সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ১১ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কমলগঞ্জে বিধিবহির্ভূতভা্বে প্রাথমিক শিক্ষক বরখাস্ত, শিক্ষক সমাজ ক্ষুদ্ধ

01-daily-sylhet-kamalgonj-news2-1কমলগঞ্জ প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মুন্সীবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক তপন দেবনাথকে ডিপিও কৃর্তক বিধিবহিভুর্ত ভাবে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ক্ষুদ্ধ। উপজেলা শিক্ষক নেতৃবৃন্দ বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবগত করে সুবিচার প্রার্থনা করেছেন।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষক নেতৃবৃন্দ জানান,কমলগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার গকুল চন্দ্র দেবনাথের সুপারিশ ও প্রস্তাব মোতাবেক উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৮ জন শিক্ষককে গত ৯ আগস্ট ১৫০০ বিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্পের আওতায় কামুদপুর, দেওড়াছড়া ও মৃর্তিঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাময়িকভাবে কাজ করার জন্য মৌলভীবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: সিরাজুল ইসলাম এক সংযুক্তি অফিস আদেশ জারি করেন। অথচ এই ৮ জন শিক্ষক গত এক বছর ধরে অফিস আদেশ ছাড়াই কর্মরত নিজ বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত রয়েছেন। অথচ ওই ৮জনের মধ্যে মুন্সীবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক তপন দেবনাথকে মৃর্তিঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলী করা হয়। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত আছেন। সরকারী নীতিমালা লঙ্গন করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: সিরাজুল ইসলাম গত ৮ সেপ্টেম্বর তারিখে এক অফিস আদেশে সংযুক্তির আদেশপ্রাপ্ত মুন্সীবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক তপন দেবনাথকে সরকারী কর্মচারী (শৃংখলা ও আপীল) বিধিমালা-১৯৮৫ এর উপবিধি (৩) অনুসারে অসদাচারণের দায়ে অভিযুক্ত করে একই বিধিমালার বিধি-১১ অনুয়ায়ী চাকুরী থেকে সাময়িক বরখাস্তে আদেশ জারী করেন।

কমলগঞ্জ উপজেলার বেশকয়েকজন শিক্ষক জানান, চলতি বছরের ৪ মে থেকে মুন্সীবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক তপন দেবনাথ উপজেলা শিক্ষা অফিসার গকুল চন্দ্র দেবনাথের মৌখিক নির্দেশে ১৫০০ বিদ্যালয় প্রকল্পভুক্ত দেওড়াছড়া চা বাগান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত আছেন এবং ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালনরত আছেন। এই বিদ্যালয়ের বর্তমান শিক্ষার্থী সংখ্যা ২৪৩ জন। কর্মরত শিক্ষক সংখ্যা ৩ জন। এরা সকলেই মৌখিক আদেশে কর্মরত।

বিগত ৯ আগস্ট তারিখের এক অফিস আদেশ দ্বারা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার অন্যান্য শিক্ষকগন যারা মৌখিক নির্দেশে কর্মরত ছিলেন তাঁদেরকে যথাস্থানে বহাল রেখে শুধুমাত্র তপন দেবনাথকে অন্য বিদ্যালয়ে (১৫০০ বিদ্যালয় প্রকল্পভুক্ত মৃর্তিঙ্গা চা বাগান-২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাময়িকভাবে কাজ করতে আদেশ দেন যে বিদ্যালয়ের বর্তমান শিক্ষার্থী সংখ্যা ২৭ (সাতাইশ) জন। তপন দেবনাথ এক দক্ষ গণিত শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকদের প্রশিক্ষক (ঞঙঞ) হয়ে কমলগঞ্জ উপজেলায় কাজ করেন। গত ৫ সেপ্টেম্বর কমলগঞ্জ উপজেলায় এক্সচেঞ্জ ভিজিট হয়। এ সময় দেওয়াছড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়েভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্বরত ছিলেন। যা ভিজিটকারী কর্মকর্তার ভিজিট রিপোর্টে উল্লেখ আছে। তাকে ওই বিদ্যালয়ে সাময়িক আদেশ জারী করানোর বিষয়টি এবং ওই বিদ্যালয়ের কমলগঞ্জে নবাগত (১৩/৭/১৬ তারিখে যোগদানকারী) শিক্ষক ফরিদা আক্তার চৌধুরীকে ডেপুটেশনের আদেশ প্রদান করার বিষয়টি রহস্যজনক বলে মনে করছেন শিক্ষক সমাজ।

গত ৬ সেপ্টেম্বর উপজেলা শিক্ষা অফিসার গকুল চন্দ্র দেবনাথের মৌখিক নির্দেশে তপন দেবনাথ সহ উপজেলা শিক্ষা অফিসে আরো দু’জন সহকারি শিক্ষক প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০১৬ এর ডি আর প্রস্তুতকরণের কাজে নিয়োজিত থাকেন। তাকে এই কাজে ব্যস্ত রেখে ৮ সেপ্টেম্বর উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে তাঁর বিরুদ্ধে রিপোর্ট প্রদান ও একই তারিখে কোন কারন দর্শানো ছাড়াই সাময়িক বরখাস্তের আদেশ প্রদান সম্পূর্ণ বিধিবহিভুত ও উদ্দেশ্যে প্রণোদিত বলে শিক্ষক নেতৃবৃন্দ মনে করছেন।

তারা আরো জানান, সাময়িক বরখাস্ত করণ আদেশে বলা হয়েছে সংযুক্তি আদেশপ্রাপ্ত শিক্ষক বিদ্যালয়ে যোগদান করেননি। কিন্তু সংযুক্তি আদেশ জারীর ক্ষমতা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকেরও নেই সেখানে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সংযুক্তি আদেশ জারী করেন কিভাবে এবং তা বাস্তবায়ন না হওয়া তাৎক্ষনিকভাবে চাকুরীচ্যুত করার এখতিয়ার তাঁর আছে কিনা, এটা প্রশ্নসাপেক্ষে।

এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার গকুল চন্দ্র দেবনাথ ও মৌলভীবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: সিরাজুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাদের বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, যা করেছি জনস্বার্থে ও সরকারি বিধি মোতাবেক করেছি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: