সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ১২ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কমলগঞ্জে তালাকপ্রাপ্ত গৃহবধূর আত্মহত্যা : স্বজনদের দাবি হত্যাকাণ্ড

ddefffffffffffকমলগঞ্জ প্রতিনিধি::
কমলগঞ্জ উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের চিৎলিয়া গ্রামে সদ্য তালাকপ্রাপ্ত গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। তার নাম মৌসুমী আক্তার ওরফে মায়ারুন (২০)। তবে তার ভাই আব্দুস সামাদ এ ঘটনাকে ‘হত্যাকাণ্ড’ দাবি করেছেন। এ অভিযোগ এনে তিনি বাদি হয়ে কমলগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। গত সোমবার বিকালে আত্মহত্যা করেন মায়ারুন।

ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ সোমবার সন্ধ্যার পর চিৎলিয়া গ্রাম থেকে গৃহবধূ মৌসুমীর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। সোমবার রাতেই মৌসুমীর বড় ভাই আব্দুস সামাদ বাদি হয়ে আব্দুল কাইয়ূম ও তার ছোট ভাই আবুল কালামকে আসামি করে কমলগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

আব্দুস সামাদ জানান, একই গ্রামের তোতা মিয়ার ছেলে মামুন মিয়ার (২৫) সাথে তার ছোট বোন মৌসুমী আক্তার ওরফে মায়ারুনের (২০) বিয়ে হয়েছিল ৩ মাস পূর্বে। বিয়ের পর থেকে তার বোনের প্রেমিক একই গ্রামের মফিজ মিয়া ছেলে আব্দুল কাইয়ূম (২৮) নানাভাবে জ্বালাতন শুরু করে। বিয়ের আগে মৌসুমীকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিল কাইয়ূম। গত ২১ জুলাই কাইয়ূম গোপনে নানা প্রলোভন দেখিয়ে স্বামীর বাড়ি থেকে মৌসুমীকে নিয়ে এক আত্মীয়ের বাড়িতে দুই দিন আটকিয়ে রেখে আবার একদিন রাস্তায় ছেড়ে দেয়। এ ঘটনায় প্রেমিক কাইয়ূমকে চাপ দিলে স্বামীর কাছ থেকে তালাক নিলে সে মৌসুমীকে বিয়ে করবে বলে জানায়। আলীনগর ইউনিয়ন কাজী অফিসে স্বামী-স্ত্রী উভয় পক্ষের সম্মতিতে মৌসুমী তালাক নিয়ে বাবার বাড়ি আশ্রয় নেয়।

তিনি জানান, স্বেচ্ছায় তালাক নেয়ার পর থেকে কালাম নানা ছলচাতুরী শুরু করে। এতে মৌসুমী মৌলভীবাজার আদালতে একটি মামলা করলে আদালত তদন্তক্রমে বিহিত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে কমলগঞ্জ থানাকে নির্দেশ দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে কাইয়ূম আর মৌসুমীকে বিয়ে করবে না বলে জানিয়ে গত ৪ সেপ্টেম্বর বিকাল চারটায় ছোট ভাই কালামকে (২৪) সাথে নিয়ে মৌসুমীর বাড়িতে এসে নানাভাবে গাল মন্দ করে নানাভাবে হুমকি দেয়। এতে ক্ষোভে অপমানে পরদিন সোমবার বিকালে মৌসুমী আত্মহত্যা করে।

আলীনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক বাদশা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, কাইয়ূম সব কিছুই করেছে প্রতারণা করে। তার কারণেই মৌসুমী আত্মহত্যা করেছে। তিনি এ ঘটনার তদন্তক্রমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। অভিযুক্ত কাইয়ূমের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। ঘটনার পর থেকে ভাই কালামসহ কাইয়ূম পলাতক রয়েছে। তবে তার কোনো আত্মীয়স্বজনও এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কমলগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক আবু আল মামুন গৃহবধূর আত্মহত্যা ও থানায় হত্যা মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তদন্তক্রমে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: