সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ১৬ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নতুন চমক নিয়ে আসছে যাত্রী

1475132678বিনোদন ডেস্ক: একবিংশ শতাব্দীর শুরুর দিকের ঘটনা। গানপিয়াসী কয়েকজন তরুণ মিলে সংগীত নিয়ে চর্চা করতে করতে জন্ম দিল একটি ব্যান্ডের। তার নাম যাত্রী, ইংরেজিতে এর উচ্চারণ ‘ইয়াত্রী’। ২০০৩-এ ব্যান্ড মিক্সড অ্যালবাম ‘স্বপ্নচূড়া’তে এই ব্যান্ডের প্রথম গান প্রকাশিত হয়। ব্লাক ব্যান্ডের ড্রামার টনির তত্ত্বাবধানে প্রকাশিত এই অ্যালবামে যাত্রীর গানের নাম ছিল ‘নূপুর’। প্রথম গানেই বাজিমাত। রাতারাতি তারকাখ্যাতি পেয়ে যায় যাত্রী ব্যান্ডের গায়ক তপু। সে থেকে এখনো অবধি তাদের ‘এক পায়ে নূপুর’ গানটি বাংলা গানের শ্রোতাদের মুখে মুখে। বাংলাদেশের মানচিত্র পেরিয়ে এই গান ওপার বাংলায়ও বেশ জনপ্রিয়।

বাংলাদেশের যমুনা ফিউচার পার্কে বলিউডের জনপ্রিয় গায়ক অরজিত সিং গান করতে এসে বলেছিলেন, তিনি তপুর ‘এক পায়ে নূপুর’ গান শুনে সংগীতের প্রতি বিশেষ টান অনুভব করেন। লাখো দর্শকের সামনে এই কথা বলে তিনি তপু ও যাত্রী ব্যান্ডের এই গানটি পরিবেশন করেন, এরপরে অরিজিত এদেশে শো করতে এলেই ‘এক পায়ে নূপুর’ গানটি পরিবেশন করে থাকেন।

যাই হোক, ফিরে আসি আগের কথায়। ২০০৪ সালে আবারও টনির তত্ত্বাবধানে প্রকাশিত হয় ব্যান্ডমিক্সড অ্যালবাম ‘স্বপ্নচূড়া-২’। এই অ্যালবামে প্রকাশিত যাত্রী ব্যান্ডের ‘একটা গোপন কথা’ ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। এবার দেশের তারকা ব্যান্ডের কাতারে ঠাঁই করে নেয় যাত্রী। যাত্রী ব্যান্ডের গায়ক তপু হয়ে ওঠেন প্রজন্মের আকর্ষণীয় তারকা। এসবের নেপথ্যে ছিলেন জি সিরিজের কর্ণধার নাজমুল হক ভুঁইয়া খালেদ। গানগুলো প্রকাশিতও হয়েছিল জি সিরিজ থেকে।

২০০৬ সালে এসে যাত্রী ব্যান্ডের একক অ্যালবাম প্রকাশিত হয়। শিরোনাম ছিল ‘ডাক’। এই অ্যালবামের প্রায় প্রতিটি গান শ্রোতাদের পছন্দের তালিকায় ঠাঁই পায়। তবে বেশি জনপ্রিয়তা পেয়েছিল ‘কে ডাকে’, ‘মিথ্যে প্রেম’ ও ‘অজানা মনে’। এর মাঝেই দেশ-বিদেশের স্টেজ শো এবং টেলিভিশন শোগুলোতে বাঞ্ছনীয় হয়ে ওঠেন গায়ক তপু ও যাত্রী ব্যান্ড।

ব্যান্ডের পাশাপাশি তপু একক গান নিয়েও ব্যস্ত হয়ে যান। জি সিরিজ থেকে তার চারটি একক অ্যালবাম প্রকাশিত হয়। তা হলো ‘বন্ধু ভাবো কি?’ (২০০৮), ‘সে কে?’ (২০১০), ‘আর তোমাকে’ (২০১৩) ও ‘দেখা হবে বলে’ (২০১৫) । এই অ্যালবামগুলো শ্রোতাদের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। পাশাপাশি তপু ও তার ব্যান্ড যাত্রীর আরও অনেক গান প্রকাশিত হয় বিভিন্ন মিশ্র অ্যালবামে।

২০০৯ সালে জনপ্রিয় চলচ্চিত্রকার মোস্তফা সরোয়ার ফারুকীর সিনেমা ‘থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার’-এ তপু অভিনয় করেও জনপ্রিয়তা পান।

দীর্ঘ ১০ বছর পরে যাত্রী ব্যান্ড ও তপুর ভক্তদের জন্য রয়েছে সুখবর। জি সিরিজ থেকে প্রকাশিত হতে যাচ্ছে যাত্রীর নতুন অ্যালবাম। ‘যাত্রী’ সেলফ টাইটেল অ্যালবাম হবে এটি। এই প্রসঙ্গে তপু বলেন, ‘যাত্রীর এই অ্যালবামেও রয়েছে চমক।’ ‘এক পায়ে নূপুর’ খ্যাত গায়িকা আনিলার সঙ্গে নতুন গান আবার পাওয়া যাবে এতে। সাগর বাউলকে সঙ্গে নিয়ে যাত্রীর ‘কে ডাকে ২০১৬’ গানের নতুন উপস্থাপনায় মিউজিক ভিডিওটি এরমধ্যে ভালো সাড়া ফেলেছে দর্শকের মাঝে।

প্রসঙ্গক্রমে তপু বলেন, ‘দীর্ঘদিন পরে আমার ব্যান্ডের অ্যালবাম প্রকাশিত হচ্ছে, এতে শ্রোতার আমার একক গানের সঙ্গে বিশাল ফারাক খুজে পাবেন আশা করি। গানগুলোতে আধুনিকতার ব্যাতিক্রম ছোঁয়া পাবেন সবাই। ব্যান্ড মেম্বারদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ । প্রত্যেকে বেশ যত্ন নিয়ে গানগুলো নির্মাণ করেছেন। প্রত্যেকের বাজনায়ও রয়েছে নতুনত্ব। মোট কথা , একজন গায়কের একক গান ও বয়ান্ডের গানের যে একটা পার্থক্য রয়েছে, তা স্পস্ট বোঝা যাবে এই গানগুলো শুনলে।

যাত্রী ব্যান্ডের বেস গিটারিস্ট সামস বলেন, তপু ভাই আমাদের ব্যান্ডের নেতা হলেও তিনি আমাদের সবার পছন্দকেই গুরুত্ব দেন ব্যান্ডের গান করার ক্ষেত্রে। একজন মিউজিশিয়ান হিসেবে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারাটাই বিশাল আনন্দের। তিনি আমাদের ওপর কিছু চাপিয়ে দেন না। তাই তো যাত্রীর প্রথম অ্যালবাম এখনো অব্দি তপু ভাইয়ের সঙ্গেই আছি। কীবোর্ড বাদক রোমেলের কাছে জানা গেলো আরো কিছু গোপন তথ্য। তিনি বলেন, এইবারই প্রথম তপু ভাই সুরের ওপরে গান লিখতে বাধ্য হয়েছেন ব্যান্ডের ভালোর জন্যে। এতে করে উনার অনেক পরিশ্রম গেলেও গানগুলো হয়েছে অসাধারণ ।

লিড গিটারিস্ট সেতু জানালেন আরেক চমকপ্রদ তথ্য। তিনি বলেন, গান নির্মাণের সঙ্গে এই গানের ভিডিওগুলো কেমন হবে সেই স্ক্রিপ্ট আমরা তৈরি করেছি সবাই মিলে। ‘কে ডাকে ২০১৬’ গানের ভিডিও তৈরির সময় পরিচালক নাজমুছ শাহাদাত নাজিম ভাইয়ের সঙ্গে আমরা অনেক কিছু শেয়ার করেছি। তিনিও এক্সপেরিমেন্ট করেছেন বেশ সুন্দর করে। আরও মজার ব্যাপার হলো, নাজিম ভাই গানের এডিটিং করার আগেই তপু ভাই ও সামস মিলে ভিডিও এডিটিং করে ফেলেছিলেন রাত জেগে।

সেতুর কথায় আমরা তপুর একটা নতুন পরিচয়ও পেয়ে গেলাম। তপু শুধু জনপ্রিয় গায়কই নন, তিনি ভিডিও এডিটর হিসেবেও পারদর্শী। ব্যান্ড মেম্বারদের এসব কথা শুনে তপু কিছুটা লজ্জা পাচ্ছিলেন মনে হলো। তবে তপু বিনয়ের সঙ্গেই বললেন, ‘এরা ছাড়া আমি অচল। যাত্রী ব্যান্ডের সাফল্য এসেছে তাদের জন্যই।’ এরপরে যাত্রীর কনিষ্ঠ সদস্য ড্রামার খালিদ বলেন, ‘আমি এই ব্যান্ডের নতুন হলেও প্রত্যেকের ভালোবাসায় আমি মুগ্ধ। উনারা আমাকে প্রতিমুহূর্তে তাদের মতো করে শিখিয়ে নিচ্ছেন। তবে কোনো কিছু চাপিয়ে দেন না। আমি শুধু এটুকুই বলব, যাত্রীর নতুন এই অ্যালবাম অবশ্যই ভালো লাগবে সবার কাছে।’

সেতুর কথার সঙ্গে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করলেন তপুসহ যাত্রী ব্যান্ডের প্রত্যেক সদস্য। আড্ডার শেষে জানা গেল, এই বছরেই যাত্রীব্যান্ড ইউরোপ ও আমেরিকা সফরে যাচ্ছে। আলোচনা চূড়ান্ত। বাকি আছে শুধু আনুষ্ঠানিকতা। তারপরেই আরও অনেক দেশে শো করার সিডিউল রয়েছে যাত্রী ও তপুর। আরও জানা গেল, দেশ-বিদেশে কোনো শো-ই তপু যাত্রী ছাড়া করেন না।

কথায় কথায় সময় ফুরিয়ে এলো আড্ডার। এবার ফিরতে হবে যার যার কর্মস্থলে। যাত্রীর সবাইও প্রস্তুতি নিচ্ছেন অনুশীলনের। আন্তরিক এই আড্ডা শেষে ফিরে এলাম গোধূলির রঙ মেখে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: