সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৪০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

৪ মাসেও মীমাংসা হয়নি রাবির কৃষি অনুষদের রুম বন্টণ সমস্যা

unnamed-1রাবি প্রতিনিধি:
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের নবনির্মিত কিছু রুম বন্টন নিয়ে চার মাস ধরে চলতে থাকা একটি বিষয়ের এখনও মীমাংসা হয়নি। দীর্ঘ সময় ধরে চলতে থাকা বিষয়টি এখন জটিলতর একটি বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় কৃষি অনুষদে ফিশারিজ, এগ্রোনোমি, ভেটেনারি ও ক্রপ সায়েন্স মোট ৪ টি বিভাগ রয়েছে। কৃষি অনুষদ ভবনে নবনির্মিত রুম বন্টন নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে গত জুন মাস থেকে আন্দোলন করে আসছে ফিশারিজ ও এগ্রোনোমি এই বিভাগ দুইটি এবং বিষয়টি সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য ও উপ- উপাচার্য মহোদয়কে জানান তারা। তাদের দাবি বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তাব্যক্তিদের সম্পূর্ণ ভুল তথ্য দিয়ে রুম বন্টনের একপেশে বন্টন কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

নবনির্মিত ১৪টি শিক্ষক চেম্বারের ফিশারিজ বিভাগকে দুইটি, অ্যাগ্রোনমি দুইটি, ক্রপ সাইন্স ৫টি ও ভেটেরিনারি বিভাগকে ৫টি করে বরাদ্দ দেয়া হয় অন্যদিকে ২৫টি শ্রেণীকক্ষের মধ্যে ফিশারিজ বিভাগকে দুইটি, অ্যাগ্রোনমি দুইটি, ক্রপ সায়েন্স ১০টি ও ভেটেরিনারি বিভাগকে ১১টি কক্ষ বরাদ্দ দেয়া হয়।

রুম বন্টন নিয়ে বিভাগ দুইটির অভিযোগ, অধ্যাপক শাহানা কায়েস ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের শিক্ষক হওয়ায় কৃষি অনুষদের ডীন থাকাকালে শ্রেণীকক্ষ বণ্টনে বৈষম্য করেছেন। এরই প্রেক্ষিতে তারা আন্দোলন চালিয়ে যেতে থাকেন।

এদিকে চলতি বছরের ২৯ জুন বিষয়টির জটিলতা নিরসনে কৃষি অনুষদ একটি সভার আয়োজন করে। তবে দুইটি বিভাগ অনুপস্থিত থাকায় সভাটি স্থগিত করা হয়। এরপর বিষয়টি নিয়ে অনুষদের ডীন কে চার বিভাগের সভাপতির সাথে বিষয়টির সুরাহার জন্য বসতে বলেন। তবে অনুষদের ডীন তাতে কালক্ষেপণ করছেন বলেও অভিযোগ করা হয়।

এদিকে রুম বণ্টন অযৌক্তিক দাবি করে পুনরায় বণ্টনের দাবিতে বৃহস্পতিবার বেলা ১০.০০ থেকে ১২.০০ পর্যন্ত অবস্থান ধর্মঘট পালন করেছে ফিশারিজ বিভাগের শিক্ষকগণ।

অবস্থান ধর্মঘটের বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে ফিশারিজ বিভাগের সভাপতি আফজাল হুসাইন ও এগ্রোনোমি বিভাগের সভাপতি আমিনুল হক কৃষি অনুষদের ডীনের বিরুদ্ধে কালক্ষেপনের জন্যই এখনও বিষয়টির সমাধান হয়নি বলে অভিযোগ করেন।

তাই ফিশারিজ বিভাগের পক্ষ থেকে ডীন সম্পর্কিত কার্যাবলি থেকে তারা বিষয়টির সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত বিরত থাকবেন আর আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলেও জানান। তবে ক্লাস পরীক্ষা যথারীতি চলবে বলে জানান তারা।

কৃষি অনুষদের ডীন অধ্যাপক সাইফুল ইসলামের কাছে অভিযোগের বিষয়টির সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি তাদের অভিযোগ মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও বানোয়াট বলে দাবি করেন। অতিসত্তর বিষয়টির মিমাংসা হবে বলেও জানান তিনি।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: