সর্বশেষ আপডেট : ১৮ মিনিট ৪ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আখাউড়া-লাকসাম ডাবল রেললাইনের বাকি কাজ শুরু

rel.1-550x392 (1)নিউজ ডেস্ক : বেশ জোরেশোরেই চলছে লাকসাম থেকে আখাউড়া পর্যন্ত ৭২ কিলোমিটার ডয়েল গেইজ ডাবল লাইন নির্মাণের কাজ। প্রায় সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে এ কাজ শেষ হলে ঢাকা এবং চট্টগ্রামের মধ্যে ট্রেনপথের সময় কমবে প্রায় দু’ ঘণ্টা। সাথে পণ্য পরিবহনেও গতি আসবে।

ঢাকা থেকে বন্দরনগরী চট্টগ্রাম পর্যন্ত এখন প্রতিদিন ৭টি আন্তঃনগর যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল করে। মালবাহী ট্রেনগুলোকে সুযোগ করে দিতে বিভিন্ন স্টেশন এবং জংশনে বসে থাকে দিনের পর দিন। এমন বাস্তবতায় ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত ট্রেন লাইনকে ডাবল লাইনে উন্নীত করার উদ্যোগ নেয় সরকার।
তারই কর্মকা- হিসেবে ৩২০ কিলোমিটার দীর্ঘ এ রেলপথের লাকসাম থেকে আখাউড়া পর্যন্ত মাত্র ৭২ কিলোমিটার বাদে বাকি অংশ ডাবল লাইন নির্মাণ কাজ শেষ। এলাকাবাসীর আশা, রেলপথটি উদ্বোধন হলে ঢাকা-চট্টগ্রাম যাত্রাপথে সময় কমে ৩ ঘণ্টার মতো সময় লাগে।

এমতাবস্থায় রেলপথমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক আরও বলেন, রেললাইনটি নির্মাণ শেষ হলে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত সব রেলপথ ডাবল লাইন হয়ে যাবে। তখন পণ্য পরিবহন ও যাতায়াতে অনেক কম সময় লাগবে। জনগণ কম খরচে কম সময়ে যাতায়াত ও মাল পরিবহন করতে পারবেন।

এদিকে, সরকার এবং এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক- এডিবি এবং ইউরোপিয়ান ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক- ইআইবির অর্থায়ন সঠিকভাবে পাওয়া গেলে প্রকল্পের কাজ নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ করতে চায় ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স গ্রুপ।
প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর আরও বলেন, আমাদের যে যন্ত্রপাতি, প্রকৌশলী ও লোকবল আছে তাতে আমরা প্রকল্পটি চার বছরের আগেই আন্তর্জাতিক মানসম্মতভাবে শেষ করতে আগ্রহী। সে অনুযায়ী আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি।
তিনি বলেন, এ ধরণের প্রকল্প ভবিষ্যতে পরিচালনার জন্য বিদেশি কোনো কোম্পানির দরকার নেই। এখানে দেশীয় কোম্পানিগুলো এগিয়ে আসছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আন্তর্জাতিক মানের কাজ করার যোগ্যতা এ দেশের প্রতিষ্ঠানগুলোর আছে বলে মনে করেন ম্যাক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান।

লুপ লাইনসহ প্রায় ১৮৪ কিলোমিটার রেললাইনের মধ্যে থাকবে ১২টি ছোটবড় সেতু এবং ৪৭টি বক্স কালভার্ট। প্রকল্পের আওতায় ১১টি দ্বিতীয় শ্রেণির নতুন স্টেশনর পাশাপাশি ১১টি পুরাতন স্টেশনও মেরামত করে আধুনিকায়ন করা হবে।
প্রকল্পরে হিসাব অনুযায়ী ২০১৮ সালের মধ্যে কাজ শেষ করে যাতায়াত এবং ব্যবসা বাণিজ্যের দ্বার উন্মুক্ত করতে চায় রেল মন্ত্রণালয়। সূত্র: চ্যানেল আই

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: