সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ৪০ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আইএস মুখপাত্র আদনানি ছিলেন জঙ্গি তাহমিদের বস

14095742_132298143887686_2397976547884198834_nআন্তর্জাতিক ডেস্ক : সিরিয়ার আলেপ্পোতে আইএস এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও অন্যতম মুখপাত্র আবু মুহাম্মদ আল-আদনানি নিহত হয়েছেন। আমাকের বরাত দিয়ে বিবিসি এক প্রতিবেদনে বলা হয়, আলেপ্পো প্রদেশে তিনি নিহত হন। আদনানী সেই ব্যাক্তি যার কথা আলেপ্পো থেকে প্রকাশ হওয়া বাংলাদেশি জঙ্গিদের একটি ভিডিওতে উল্লেখ করা হয়েছিলো।

কিভাবে নিহত হয়েছেন সে বিষয়ে নিশ্চিত কিছু জানা যায়নি তবে পেন্টাগন জানিয়েছে, আল বাব শহরে আদনানীকে উদ্দেশ্য করে একটি বোমা হামলা চালানো হয়। সেই হামলার ফলাফল মূল্যায়ন করা হচ্ছে। আদনানীই একমাত্র ব্যাক্তি যিনি বিশ্বব্যাপি ‘লোন উলফ’ আক্রমণের (আইএসের প্রতি আনুগত্য প্রকাশপূর্বক এককভাবে হামলা) জন্য আহ্বান জানান।
আমাক নিউজ অ্যাজেন্সির খবর প্রকাশের পর সোস্যাল মিডিয়ায় স্বস্তি দেখা গেছে। জে মাইকেল নামে একজন নিজের ফেসবুকে লিখেছেন, “আইএসের বিরুদ্ধে আমাদের যুদ্ধের এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় বিজয় এটি।”

tasneemতিনি আরও জানান, আল বাব শহরের কিদারিয়ান জংশন নামক যায়গায় এক ড্রোন আক্রমণে পাঁচ দেহরক্ষীসহ আদনানী নিহত হয়।
এই হামলা সম্পর্কে আমাক নিউজ অ্যাজেন্সিত খবরের স্ক্রিনশট শেয়ার দিয়ে তাসনিম খলিল নামে একজন ফেসবুকে লিখেন, বিশাল খবর! ‘ইমনি’র পালের গোদা, যে বাংলাদেশসহ বিশ্বের অন্যান্য স্থানে আক্রমণ আইসিস আক্রমণের জন্য দায়ী সে নিহত হয়েছে। আবু মোহাম্মাদ আল আদনানী হচ্ছে সেই ব্যাক্তি যার কথা আবু ইসা আল-বাঙালি (তাহমিদ রহমান) রাক্কা থেকে প্রকাশিত ভিডিওতে উল্লেখ করেন।

প্রসঙ্গত, ইমনি হচ্ছে আইএসের মধ্যে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী পুলিশ বাহিনীর মতো একটি বাহিনী যারা অভ্যন্তরীন শৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি আইএসের আক্রমণকে তাদের এলাকার বাহিরে (বিশ্বব্যাপি) ছড়িয়ে দেয়।
গুলশান হামলার কয়েকদিন পর রাক্কা থেকে প্রকাশিত ওই ভিডিওতে তাহমিদ রহমান নামে ওই জঙ্গি বলেন, “আমাদের শেখ আদনানী যখন আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন তোমাদের (জঙ্গিদের ভাষায় ‘ক্রুসেডর’) বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে, তিনি কথাটি মজা করে বলেননি। আমরা শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যাবো।”

ja-michelগত দুই বছর থেকে আইএসের এই নেতা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিশেষ করে ফ্রান্সে আক্রমণ চালানোর জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। তার নির্দেশেই গত রমজান মাসে বিশ্বব্যাপি এতো আক্রমন হয়।

বিবিসির পর্যালোচনায় বলা হয়, আইএসের এই প্রতিষ্ঠাতা সদস্যের ওপর মার্কিন সরকারের ৫০ লাখ ডলারের পুরষ্কার ছিলো।এক মার্কিন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, ২০০৩ সালে মার্কিন বাহিনীর ইরাক আক্রমণের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো অন্যতম প্রথম বিদেশী ছিলেন এই আদনানী।

অনেকেই মনে করেন, চতুর্দিক থেকে মারাত্মক চাপের মধ্যে থাকা ইসলামিক স্টেটের জন্য এটি একটি বিশাল দুঃসংবাদ। এতে বিশ্বের বুক থেকে আইএস নামক ব্যাধি অপসারণে আরেক ধাপ এগিয়ে গেলো বিশ্ব।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: