরিকরা। নিম্নে কয়েকজনের ফেসবুক স্ট্যাটাস তুলে ধরা হলো-

ইঞ্জিনিয়ার লিমন লোকমান তার স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘এবার আমিও বদরুলের বিচার দাবী করলাম। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা ডেকে বদরুলকে ক্রসফায়ার দেয়ার বিচারিক রায় ঘোষিত হোক।’

সোহাগ কুমার বিশ্বাস তার স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘দুষ্টুমি করে এমসি কলেজের ছাত্রী খাদিজাকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে আহত করেছে শাবি ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল আলম। এতে তাজ্জব হওয়ার কি আছে…! আফসোস দুষ্টু ছেলেটির মুখে চাপ দাড়ি নেই…!!’

মাহমুদুল হাসান তার ফেসবুক স্টাটাসে লিখেছেন, ‘এই সেই সোনার ছেলে, কসাই, ছাত্রলীগের মহান নেতা বদরুল ইসলাম, যিনি আজ সিলেট এমসি কলেজের একটি মেয়েকে প্রকাশ্য কুপিয়েছেন। আমরা এর প্রকাশ্য ফাঁসি দ্বাবী করছি।’

আনিকা ফাহমিদা তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘গতকাল এমসিতে ছাত্রীর উপর হামলাকারী বদরুল আমাদের ব্যাচের স্টুডেন্ট। সে ক্যাম্পাসের একটা পরিচিত ক্যারেক্টার। তার বিভাগের স্টুডেন্টরা ছাড়াও অন্য অনেক ছেলেমেয়েই তাকে চিনে। চেনার কারণ জানতে চাইলে আমাদের যেতে হবে বেশ কয়েকবছর পেছনে। ২০১১/২০১২ তে। ক্যাম্পাস সংলগ্ন হাউশা গ্রামে বদরুল নার্গিসদের বাড়িতে লজিং থাকতো, নার্গিস তখন ক্লাস নাইনে পড়ে। সেখান থেকেই নার্গিসের সাথে তার পরিচয়, অত:পর “ঝামেলা!” একপর্যায়ে নার্গিসের অভিভাবকরা তাকে তাদের বাড়ি থেকে বের করে দেয়!’

‘এরপর সে বিভিন্ন সময় নার্গিসের আত্মীয় স্বজনদের হুমকি দিতে থাকে। এই নার্গিস সংক্রান্ত ব্যাপারটা বদরুলের প্রায় ক্লাসমেটরাই জানে। ২০১২ সালের জানুয়ারিতে একবার বদরুল নার্গিসের এলাকায় গেলে তার আত্মীয় স্বজনরা তাকে পেটায়। অনেক মার দেয়। সিলেটের সবচেয়ে প্রচারিত পত্রিকা “দৈনিক সিলেটের ডাক” এ এই খবরটি আসে, “তথাকথিত প্রেমের জের ধরে হামলার শিকার শাবি ছাত্র……..এরকম নিউজ হয়”! যদিও জাতীয় পত্রিকাগুলোতে এসেছিলো, “ছাত্রলীগ নেতা বদরুলের উপর হামলা করেছে শিবির……” (উল্লেখ্য বদরুল মার খাওয়ার দু তিনদিন আগে ২০১২ সালের ১১ জানুয়ারি ক্যাম্পাসে শিবির-ছাত্রলীগ সংঘর্ষ হয়)।’

‘প্রেমের জের সংক্রান্ত বিষয়টা নিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা তোলার চেষ্টা করা হয়। এমনকি জাফর ইকবাল স্যারও যথারীতি এক চিমটি আবেগ, দুই চামচ মুক্তিযুদ্ধ মিশিয়ে এই বদরুলের প্রতি দরদ দেখিয়ে কলাম লিখেন! “শিবির ছেলেটির রগ কেটে দিয়েছে….আর কোনোদিন স্বাভাবিকভাবে হাঁটতে পারবে না…..ব্লা…ব্লা….”’

‘(হাউশা গ্রামের সাধারণ মানুষ এবং বদরুলের ক্লাসমেটরা ঘটনার এ টু জেড জানেন)। বদরুল কিছুদিনের মধ্যে সম্পূর্ণ সুস্থ হয় উঠে। তারপর কেটে গেলো প্রায় চার বছর। বর্তমানে সে শাবি ছাত্রলীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক। শুনেছি সে মেয়েটিকে মাঝে মাঝেই ডিস্টার্ব করতো।’

 

‘তারপর গতকাল সে পাশব কায়দায় রামদা দিয়ে যে হামলাটা চালিয়েছে, সেটা জঘন্য ইতর প্রাণীকেও হার মানাবে। অনেক পত্রিকায় আসছে “বখাটের হামলা!” তার পরিচয় লুকানোর চেষ্টা করা হয়েছে। দেখা যাক, এবার জাফর ইকবাল কলাম লিখে কী না! লিখেছেন : কাউসার আলম।’

 

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: