সর্বশেষ আপডেট : ৩২ মিনিট ৫২ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

স্বামীর কাছেই জঙ্গিবাদের দীক্ষা

bcd8ec04c3fca5d3b76d152bad6b9364-57bbeb8267f4c-1নিউজ ডেস্ক : জঙ্গিদের নারী ইউনিট সংগঠিত করছেন জেবুন্নাহার শিলা। তিনি মিরপুরের রূপনগরে নিহত নব্য জেএমবির সামরিক প্রশিক্ষক মেজর (অব.) জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী। স্বামীর কাছেই জঙ্গিবাদের দীক্ষা পেয়েছেন শিলা। পুলিশের অভিযানে স্বামী নিহত হওয়ার পর দুই সন্তানসহ পালিয়ে আস্তানা গেড়েছিলেন আজিমপুরে। সেখানে পুলিশ হানা দেওয়ার চার দিন আগেই এক সন্তান নিয়ে সটকে পড়েছেন তিনি। কিন্তু ধরা পড়েছেন তার তিন সহযোগী, যারা দুর্র্ধষ জঙ্গিদের স্ত্রী।
গ্রেপ্তার হওয়া ওই তিনজন হলেন গুলশান হামলার অন্যতম মাস্টারমাইন্ড নুরুল ইসলাম মারজানের স্ত্রী আফজান ওরফে প্রিয়তি, জঙ্গি বাশারুল্লাহ ওরফে চকলেট ওরফে রাহুলের স্ত্রী শায়লা আফরিন ওরফে আফরা এবং অভিযানে নিহত জঙ্গি করিম ওরফে শমসের উদ্দিন ওরফে জামশেদ ওরফে তানভীর কাদেরীর স্ত্রী শারমিন ওরফে রুহমা। শনিবার রাতে পুলিশ আজিমপুরে তাদের আস্তানায় অভিযান চালাতে গেলে তারা পুলিশের ওপর হামলাও চালিয়েছিলেন।
পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) জিজ্ঞাসাবাদ এবং অনুসন্ধানে ওই তিন নারীর জঙ্গি সম্পৃক্ততার তথ্য মিলেছে। গ্রেপ্তারকৃত তিন নারীর মাধ্যমে পলাতক শিলাসহ জঙ্গিদের নারী ইউনিটের কর্মকা- জানার চেষ্টা করছে গোয়েন্দারা।

পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক বলেন, ‘পলাতক জঙ্গিদের ধরতে অভিযান বেগবান করা হয়েছে। রূপনগরে নিহত জাহিদুলের স্ত্রী শিলা নারী জঙ্গিদের সংগঠিত করছে বলে আমরা তথ্য পেয়েছি। আজিমপুরে পুলিশের অভিযানের সময় যে জঙ্গি মারা গেছে, সে আত্মঘাতী। তার সহযোগীদের ধরতে অভিযান চলছে।’

কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) ছানোয়ার হোসেন বলেন, ‘জাহিদুলের স্ত্রী জেবুন্নেছা শিলা ওই আস্তানা থেকে এক শিশু সন্তান নিয়ে পালিয়ে গেছে। তার বড় মেয়েকে সেখান থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। সে আমাদের এ তথ্য জানায়। তবে আহতদের মধ্যে একজন জঙ্গি মারজানের স্ত্রী। অন্যজন আরেক জঙ্গির স্ত্রী।’
সূত্র জানায়, গত জানুয়ারি মাসে মারজান তার খালাতো বোন প্রিয়তিকে বিয়ে করেন। তার বাড়ি পাবনার ঈশ্বরদীর দাপুনিয়া ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামে। মারজানের বাড়িও পাবনার হেমায়েতপুরের আফুরিয়া গ্রামে। আরেক নারী জঙ্গি শায়লা আফরিন ওরফে আফরার বাড়ি রাজধানীতেই। আস্তানা থেকে উদ্ধার হওয়া তিন শিশুর একটি তাঁর সন্তান। অন্য নারী জঙ্গি শারমিন ওরফে রুহমা। তার দুই যমজ ছেলের মধ্যে একজনকে পুলিশ ওই বাসা থেকে উদ্ধার করে। উদ্ধার হওয়া শিশুটি ধানম-ির ইংরেজি স্কুল মাস্টারমাইন্ডের লেভেল এইটের ছাত্র।

গোয়েন্দা পুলিশের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো জানায়, আজিমপুরের জঙ্গি আস্তানা থেকে উদ্ধার হওয়া তিন শিশুকেই তেজগাঁওয়ের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। মিরপুরের রূপনগরে নিহত জঙ্গি জাহিদের বাবা মমিনুল হকসহ স্বজনরা মঙ্গলবার বিকেলে তেজগাঁওয়ের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে জাহিদের শিশুকন্যাকে দেখতে যান। এদিকে গ্রেপ্তার তিন নারী জঙ্গিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন কয়েকজন কর্মকর্তা। তাতে দুজন বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন।
গোয়েন্দা তথ্য মতে, নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবি, হরকাতুল জিহাদ, এবিটি ও হিযবুত তাহীরের মহিলা সদস্যরা ইসলামের দাওয়াতের নামে কর্মী সংগ্রহ করছেন। শিশুসহ তাঁরা দাওয়াতি কার্যক্রমের পাশাপাশি জঙ্গি আস্তানায় অবস্থান করায় পুলিশের নজর এড়িয়ে গেছেন বারবার। সম্প্রতি কয়েকজন নারী গ্রেপ্তারের পর এই নারী জঙ্গি নেটওয়ার্কের কর্মকা- সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নারীরা স্বামী ও স্বজনের মাধ্যমে জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়ছেন বলে তথ্য মিলছে। এ নেটওয়ার্কে উচ্চশিক্ষিত ও স্মার্ট অনেক নারী যুক্ত রয়েছেন বলেও জানা গেছে।

পূর্বপশ্চিম ডটকম থেকে নেয়া

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: