সর্বশেষ আপডেট : ১১ মিনিট ৫৪ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ভোট না দেয়ায় সরকারি রাস্তায় চলাচলে বাধা

sunamganj20160314121547সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা ::
নির্বাচনে ভোট দেওয়া না দেয়ার জের ধরে সরকারি সড়কে চলাচলে বাধার সৃষ্টি করে সুরমা ও জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের ৩০ গ্রামের মানুষকে জিম্মি করে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। দীর্ঘদিন যাবৎ এই সমস্যা সমাধানের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে গত রোববার সকালে জেলা প্রশাসক বরাবরে অভিযোগ করেছেন সংশ্লিষ্টরা।
সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামের কেন্দ্রে ভোট কম পাওয়ায় পরাজিত প্রার্থী আমির হোসেন রেজা ও তাঁর কর্মী-সমর্থকরা ২৪ এপ্রিল থেকে সরকারি সড়কে জনচলাচলে বাধার সৃষ্টি করে আসছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। এই সড়কে লোক চলাচলও এখন বন্ধ রয়েছে বলে জানিয়েছেন সৈয়দপুর গ্রামবাসী।

এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসকের নিকট করা আবেদনে উল্লেখ করা হয়, ‘সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নে ২৩ এপ্রিল ভোট গ্রহণ করা হয়। ২৪ এপ্রিল সকাল থেকে ইব্রাহীমপুর-ডলুরা সরকারি সড়কে চলাচলকারী মানুষকে আমির হোসেন রেজা ও তার ঘনিষ্ঠরা নানাভাবে হয়রানি করে আসছেন। শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতনের পাশাপাশি প্রতি মোটরবাইক থেকে ২০ টাকা করে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। চাঁদা দিতে না চাইলে মারপিটও করা হচ্ছে।
এই অবস্থার অবসানের জন্য আমির হোসেন রেজার সাথে যোগাযোগ করে ৩০ গ্রামের পক্ষ থেকে আলোচনার চেষ্টা চালানো হয়। কিন্তু তাও সফল হয়নি। এই অবস্থায় স্কুল কলেজের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকুরীজীবী, রোগী, সবজি ব্যবসায়ী, সাধারণ ব্যবসায়ীসহ উত্তরপারের নানা শ্রেণি-পেশার প্রায় ৫০ হাজার মানুষ বিপাকে পড়েছেন।’

সৈয়দপুর উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কে. এম. শামসুল আলম রাসেল বলেন, ‘সুরমা উত্তরপারের লক্ষাধিক মানুষ এই সড়ক দিয়ে চলাচল করেন। এটা সরকারি সড়ক, এটার প্রস্ত ৪০ ফুট। নির্বাচনি সহিংসতার জের ধরে সড়কে মানুষের চলাচলে বাধা দেয়া হচ্ছে’।

জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুকশেদ আলী বলেন, ‘নির্বাচনের পর থেকে এই সড়কে চলাচলে বাধার সৃষ্টি করে আসছেন রেজা সাহেবের লোকজন। এই সমস্যার অবসানের জন্য ইতোমধ্যে অনেক চেষ্টা চালানো হয়েছে। কিন্তু কোনো ফল আসেনি।’

সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস ছত্তার বলেন, ‘নির্বাচন করেছি আমরা। সড়ক বন্ধ হলো এলাকাবাসীর। যারা সড়কে চলাচলে বাধা দেয়, এরা বিবেকহীন। এই সমস্যা নিরসনের জন্য আজ (রোববার) জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করা হয়েছে। সদর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মোবারক হোসেনও আবেদনে স্বাক্ষর করেছেন। আমরা বিষয়টির সমাধান চাই।’

আমির হোসেন রেজা এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘ইব্রাহিমপুর-সৈয়দপুর মৌজার সীমানাতে মোবারকের বাগানের পাশে বাঁশ দিয়ে আটকিয়ে মানুষকে নৌকায় শহরে যাবার জন্য বাধ্য করা হয়। সৈয়দপুর গ্রামের দুটি পরিবার এই কাজ করে মূলত. নৌকা থেকে চাঁদাবাজি করেছে। আমি চেয়ারম্যান পদে বিগত নির্বাচনে সৈয়দপুরে ৩শ’ ভোট পেয়েছি। এর আগের নির্বাচনে মাত্র ২৯ ভোট পেয়েছিলাম। আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে’।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: