সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চীনের টার্গেটে মোদি

bc6ff8f1-2bb4-4f51-a6e9-2458f1fdfccdআন্তর্জাতিক ডেস্ক : পাকিস্তানের পর এবার চীনের সঙ্গেও ভারতের সম্পর্কের অবনতির দিকে যাচ্ছে। এতোদিন ভারত-চীন সম্পর্ক কূটনৈতিক শিষ্টচারের মধ্যেই ছিল। কিন্তু এবার সেই সম্পর্ক অবনতির পথে এগুচ্ছে। পাকিস্তানের বেলুচিস্তান ইস্যুতে চীন এবার প্রকাশ্যে ভারত বিরোধী অবস্থান নিয়েছে। চীনের এ অবস্থানের কারণ ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি। তাই এখন চীনের প্রধান টার্গেট মোদি।

চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম গ্লোবাল টাইমস খোলাখুলি আক্রমণ করেছেন মোদিকে। সিনহুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের গবেষক জাই চাও এক কলামে মোদির কঠোর সমালোচনা করে চীনের টার্গেট হিসেবে উল্লেখ করে লিখেছেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ধৈর্য্য হারিয়ে ফেলেছেন এবং প্রত্যাশিত ভাবেই কট্টরবাদী সুর নিয়ে বিদ্বেষ বাড়িয়ে তুলছেন। পাকিস্তানের বেলুচিস্তান নিয়ে নরেন্দ্র মোদি প্ররোচনা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন।
গ্লেবাল টাইমসে বলা হয়েছে, ভারত-পাকিস্তান সম্পর্কের পুনরুজ্জীবনের জন্য কিছু দিন অনিচ্ছুক প্রয়াস চালানোর পর, নরেন্দ্র মোদি ভারতের প্রধানমন্ত্রী পদে তার তৃতীয় বছরে পৌঁছে ধৈয্য হারিয়ে ফেলেছেন এবং প্রত্যাশিত ভাবেই শত্রুতার কট্টরবাদী পথে হাঁটতে শুরু করেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কয়েকজন প্রভাবশালী মন্ত্রী এবং পাকিস্তানের সঙ্গে দীর্ঘ ঠান্ডা লড়াইয়ের লিপ্ত থাকা বেশ কয়েকজন প্রবীণ রাজনৈতিক ভারতের এই অবস্থান গ্রহণের নেপথ্যে রয়েছেন। এদের মধ্যে কয়েকজন উগ্র হিন্দুত্ববাদী সংগঠন আরএসএস এর জাতীয় কমিটির সদস্য রয়েছেন।

গ্লেবাল টাইমসে আরো বল হয়, ভারত সরকারের সব অংশ এই ঝুঁকিপূর্ণ আচরণের পক্ষে নয়। তার (নরেন্দ্র মোদির) গোয়েন্দা প্রধানরা এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের কর্মকর্তারা এই অবস্থানের বিপক্ষেই রয়েছেন। ভারত যখন দীর্ঘদিন ধরেই দাবি করছে যে বেলুচিস্তানের অশান্তিতে তাদের কোনও ভূমিকা নেই, তখন মোদি প্রকাশ্যে বেলুচিস্তান নিয়ে মন্তব্য করার পথ বেছে নিলেন কেন? তার সরকার যখন কাশ্মীর ইস্যুর আন্তর্জাতিকীকরণ রুখতে বদ্ধপরিকর, তখন কাশ্মীরের বিষয়েই বা মোদি এত প্ররোচনামূলক কথা বলবেন কেন, যথন তিনি জানেন যে এ বিষয়ে পাকিস্তানের প্রত্যুত্তর গোটা বিশ্বের নজর কাশ্মীরের দিকেই টেনে আনবে।
কাশ্মীর উপত্যাকায় যা চলছে, সে সবের দিক থেকে বিশ্বের নজর অন্য দিকে ঘোরাতেই তিনি এসব করছেন বলে গুজব রয়েছে। ভারত যেভাবে স্বেচ্ছায় দ্বিপাক্ষিক বিরোধের পরিধিকে বাড়িয়ে তুলছে, তাতে সমাধানসূত্র খুঁজে পাওয়া ভারতের পক্ষে আরও কঠিন হয়ে উঠবে।

এই প্রথম চীনের সরকারি মিডিয়া বেলুচিস্তান প্রসঙ্গে নরেন্দ্র মোদির মন্তব্য সম্পর্কে কোনও মত প্রকাশ করল। বেলুুচিস্তান প্রসঙ্গে মোদি তথা ভারত সরকারের যে অবস্থান, সে প্রসঙ্গে চীনা কূটনীতিকরা গত কয়েক দিন ধরে ব্যক্তিগত মত প্রকাশ করছিলেন। সেই মতামতেও মোদির সমালোচনাই ছিল। কিন্তু সরকারি ভাবে এত দিন পর্যন্ত বেজিং মোদিকে বা ভারতকে কোনও প্রত্যক্ষ আক্রমণ করেনি। মঙ্গলবার গ্লোবাল টাইমসে যে প্রতিবেদন প্রকাশিত হল, তাতে চীনা সরকারের অবস্থানে আর কোনও রাখঢাক রইল না। অত্যন্ত কঠোর ভাষায় আক্রমণ করা হল মোদিকে।

এ বিষয়ে ভারতের কূটনৈতিকদের বরাতে কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা লিখেছে, চীনের সরকারি সংবাদমাধ্যম ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে যেভাবে আক্রমণ করেছে, তা নজিরবিহীন। মোদি সম্পর্কে যে সব শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে, কূটনৈতিক পরিভাষায় তা অত্যন্ত কঠোর। একটি দেশের সরকারি সংবাদমাধ্যমে অন্য দেশের প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে এই ধরনের মন্তব্য আদ্যন্ত অসৌজন্যমূলক বলেও কূটনৈতিক মহলের মত।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশারদরা বলছেন, চাপে পড়েই এই রকম নজিরবিহীন অসৌজন্যমূলক আচরণ করছে বেজিং। ৪৬ হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগ করে যে চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডর গড়ে তুলেছে বেজিং, তা পাক অধিকৃত কাশ্মীর এবং বেলুচিস্তানের মধ্যে দিয়ে গিয়েছে। পাক অধিকৃত কাশ্মীরে চীন-পাকিস্তানের এই যৌথ প্রকল্পের বিরুদ্ধে ভারত আগেই প্রতিবাদ জানিয়েছে। আর বেলুচিস্তানে ওই প্রকল্পের বিরোধিতা শুরু করেছেন বালোচরাই। পাক অধিকৃত কাশ্মীর এবং বেলুচিস্তানে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ক্ষোভ যে ভাবে বাড়ছে, তাতে ওই করিডরের নিরাপত্তা তো বিঘিœত হচ্ছেই। তার সঙ্গে আন্তর্জাতিক মহলের সামনে গণহত্যার দায়েও অভিযুক্ত হতে হচ্ছে চীনকে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: