সর্বশেষ আপডেট : ৭ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বড়লেখার পর্যটন স্পটগুলোতে পর্যটকের ঢল

pic-madob-kundo-2বিশেষ প্রতিবেদক ::
মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার পর্যটন স্পটগুলো প্রকৃতিপ্রেমী পর্যটকদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠেছে। জীববৈচিত্র্যে ভরপুর পাহাড় আর হাওর বেষ্টিত গাছপালা, হাওর, ঝর্ণা আর নীল আকাশের সঙ্গে রয়েছে ক্ষুদ্র নৃ-তাত্ত্বিক বিভিন্ন গোষ্টীর বৈচিত্র্যময় জীবন ও সংস্কৃতি। এসব কারণেই পর্যটকদের কাছে এখন আকর্ষণীয় স্থান বড়লেখা উপজেলা। তাইতো এবারের ঈদুল-আজহার টানা ছুটিতে পাথারিয়া পাহাড়, হাওর, ঝর্ণা ও বৈচিত্র্যময় প্রকৃতি উপভোগ করতে হাজার হাজার পর্যটকের উপচে পড়া ভিড় এখন এই উপজেলায়। প্রত্যাশিত সংখ্যক পর্যটক পেয়ে খুশি স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। পর্যটন স্পটগুলোত পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

দেশের অন্যতম আকর্ষণীয় জলপ্রপাত মাধবকুণ্ড, দিগন্ত বিস্তৃত সবুজ চা বাগান, আকাশস্পর্শী পাথারিয়া পাহাড়ের বুক চিরে বেরিয়ে আসা ফুল ঢালনি ঝেরঝেরি আর ইটাউরি ফুলবাগিচা ও নয়নাভিরাম হাকালুকি হাওর পর্যটকের মন ও দৃষ্টি কেড়ে নিচ্ছে। বয়সের ভেদাভেদ ভুলে ঈদের আনন্দ ছড়িয়ে পড়েছে প্রতিটি প্রাণে। এখানকার উন্মুক্ত বাতাস, সবুজ প্রকৃতি আর অনেকটা অজানা ঐতিহাসিক নিদর্শন শহরের ক্লান্ত মানুষকে কাছে টেনে নিচ্ছে।

সরেজমিনে মাধবকুণ্ড বন বিভাগ, ইজারাদার ও প্রত্যক্ষদর্শীর সাথে কথা বলে জানা জানা গেছে, ঈদের দিন থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশা, মাইক্রোবাস এবং বাস বোঝাই করে মাধবকু- জলপ্রপাত দেখতে ভিড় করছেন ভ্রমণপ্রিয় মানুষেরা। লোকে লোকারণ্য মাধবকুণ্ড ইকোপার্ক এলাকা। পর্যটকের আগমনে হাসি ফুটে উঠেছে পর্যটন এলাকার ব্যবসায়ীদের মাঝে।

ইজারাদার সূত্রে জানা গেছে, কুরবানির ঈদ হওয়া ঈদের প্রথম দিন বৃহস্পতিবার পর্যটকের সংখ্যা ছিল কম। এদিন প্রায় ৭’শত পর্যটকের আগমন ঘটে, পর দিন বুধবার ও বৃহস্পতিবার প্রায় ৮ হাজার পর্যটকের আগমন ঘটেছে এ জলপ্রপাতে। এবার ঈদ বর্ষাকালে হওয়ায় পর্যটকরা ভিড় করেছেন মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতে। প্রায় ২০০ ফুট উচ্চতা মাধবকু- জলপ্রপাত, বিশাল পাহাড়, শ্যামল সবুজ বনরাজি বেষ্টিত ইকোপার্ক, পাহাড়ি ঝরনার প্রবাহিত জলরাশির কলকল শব্দ সবমিলিয়ে মাধবকু- বেড়াতে গিয়ে মুগ্ধ হচ্ছেন পর্যটকরা।

সরেজমিনে মাধবকুণ্ড পর্যটন কেন্দ্রে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিন পর্যটকদের নিরাপত্তাসহ সার্বিক বিষয়ে তদারকি করতে দেখা গেছে। চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিন জানান, পর্যটকদের নিরপত্তার কথা বিবেচনা করে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে আমি ও আমার পরিষদের চৌকিদারদের নিয়ে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছি।
পর্যটকদের চিত্ত বিনোদনের জন্য মাধবকুণ্ডে পর্যটন কর্পোরেশনের নির্মাণ করা হাতি, পেঙ্গুইন, মৎস্যকন্যা, বাঘ, ভালুক, বক, ঈগল পাখি, কুমির, বানর ইত্যাদির ভাষ্কর্য আগত শিশু-কিশোরসহ বিভিন্ন বয়সী দর্শনার্থীকে বাড়তি আনন্দ প্রদান করছে।

এদিকে এবারের ঈদ বর্ষাকালে হওয়ায় এশিয়ার বৃহৎ জলাভূমি হাকালুকি হাওরের নয়নাভিরাম দৃশ্য, পাথারিয়া পাহাড়ের বুক চিরে বেরিয়ে আসা ফুল ঢালনি ঝেরঝেরি আর ইটাউরি ফুলবাগিচা দেখতে দর্শনার্থীর আগমন ঘটেছে। হাওরের নয়নাভিরাম দৃশ্য উপভোগ করার জন্য বন বিভাগের নির্মাণ করা ওয়াচ টাওয়ার, জল সিঁড়ি দৃষ্টি কেড়েছে সবার।

বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শহিদুর রহমান বৃহস্পতিবার বিকেলে জানান, মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতে আগত পর্যটকদের নিরাপত্তায় পর্যটন পুলিশসহ সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশ সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: