সর্বশেষ আপডেট : ৪ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে খাদিজা : ‘৭২ ঘন্টার আগে কিছু বলা যাবেনা’

full_1107360081_1475585643-1ডেইলি সিলেট ডেস্ক: সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসের অবস্থা সংকটাপন্ন। আগামি ৭২ ঘন্টার আগে তার শরীরিক অবস্থা সম্পর্কে কিছু বলা যাবেনা বলে জানিয়েছেন রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালের নিউরো সার্জন ডা. রেজাউস সাত্তার।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ছয়টার সময়ে স্কয়ার হাসপাতালে অপেক্ষমান সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। ডা. রেজাউস সাত্তার বলেন, ‘খাদিজা সকালে ব্রেনে সিভিয়ার ইনজুরি নিয়ে আমাদের কাছে এসেছিল। তাকে ভেন্টিলেশনের রাখা হয়েছিল। দুপুরে তার অপারেশন শুরু হয়। এখন তার অপারেশন শেষ হয়েছে। তাকে ইলেকট্রিক্যাল ভেন্টিলেশনে রাখা হবে। আগামি ৭২ ঘন্টার আগে তার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে কিছু বলা যাবেনা।’

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে স্কয়ার হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. মির্জা নাজিম উদ্দিন বলেছিলেন তার বাঁচার সম্ভবনা খুবই ক্ষীন। গতকাল সিলেটে কুপিয়ে আহত করেছে। তার মাথায় অনেকগুলো কোপের চিহ্ন রয়েছে। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তার মাথার খুলি ভেদ করে ব্রেনে ইনজুড হয়েছে। তার মাথায় কোপানোর সময়ে সে হাত দিয়ে ঠেকানোর চেষ্টা করে। এতে তার দুই হাতে কোপ লাগে।

এই অধ্যাপক বলেন, আমাদের নিউরো সার্জন ডা. রেজাউস সাত্তারের নেতৃত্বে তিনজন চিকিৎসক তার অপারেশন করছে। তার অপারেশন এখনও শেষ হয়নি। তার অবস্থা খুবই খারাপ। তার বাঁচার সম্ভবনা খুবই ক্ষীন। অপারেশন শেষ হলে তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র (আইসিইউতে) ও লাইফ সাপোর্টে রাখা হবে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাতটার সময়ে সিলেট সরকারী কলেজের অনার্স অর্থনীতি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসকে প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক বদরুল আলম।

পরে তাকে গণপিটুনি নিয়ে পুলিশের সোপর্দ করেন জনতা। ওই সময়ে ইমরান নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী নার্গিসকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে তার অবস্থা আশঙ্কজনক হলে তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ ঘটনায় আহত খাদিজা আক্তার নার্গিসকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে দেখতে আসেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাকির হোসেন। এ সময়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, কারো ব্যক্তিগত দায় ছাত্রলীগ নেবেনা। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রমতে অভিযুক্ত বদরুল এখন ছাত্রলীগের কেউ নয়। আমরা তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: