সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৪৩ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জল জ্যোৎস্না উৎসবে পর্যটক ও দর্শনার্থীর মিলন মেলা

unnamed-1তাহিরপুর প্রতিনিধি: বিপুল সম্ভাবনা ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের ঢালা সাজিঁয়ে আছে বাংলাদেশের উওর পূর্ব দিকে অবস্থিত সুনামগঞ্জ জেলা তাহিরপুর উপজেয়ায়। নান্দনিক আর শৈল্পের কারুকার্যে ভরপুর করে দিয়েছেন বিধাতা তার নিজের হাতেই। উপজেলায় রয়েছে টাংগুয়ার হাওর, বারেকটিলা,যাদুকাটা নদী সহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান যা দেখার জন্য প্রতিদিন হাজার হাজার সুন্দর্য পিপাসু দর্শনার্থীর আগমন গঠে। উপজেলার রয়েছে ঐতিহ্যবাহী টাংগুয়ার হাওর যা বাংলাদেশের বুকে এক উজ্জল নক্ষত্রের নাম। মাদার ফিসারিজ খ্যাত টাংগুয়ার হাওরের নৈসর্গিক সৌন্দর্যের আর্কষনে প্রতিদিন দেশী-বিদেশী হাজার হাজার দর্শনার্থী আসেন। এই হাওরের একটি প্রবাদ আছে,ছয় কুড়ি বিল,নয় কুড়ি কান্দায় হাওর পাড়ের মানুষের জীবন বান্দা। শত বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে এই টাংগুয়ার হাওরে আছে হিজর,করচ,বল্লা,বনতুরশি,ছালিয়া,বিন্ন,নলখাখরা,সহ নানান প্রজাতির বনজ ও জলজ প্রানী এ হাওরের সৌন্দর্য কে আরো দর্শনীয় করেছে। দেশ বিদেশের সুন্দর্য পিপাসু দর্শনার্থীর কাছে তুলে ধরতে ১৬-১৭ সেপ্টেম্ভর আয়োজন করা হয়েছিল জল টাংগুয়ার হাওরে জ্যোৎস্না উৎবের।

শুক্রবার (১৬সেপ্টেম্ভর) উপজেলা সদর থেকে শতাধিক নৌকা নিয়ে টাংগুয়ার হাওরের রোপাই বিলের মাঝে ভাসমান মঞ্চে (ভলগেইটের মধ্যে তৈরি) যোগ দেন হাজারো দর্শনার্থীরা। এ সময় টাংগুয়ার হাওরের রৌপাই বিলের মাঝে ভাসমান মঞ্চের চার পাশে ইঞ্জিন চালিত শতাধিক নৌকায় হাজারো পর্যটক ও হাওর পাড়ের উৎসুক জনতার এক জন সমুদ্রে পরিনত হয়।

unnamed-2বিকাল সাড়ে ৬টায় টাংগুয়ারে জল-জোৎস্না উৎসবের প্রধান উদ্যোক্তা ও তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুলের সভাপতিত্বে ভাসমান মঞ্চে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন,সুনামগঞ্জ ১আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, সুনামগঞ্জ ও মৌলভী বাজার সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি এডঃ শামসুন্নাহার নাহানা রব্বানী,সুনামগঞ্জ ১আসনের সাবেক এমপি নজির হোসেন,সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম,সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন নর রশিদ প্রমুখ। অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌস আলম আখঞ্জি,তাহিরপুর থানার ওসি মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ,উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) রফিকুল ইসলাম,তাহিরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন,উপজেলা আ,লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খাঁ,সাধরন সম্পাদক অমল কান্তি কর,বিশ্বাম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হারুন নর রশিদ,বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আপ্তাব উদ্দিন,সাবেক চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন সহ বিভিন্ন এলাকার স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

সাড়ে ৭টায় অনুষ্টানের শুরুতেই টাংগুয়ার হাওর বৈশিষ্ট নিয়ে গান পরিবেশন করে তাহিরপুর টাংগুয়ার হাওর শিল্পী গোষ্টীর সাথে ছিলে তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরজ্জামান কামরুল। এরপর গান পরিবেশন করেন শিল্পী আশিক,শাহনাজ বেলী,ঐশী,রুপম আখঞ্জি,শোকেশ বর্মন সহ স্থানীয় শিল্পীগন। রাত ১২টা পর্যন্ত ভাটি অঞ্চলের কালজয়ী গান গুলো পরিবেশন করেন আগত শিল্পীরা। পরে সাংস্কৃতিক অনুষ্টানের সমাপ্ত ঘোষনা করা হয়। ১৭সেপ্টেম্ভর শনিবার বারেকটিলায় দুপুর ২টায় শুরু হয় আদিবাসী শিল্পীদের নিয়ে মনমোগ্ধ কর সাংস্কৃতিক ও নৃত্যা অনুষ্টান।

এসময় মুগ্ধ হয়ে আগত দর্শনার্থী ও স্থানীয় এলাকাবাসীরা উপভোগ করেন।

জল-জোৎস্না উৎসবে বেড়াতে আসা রফিকুল,মেহেদী হাসান জনমেজর ভূঁইয়া,ডাঃ কৌষিক পাল,নিউটন রায় সহ বিভিন্ন পর্যটকদের সাথে কথা বললে তারা জানান,তাহিরপুরে টাংঙ্গুয়ার হাওর,যাদুকাটা,বারেকটিলা সহ একাধিক দর্শনীয় স্থান রয়েছে যা দেখতে দেশ বিদেশ ও ঢাকা সহ বিভিন্ন শহর থেকে আসা পর্যটকরা মুগ্ধ হন। আজ এই উৎসবে এসে খুব ভাল লাগছে। হাওর পাড়ের বাসীন্দা ও সীমান্ত এলাকার লোকজন জানান,এখন প্রয়োজন সরকারের বাস্তবমূখী,র্দীঘ মেয়াদী সুচিন্তিত পরিকল্পনার মাধ্যমে টাংগুয়ার হাওর,বারেকটিলা ও যাদুকাটা নদীকে হাওর বেষ্টিত সুনামগঞ্জ জেলার একটি আকর্শনীয় পর্যটন কেন্দ্রে রুপান্তরিত করার। হাওর উৎসবের প্রধান উদ্যোক্তা তাহিরপুর উপজেলার পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল জানান,এখানে পর্যটন শিল্প স্থাপন করা দাবী ও দর্শনীয় স্থান গুলো সুন্দর্য পিপাসু দর্শনার্থীদের কাছে তুলে ধরতে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টায় এই দু-দিন ব্যাপী জল জ্যোৎস্না অনুষ্টনের আয়োজন করেছি। উপজেলার দর্শনীয় স্থান গুলো দেখার জন্য দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটকের আগমন গঠে। কিন্তু বার বার সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে দাবী জানানোর পর এবং বর্তমান প্রধান মন্ত্রী ৬বছর পূর্বে তাহিরপুর উপজেলা কে পর্যটন শিল্প স্থাপনের প্রতিশ্রুতি দিলেও আজও অবকাঠামোগত উন্নয়নের কার্যক্রম হয় নি। তাই এই উৎসবের মাধ্যমে বর্তমান সরকারের দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী একটি পর্যটন শিল্প গড়ে তোলার দাবী জানাচ্ছি। সুনামগঞ্জ ১আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন,তাহিরপুর উপজেলায় পর্যটন শিল্পের আপার সম্ভাবনা বিরাজ করছে।

১৬-১৭সেপ্টেম্ভর এ দু-দিন ব্যাপী জল-জোৎস্না উৎসব আয়োজন পর্যটন শিল্পের বিকাশের জন্য ও এই হাওর বাসীর স্বার্থেই। তাই এই অনুষ্টানের আয়োজক কে ধন্যবকাদ জানাই। আর আমি আমার স্বাদ্ধ মত টাংগুয়ার হাওর ও বারেকটিলায় পর্যটন শিল্প স্থাপনের জন্য সব রকমের চেষ্টা করব।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: