সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় আ.লীগের দু পক্ষ মুখোমুখি : বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন

wwwogo-copyবিশেষ প্রতিবেদক ::
দক্ষিণ সুরমায় সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর কথিত একটি মন্তব্যকে কেন্দ্র করে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এর জের ধরে আজ জালালপুরে একটি জঙ্গিবিরোধী সমাবেশে সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীকে প্রধান অতিথি করায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ নিয়ে আওয়ামী লীগের দুটি পক্ষ মুখোমুখি অবস্থায় রয়েছে। এ ঘটনায় জালালপুরে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
কয়েকদিন পূর্বে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত খবরে বলা হয় যে, সম্প্রতি বালাগঞ্জে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে এক ঘরোয়া বৈঠকে সিলেট-৩ আসনের এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী সিলেট-সুলতানপুর-বালাগঞ্জ সড়ক প্রসঙ্গ টেনে বলেন, বিগত দিনে এই রাস্তায় সংস্কারকাজ চলাকালে এলাকার কতিপয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাছে বড় অঙ্কের চাঁদা আদায় করে। আবার চাঁদা দিতে না পারায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ ফেলে চলে যায়। এরপর থেকে রাস্তাটির এই অবস্থা। তাই রাস্তাটি সংস্কারের বিষয়ে আমিও আগ্রহী নই। তাঁর এই বক্তব্যে জালালপুর এলাকায় তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। গত শনিবার জালালপুরে এলাকাবাসীর উদ্যোগে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা চেয়ারম্যান আবু জাহিদ বক্তব্য রাখেন।
জালালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আজ জঙ্গিবিরোধী একটি সমাবেশের আয়োজন করেছে। এতে এক পক্ষ সংসদ সদস্য সামাদ চৌধুরীকে প্রধান অতিথি ও অপর পক্ষ উপজেলা চেয়ারম্যান আবু জাহিদকে প্রধান অতিথি করেছে। দুটি পক্ষই স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে সমাবেশ ডেকেছে। গতকাল এ নিয়ে জালালপুর বাজারে আবু জাহিদ সমর্থকরা এমপির বিরুদ্ধে লাঠি মিছিল করেছেন। তাঁরা সংসদ সদস্য তাঁর বক্তব্য প্রত্যাহার করে ক্ষমা না চাইলে তাঁকে প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়েছেন।
এ প্রসঙ্গে সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী বলেন, তিনি গত ৮ মাসের মধ্যে দেওয়ানবাজার ইউনিয়নের কোথাও যাননি, কোনো ঘরোয়া বৈঠকেও বক্তব্য রাখেননি এবং কোনো কথাও বলেননি। একটি পত্রিকায় প্রকাশিত তাঁর বক্তব্য মিথ্যা বলে তিনি দাবি করেন। তিনি বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যানের সাথে তাঁর কোনো দূরত্ব নেই। তাঁরা একই দল করেন। দূরত্ব থাকার কথা নয়। তিনি আরো বলেন, ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে সিলেট সুলতানপুর সড়ক সংস্কার ও ১৬টি ব্রিজ ও কালভার্ট নির্মাণ করা হয়। কিন্তু সড়কে ড্রেন না থাকায় জলাবদ্ধতার কারণে পিচ উঠে গিয়ে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়। তিনি জানান, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে সড়কের সংস্কার কাজের টেন্ডার আহ্বানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
তবে উপজেলা চেয়ারম্যান আবু জাহিদ বলেছেন, জালালপুরে সুলতানপুর সড়ক নিয়ে একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন এমপি সামাদ চৌধুরী। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। তিনি একজন সংসদ সদস্য হিসেবে এমপি সামাদ চৌধুরীর আপত্তিকর মন্তব্য প্রত্যাহার করে জনগনের কাছে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান।
উল্লেখ্য, বিগত কয়েক বছর ধরে বালাগঞ্জ থেকে সিলেট পর্যন্ত ২৯ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে সুলতানপুর সড়কের বিভিন্ন স্থান খালে পরিণত হয়েছে। এর ফলে যাত্রীরা বাসে যাতায়াত না করায় তিন বছর ধরে এই সড়কে বাস যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। ১২ আগস্ট বিকালে রাস্তা সংস্কারের দাবিতে বালাগঞ্জ উপজেলার মোরারবাজারে মানববন্ধন করেন এলাকাবাসী।
বাংলাদেশ মানবকল্যাণ পরিষদ নামে একটি সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত এ মানববন্ধন ও পথসভায় বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সব শ্রেণি-পেশার নাগরিকগণ এতে অংশগ্রহণ করেন। এক বছর আগে সিলেট-সুলতানপুর-বালাগঞ্জ সড়কের আজিজপুর বাজারে একই দাবিতে এলাকাবাসীর উদ্যোগে গণসমাবেশ করা হয়েছিল। সমাবশে সরকারদলীয় নেতাকর্মী, বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনসহ সর্বস্তরের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: