সর্বশেষ আপডেট : ৯ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চিঠি দিয়ে ফেলে গেল ৩ কোটি টাকার গাড়ি

22-550x343নিউজ ডেস্ক : রাজধানীর কাকরাইল এলাকায় একটি বিলাসবহুল মার্সিডিজ বেঞ্জ গাড়ি পাওয়া গেছে। শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের কার্যালয়ের সামনের সড়কে পরিত্যক্ত অবস্থায় গাড়িটি পাওয়া যায়। বুধবার সকালে এটি উদ্ধার করেন শুল্ক গোয়েন্দারা। তাঁদের তথ্য অনুযায়ী, গাড়িটির মূল্য তিন কোটি টাকা।

এই গাড়ির ভেতরের আসনে একটি খোলা চিঠি পাওয়া গেছে। এতে লেখা রয়েছে, ‘আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে আমার দখলে থাকা গাড়িটি শুল্ক গোয়েন্দার সদর দপ্তরে জমা করছি।’
শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মইনুল খান বলেন, গাড়িটির মালিক মঙ্গলবার গভীর রাতে সম্ভবত এটি ফেলে রেখে গেছেন। তবে চিঠিতে কারও নাম-ঠিকানা উল্লেখ ছিল না।

অবৈধভাবে আনা বিলাসবহুল গাড়ি আটকে শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তরের অভিযানকে স্বাগত জানানো হয় চিঠিতে। এতে লেখা ছিল, ‘আমি এই গাড়িটি জমা দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চাই যে আমার মতো অন্যরাও যেন অবৈধ গাড়ি জমা দেন।’
গাড়িটি পরীক্ষা করে দেখা যায়, এটি দুই দরজার লাল রঙের এসএলকে ২৩০ মডেলের মার্সিডিজ বেঞ্জ। ২০০২ সালের তৈরি গাড়িটির ইঞ্জিনের ক্ষমতা ২৩০০ সিসি।

গাড়িটির প্রকৃত মালিককে খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে জানিয়ে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, গাড়িটি কারনেটের আওতায় দেশে আনা হয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। শর্ত অনুযায়ী, বিদেশে ফেরত নেওয়ার কথা থাকলেও শর্ত ভঙ্গ করে কারনেটের সুবিধার অপব্যবহার করে এ দেশে চালানো হয়েছিল। প্রকৃত মালিককে না পাওয়া গেলে গাড়িটি বাজেয়াপ্ত করে নিলামে বিক্রি করা হবে। এ নিয়ে শুল্ক গোয়েন্দারা বিলাসবহুল ৩২টি অবৈধ গাড়ি জব্দ করেছেন বলেও তিনি জানান।-আমাদের সময়.কম

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: