সর্বশেষ আপডেট : ১৫ মিনিট ২৭ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

প্রেমিক জুটির সুখ-দুঃখের সাক্ষী এক মাঝি

155013_1ডেইলি সিলেট ডেস্ক:: ‘প্রায় ৩০বছর ধরে নৌকা বাইতে গিয়ে কত প্রেমিক যুগলের প্রেমের গল্প শুনেছি। নানান মানুষের প্রেম বিরহের সাক্ষী আমি, আমার নৌকা আর এই বলুহর বাওর। অনেক বছর পরে স্ত্রী সন্তান নিয়ে আবারও এসেছে তাদের অনেকে, বখসিশ দিয়েছে, নতুন জীবনের গল্প শুনিয়েছে। একা এসেছেন অনেকে, স্মৃতি বিজড়িত স্থান ঘুরে সামান্য প্রশান্তি পেতে, শুনিয়েছেন কষ্টের কথা।’

বৈঠা বাইতে বাইতে কথাগুলো বলেন ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার বলুহর বাওড়ের অমরেশ মাঝি।

তিনি বলেন, ‘বহু প্রেমিক জুটির সুখ-দুঃখের সাক্ষী আমি। এই বাওড় থেকে আমি অনেক কিছুই পেয়েছি। বাওড় আমাকে অর্থ, সম্মান ও ইজ্জত দিয়েছে। তাই ৭০ বছর বয়সেও নৌকা বাইছে।’
শুধু অমরেশ নয় নিতাই, হরেন সমরেশসহ অনেক মাঝির স্বচ্ছলতা এনে দিয়েছে বলুহর বাওড়। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত তারা বাওড়ে জাল পেতে ছোট ছোট মাছ ধরে বিক্রি করেন। বিকেলে প্রেমিক যুগলকে নিয়ে বাওড় ঘুরে দেখান। বিকেলে নৌকা বেয়ে যা আয় করেন তা দিয়ে ভালোভাবেই সংসার চলে যায়।

অমরেশ জানান, ‘বলুহর প্রজেক্ট ঘাট থেকে নৌকা বেয়ে বাওড়ের পশ্চিম তীর কাগমারি ঘাটে যাত্রী পারাপার করেন। তবে যাত্রী পারাপার থেকে বেশি আয় হয় না। এখানে বেড়াতে আসা লোকজন ঘণ্টা চুক্তিতে বাওড় ঘোরে। এতে ভালো পয়সা পাওয়া যায়।’

তিনি আরও জানান, ‘প্রতিদিন নৌকা বেয়ে দেড়’শ থেকে দুই’শ টাকা আয় হলেও উৎসবের দিনে আয় হাজার টাকাও ছাড়িয়ে যায়।

অমরেশ মাঝি বলেন, ‘একটি নতুন নৌকা তৈরি করতে প্রায় ২৫ হাজার টাকা খরচ হয়। নতুন নৌকা ৭ থেকে ৮ বছর ভালো থাকে। অমরেশ মাঝির চাওয়া বলুহর বাওড় টিকে থাকুক হাজার বছর, থাকুক দখলমুক্ত ও দূষণমুক্ত। তাহলে বাচঁবে হালদা সম্প্রদায়ের মানুষ। আর যান্ত্রিক জীবনে ব্যস্ত মানুষ পাবে পরম প্রশান্তি।’

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: