সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বড়লেখার ৪ পানপুঞ্জির আদিবাসী খাসিয়া ভিটেমাটি ছাড়া হওয়ার আতংকে

Khashiya news daily sylhetজালাল আহমদ::
মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার সীমান্তবর্তী উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নে ভূমিখেকো চা-করদের (বাগান মালিক) আগ্রাসী আক্রমণের শিকার হয়ে ৪টি পানপুঞ্জির আদিবাসী খাসিয়া সম্প্রদায়ের মধ্যে ভিটেমাটি ছাড়া হওয়ার আতংক দেখা দিয়েছে। কখন ভিটা ছেড়ে দিতে হবে-এমন আতংকে এ ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর দিন কাটছে। গতকাল বিকেলে কুমারশাইল পানপুঞ্জির মন্ত্রী (হেডম্যান) ভিশন ইয়াংনে এর ঘরে স্থানীয় খাসিয়া নেতৃবৃন্দের সাথে সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি ও সমাজকর্মীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় খাসিয়ারা অভিযোগ করেন, স্থানীয় নব্য চা বাগান মালিকদের আগ্রাসী আক্রমণের শিকার ৪টি পানপুঞ্জির ২ সহস্রাধিক আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোক।

লিখিত বক্তব্যে কুমারশাইল পানপুঞ্জির মন্ত্রী ভিশন ইয়াংনে জানান, বংশপরম্পরায় প্রায় সাড়ে তিনশ’ বছর ধরে আমরা এখানে বসবাস করছি। রায় বাহাদুর নবকুমার এস্টেট থেকে লিজ নেয়া ভূমিতে এসব খাসিয়া পুঞ্জির গোড়াপত্তন। পরবর্তীতে ১৯৩৪ সালে সিলেট টি কোম্পানী’র মালিকানায় পাল্লাথল, আল্ল-াদাদ, কুমারশাইলসহ এসব চা বাগানগুলোর যাত্রা শুরু। রাজনৈতিক পট-পরিবর্তনে মালিকানা পরিবর্তনের সাথে সাথে ভূমিখেকো হিসেবে নব্য মালিকদের আগ্রাসী তৎপরতায় আদিবাসী খাসিয়াদের ওপর হামলা-মামলা ও নির্যাতনের খড়গ নেমে আসে। পাশাপাশি চলছে অব্যাহত হুমকি-ধামকি। কুমারশাইল, পাল্লাথল, বাতাম-ল ও গান্ধাই-এই চারটি পানপুঞ্জি সংলগ্ন চা বাগান মালিকরা আমাদের ভোগ দখলীয় ভূমির গাছপালা কেটে বিক্রি করছে। উপরন্তু গাছ কাটার অভিযোগ এনে স্থানীয় খাসিয়া লোকদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। বাগান মালিকদের এসব আগ্রাসী কাজে সহযোগিতা করছে থানা পুলিশও-এমন অভিযোগ খাসিয়া সম্প্রদায়ের লোকজনের।

unnamed (3)

বাতাম-ল পানপুঞ্জি লাগোয়া চা বাগান মালিক সম্প্রতি দেড় শতাধিক সুপারি গাছসহ বিভিন্ন প্রজাতির মূল্যবান বৃক্ষ কেটে খাসিয়াদের ভিটেমাটি ত্যাগ করে যেতে ৪০ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে। এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বরাবরে পুঞ্জির পক্ষে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। স্থানীয় চা বাগান মালিকদের খাসিয়াদের ভূমি দখলের আগ্রাসী তৎপরতায় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর অস্তিত্ব হুমকির মুখে পড়েছে।

unnamed (4)

আদিবাসী সম্প্রদায়ের অস্তিত্ব সংকটের বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনকে আন্তরিকভাবে এগিয়ে এসে এসব সমস্যা দেখার আহবান জানিয়ে বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সিলেট চ্যাপ্টারের প্রেসিডেন্ট পিডিশন প্রধান বলেন, এটা মানতেই হবে খাসিয়ারা পরিবেশ রক্ষায় নীরব বিপ্লব চালিয়ে যাচ্ছে। গবেষণায় দেখা গেছে, পানজুমে যে জীববৈচিত্র্য দেখা যায়-সরকারি রিজার্ভ ফরেস্টে এমন জীববৈচিত্র্য দেখা যায় না। খাসিয়াদের ভূমি সমস্যার রাতারাতি সমাধান সম্ভব না হলেও, এখান থেকে যাতে চলে যেতে না হয় সেদিকে সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি রাখতে হবে।

সভায় খাসিয়া জনগোষ্ঠীর বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন মৌলভীবাজার জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ ও আদিবাসী ফোরাম সিলেট বিভাগের আইন উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট ডাডলি ডেরিক প্রেন্টিস। আরও বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন, সমাজসেবক রহিম উদ্দিন, স্থানীয় ইউপি সদস্য মখলিছুর রহমান বটুল, আনিছুর রহমান, সমাজসেবক আব্দুর রহমান বাবুল প্রমুখ।

এছাড়া সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বড়লেখা প্রেসক্লাব সভাপতি সংবাদ প্রতিনিধি অসিত রঞ্জন দাস, যুগান্তর প্রতিনিধি আব্দুর রব, ভোরের কাগজ প্রতিনিধি মিজানুর রহমান, ডেইলি সান’র জেলা প্রতিনিধি সাংবাদিক জালাল আহমদ, যুবনেতা কামাল হোসেন প্রমুখ।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: