সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ভালোবাসার মানে বোঝাল ক্যানসার আক্রান্ত এলিসের ছাত্রছাত্রীরা (ভিডিও)

image-23487আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ক্রাইস্ট প্রেসবাইটেরিয়ন অ্যাকাডেমিতে লাতিন ভাষা এবং বাইবেলের অধ্যাপনা করেন বেন এলিস। দীর্ঘদিন ধরেই ক্যানসারে আক্রান্ত তিনি, তবু অধ্যাপনার অদম্য ইচ্ছা তাকে ঘরে আটকে রাখতে পারেনি।

ভালবাসা। এই একটা শব্দের কাছে নত হয় পৃথিবীর সমস্ত শক্তি। তবে এই শব্দের গভীরতা হয়তো প্রেমিকার হাতে হাত রাখা কিংবা ফ্রেন্ডশিপ ডে তে বন্ধুর হাতে ব্যান্ড বেঁধে দেওয়ার মধ্যেই শুধু আটকে নেই। কোনো যুদ্ধে যাওয়ার সময় এক সৈনিক যখন সুস্থভাবে বাড়ি ফেরার আশ্বাস দেন তার পরিবারকে, তখন সেও এক ধরনের ভালবাসাই বটে। কিংবা সারাজীবন যে শিক্ষক-শিক্ষিকাকে ব্যঙ্গাত্মক নামে ডেকে আমরা আড়ালে আবডালে মজা করে চলি, স্কুল থেকে তার চলে যাওয়ার দিনে একরাশ মন খারাপ আমাদের ঘিরে ফেলে। এও তো এক ধরনের ভালবাসাই। হয়তো বা সংজ্ঞাহীন। এমনই এক হৃদয়স্পর্শী ভালবাসার কাহিনী শোনা গেল যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশভিলে। যে কাহিনী শুধু ভালবাসার সংজ্ঞাই দিল না, দিল পাশে থাকার আশ্বাসও।

ক্রাইস্ট প্রেসবাইটেরিয়ন অ্যাকাডেমির অধ্যাপক বেন এলিস। অ্যাকাডেমিতে লাতিন ভাষা ও বাইবেলের অধ্যাপনা করেন তিনি। দীর্ঘদিন ধরেই ক্যানসারে আক্রান্ত, তবু অধ্যাপনার অদম্য ইচ্ছা তাকে ঘরে আটকে রাখতে পারেনি কোনোদিন। কেমোথেরাপি ও রেডিয়েশন চলাকালীনও তিনি নিয়মিত হাজির হতেন ছাত্রছাত্রীদের মাঝে এবং পড়াতেনও। কারণ তিনি বিশ্বাস করতেন, অধ্যাপনাই একমাত্র উপায়, যা তার যন্ত্রণাকে ভুলিয়ে রাখতে পারে। তবে গত সপ্তাহ থেকে রোগের বাড়াবাড়ির জন্য তিনি অ্যাকাডেমিতে আসা বন্ধ করে দেন।

এলিসের অনুপস্থিতি ভাবিয়ে তোলে তার অনুগত ছাত্রছাত্রী এবং প্রতিষ্ঠনের অন্যান্য সদস্যদেরও। প্রিয় অধ্যাপকের সান্নিধ্যের অভাব অনুভব করতে শুরু করেন সকলেই। ক্রাইস্ট প্রেসবাইটেরিয়ন অ্যাকাডেমির হেডমাস্টার নেট মরো সকলের সঙ্গে পরামর্শ করে ঠিক করেন, তারা এলিসের বাড়ি যাবেন। তার খবর নিতেই শুধু নয়, এলিসের প্রতি সকলের শ্রদ্ধা এবং ভালবাসার প্রমাণ রাখতেও।
মরো জানতেন প্রার্থনা সঙ্গীত এলিসের খুব প্রিয় ছিল। তাই সকলকে তিনি নির্দেশ দেন, ‘যে যা কাজ করছ, এখনই বন্ধ করো। বাসে উঠে পড়ো সকলে। আমরা এখনই বেনের বাড়ি গিয়ে সকলে একসঙ্গে প্রার্থনা করব।

অতঃপর, বাস বোঝাই ৪০০ জন ছাত্রছাত্রীকে নিয়ে তিনি হাজির হন এলিসের বাড়ির সামনে। এবং সকলে একসঙ্গে গেয়ে ওঠেন, ‘হোলি স্পিরিট, ইউ আর ওয়েলকাম হিয়ার….’ তাদের গানের ভিডিও সর্বপ্রথম শেয়ার করেন মিউজিশিয়ান টিম ম্যাক্ গ্রেরে। ছাত্রছাত্রীদের এ হেন ভালবাসায় অভিভূত হয়ে যান অধ্যাপক বেন এলিস। তিনি জানিয়েছেন, ‘এখন ভগবানের উপর বিশ্বাস আমার আরো বেড়ে গেল।’

ভিডিও দেখুন :

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: