সর্বশেষ আপডেট : ৬ মিনিট ৪৩ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সম্পর্কের কারণে যেসব মেয়েকে বিয়ে করা যায় না!

biye-1_0-620x336-550x298নিউজ ডেস্ক: পৃথিবীর প্রথম বন্ধন স্বামী-স্ত্রীর। জান্নাতে বাবা আদম ও হাওয়ার। মৃত্যুর পরও জান্নাতিরা বসবাস করবেন স্বামী-স্ত্রীর বন্ধনে। এই জগতের সব চেয়ে মধুর সম্পর্কটির নামও স্বামী-স্ত্রী। তবে মুসলিম সংস্কৃতি ও ইসলামের ল অনুযায়ী বিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত হলেও কয়েক জন নারীকে বিয়ে করা হারাম জানে ইসলাম। যাদের বিয়ে হরাম জানে ইসলাম, তাদের বিষয়ে সুরা নিসার (২৩-২৪) আয়াতের ভাষ্য অনুযায়ী ১৪ জন নারীকে বিয়ে হারাম করেছে কুরআন। তারা হলেন, তোমাদের জন্য হারাম করা হয়েছে তোমাদের ১.মা ২. কন্যা ৩.বোন ৪.ফুফু ৫. খালা ৬. ভাইয়ের ৭.মেয়ে ৮. বোনের মেয়ে ৯. দুধ মা ১০. দুধ বোন ১১. শাশুড়ি ১২. দৈহিক সম্পর্ক স্থাপিত হয়েছে এমন স্ত্রীর অন্য ঘরের যে কন্যা তোমার লালন পালনে আছে; যদি তাদের সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক স্থাপিত না হয় তাহলে, তাকে বিয়ে করাতে দোষ নেই। ১৩. এ ছাড়া তোমাদের ঐরসজাত পুত্রের স্ত্রী, ১৪. একত্রে দুই সহদরা বোনকে বিবাহাধীনে রাখা। তবে, আয়াত নাজিলের পূর্বে যা হয়ে গেছে তা আলাদা। নিশ্চয় আল্লাহ তায়ালা ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু। তবে বংশগত সম্পর্কের কারণে ৭ শ্রেনীর নারীকে বিয়ে করা হারাম ১. মাকে বিয়ে করা হারাম। এখানে দাদি, নানি সবার ক্ষেত্রে এ বিধান প্রযাজ্য। ২. স্বীয় ঔরসজাত কন্যাকে বিয়ে করা হারাম। এখানে পৌত্রী, প্রপৌত্রী, দৌহিত্রী, প্রদৌহিত্রী তাদেরও বিয়ে করা হারাম।

সহোদরা ভগ্নিকে বিয়ে করা হারাম। এমনইভাবে বৈমাত্রেয়ী ও বৈপিত্রেয়ী ভগ্নিকেও বিয়ে করা হারাম। ৪. পিতার সহোদরা, বৈমাত্রেয়ী ও বৈপিত্রেয়ী বোনকে (ফুফুকে) বিয়ে করা হারাম। ৫. আপন জননীর সহোদরা, বৈমাত্রেয়ী ও বৈপিত্রেয়ী বোনকে (খালা) বিয়ে করা হারাম। ৬. ভ্রাতুষ্পুত্রীর সঙ্গেও বিয়ে হারাম, আপন হোক, বৈমাত্রীয় হোক। ৭. বোনের কন্যা, অর্থাৎ ভাগ্নিকে বিয়ে করা হারাম। চাই সে বোন সহোদরা, বৈমাত্রেয়ী ও বৈপিত্রেয়ী যেকোনো ধরনের বোনই হোক না কেন, তাদের কন্যাদের বিবাহ করা ভাইয়ের জন্য বৈধ নয়। এছাড়াও বৈবাহিক সম্পর্কে ফলে ৪ শ্রেনীর নারীকে বিয়ে করা হারাম। ১. স্ত্রীদের মা। (শাশুড়ি) স্বামীর জন্য হারাম। এতে স্ত্রীদের নানি, দাদি সবার জন্য এ বিধান প্রযোজ্য।

নিজ স্ত্রীর সঙ্গে বিয়ের পর সহবাস করার শর্তে ওই স্ত্রীর অন্য স্বামীর ঔরসজাত কন্যাকে বিবাহ করা হারাম। ৩. পুত্রবধূকে বিয়ে করা হারাম। পুত্র শব্দের ব্যাপকতার কারণে পৌত্র ও দৌহিত্রের স্ত্রীকে বিবাহ করা যাবে না। ৪. দুই বোনকে বিবাহের মাধ্যমে একত্র করা অবৈধ, সহোদর বোন হোক কিংবা বৈমাত্রেয়ী বা বৈপিত্রেয়ী হোক, বংশের দিক থেকে হোক বা দুধের দিক থেকে হোক- এ বিধান সবার জন্য প্রযোজ্য। তবে এক বোনের চূড়ান্ত তালাক ও ইদ্দত পালনের পর কিংবা মৃত্যু হলে অন্য বোনকে বিয়ে করা জায়েজ।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: