সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

মাধবপুরে ত্রিপল মার্ডার : মামলার বাদির এজাহার নিয়ে রহস্য

mahabpur-mapমাধবপুর সংবাদদাতা ::
হবিগঞ্জের মাধবপুরে আলোচিত তিন খুনের ঘটনায় নানা রহস্যের সৃষ্টি হচ্ছে। খুনের প্রকৃত কারণ এবং ঘটনায় কতজন খুনি অংশগ্রহণ করেছিল তা এখনো জানা যায়নি। দিন দিন রহস্যের দানা প্রকট হচ্ছে। গত সোমবার তিন খুনের ঘটনায় থানায় দায়েরকৃত মামলার বাদি নিহত জাহানার ভগ্নীপতি হাজী মো. মোহন মিয়া ওরফে কালন মিয়া নিজেকে মামলার বাদি নয় বলে দাবি করে আদালতে হলফনামা দেন। কালন মিয়া তার ১৩২৬ নম্বর হলফনামায় উল্লেখ করেন, গত ২৩ আগস্ট রাতে লোকমুখে তাঁর শ্যালিকা জাহানারা বেগম জানু স্বামী পক্ষের আত্মীয়স্বজন দ্বারা খুন হয়েছে বলে জানতে পেরে থানায় লাশ দেখতে আসেন। এ সময় পুলিশ শনাক্তকারী হিসেবে সাদা কাগজে তাঁর স্বাক্ষর নেয়। পরে স্বাক্ষরকৃত কাগজে মামলা লিখে এফআইআর করেন। হলফনামায় তিনি আশঙ্কা করেন, অপরাপর আসামিকে রক্ষা করতে পুলিশ ইচ্ছাকৃতভাবে প্রতারণা করে সাদা কাগজে তাঁর স্বাক্ষর নিয়েছে। মামলা দায়েরের উদ্দেশ্যে নেয়নি।
অপরদিকে, স্ত্রী ও কন্যাকে হত্যা এবং শিশু সুজাতকে হত্যার উদ্দেশ্যে আক্রমণের বিচার চেয়ে গিয়াস উদ্দিন বাদি হয়ে তার ভাই শোহ আলম ওরফে তাহের উদ্দিন (৩২),আলাউদ্দিন (৩৮),ভাতিজা জুয়েল মিয়া (১৯), জহুরুল ইসলামসহ (২০) ১৩ জনের নামোল্লেখ করে ৩/৪ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে গত মঙ্গলবার দুপুরে এবং শিমুলকে হত্যার অভিযোগ এনে তার পিতা আব্দুল আলিম বাদি হয়ে শাহ আলম ওরফে তাহের উদ্দিন (৩২),আলাউদ্দিন (৩৮),জুয়েল মিয়া (১৯) সহ ৭জনের নামোল্লেখ করে ৩/৪জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে বুধবার অপর একটি দরখাস্ত মামলা দায়ের করেন ।
উল্লেখ্য, ২৩ আগস্ট মঙ্গলবার সন্ধ্যা অনুমান ৭ টার দিকে উপজেলার বীরসিংহপাড়া গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৪৫), কন্যা শারমীন আক্তারকে (২২) তাঁদের বসতঘরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা করা হয়। এসময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মারাত্মক আহত হলেও ভাগ্যক্রমে বেঁচে যায় শিশু ছেলে সুজাত । এর প্রায় ঘন্টা খানেক পরে পার্শ্ববর্তী আব্দুল আলীমের ছেলে শিমুল মিয়া (২৫)-কেও ঘাতকেরা তার বাড়ির পাশে রাস্তায় ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহাব উদ্দিন, স্থানীয় যুবক ফুল মিয়া সহ অন্য লোকজন আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার ওসি (তদন্ত) মো. সাজেদুর ইসলাম জানান, ১২ জনের নামোল্লেখ করে বাদি পক্ষের দেওয়া একটি দরখাস্ত আদালতে প্রেরণ করেছি। আসামীদের বাড়িঘরে হামলা ভাঙচুরের খবর পেয়ে তদন্ত করেছি। তাদের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: