সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রিতার প্রতি মীর কাসেমের সমর্থন

151776_1নিউজ ডেস্ক: ২০০৭ সালের কথা, মানিকগঞ্জ-২ (সাবেক-৩, হরিরামপুর-সিংগাইর) আসনে বিএনপি-জামায়াত জোটের হয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার কথা ছিল মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতে ইসলামীর নেতা মীর কাসেম আলীর।

নির্বাচন করতে প্রস্তুতিও নিয়েছিলেন তিনি। এজন্য তিনি আগে থেকে এলাকায় আনাগোনাও করতেন। বেশ কিছু দাতব্য প্রতিষ্ঠানও গড়ে তুলেন। এলাকার লোকজনকে সাহায্য-সহযোগিতাও করেন।

কিন্তু পরবর্তীতে এ আসনে বিএনপির প্রার্থী আফরোজা খান রিতাকে জোটের পক্ষে সমর্থন দেওয়ায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান এবং রিতার প্রতি সমর্থন জ্ঞাপন করেন তিনি। এতে বিএনপি নেত্রী রিতাও খুশি হন মীর কাসেমের মহানুভবতায়। তবে শেষ পর্যন্ত ওয়ান ইলেভেনের কারণে আর ওই নির্বাচন হয়নি।
সুতালরি ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুস সালাম বিষয়টি নিশ্চিত করে গণমাধ্যমকে জানান, মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার সুতালরি ইউনিয়নের মুন্সীডাঙ্গি গ্রামে বাড়ি ছিল মীর কাসেম আলীর। ওই গ্রামটি এখন পদ্মা নদীগর্ভে বিলীন। আজ থেকে বছর ১৫ আগে মীর কাসেম আলী হরিরামপুর উপজেলার চালা গ্রামে প্রায় ৫০ শতাংশ জমি কেনেন।

সেখানে গড়ে তোলেন একটি মসজিদ। তবে কোনো বাড়িঘর করা হয়নি। ২০০১ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত তিনি মাঝে মাঝে ওই গ্রামে যেতেন।

মসজিদে এলাকার লোকজনকে নিয়ে বসতেন। তবে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর তিনি মানিকগঞ্জে খুব কম যেতেন। সেখানে একটি বাড়ি করারও ইচ্ছা ছিল তার।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে রাষ্ট্রপক্ষের দাখিল করা নথিপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে মীর কাসেম আলীর জন্ম ১৯৫২ সালের ৩১ ডিসেম্বর। তার ডাকনাম পিয়ারু ওরফে মিন্টু।

মীর কাসেম আলীর জীবনী থেকেও জানা যায়, তার জন্ম ১৯৫২ সালে মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার চালা গ্রামে। তার বাবা তৈয়ব আলী বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডে চাকরি করতেন। মীর তৈয়ব আলীর চার ছেলের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। মীর কাসেমকে এলাকার মানুষ মিন্টু নামেই চেনে। বাবার চাকরির সুবাদে পরিবারের সঙ্গে থাকতেন চট্টগ্রামে। ভর্তি হন চট্টগ্রাম কলেজে। ১৯৭০ সালে চট্টগ্রাম সরকারি কলেজের ছাত্র থাকাকালে সংযুক্ত হন স্বাধীনতাপূর্ব বাংলাদেশের ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্রসংঘের সাথে। ১৯৭১ সালে ছাত্রসংঘের চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি হন তিনি।

মনিকগঞ্জ-৩ আসনে নির্বাচন করার ইচ্ছা ছিল মীর কাসেম আলীর। সে লক্ষ্যে ওই এলাকায় কিছু জনহিতকর কাজও করেন।আরটিএনএন

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: