সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৩৪ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

উত্তর বিশ্বনাথ উচ্চবিদ্যালয়ে অনিয়ম-দুর্নীতির নানা অভিযোগ

durniti thamanস্টাফ রিপোর্টার ::
বিশ্বনাথ উপজেলার উত্তর বিশ্বনাথ দ্বিপাক্ষিক উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলা চলছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। প্রশ্নপত্র ফাঁস করে কোমলমতি শিশুদের জীবন ধ্বংস করা হচ্ছে। কয়েকজন শিক্ষক অনিয়মকে নিয়মে পরিণত করেছেন।
বিগত গত ১০ম শ্রেণির প্রাক-নির্বাচনি ও অষ্টম শ্রেণির অর্ধবার্ষিক পরীক্ষায় ইংরেজি প্রথম পত্রের প্রশ্ন ফাঁস করে দেওয়া হয়।
কয়েকজন শিক্ষক তাদের কাছে প্রাইভেট পড়তে আসা শিক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্র ফটোকপি দিয়ে দেন। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হয়ে গেলে অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও সচেতন মহলের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত এ বিদ্যালয়ে প্রায়ই প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ রয়েছে। গত ২০ আগস্ট শনিবার বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের এক বৈঠকে প্রশ্নপত্রে ফাঁসের ঘটনাটি প্রমাণিত হয়। অন্যান্য শিক্ষক এজন্য প্রধান শিক্ষক ও সহকারী প্রধান শিক্ষককে দায়ী করেন। প্রভাংশু শেখর তালুকদার সমাজবিজ্ঞানের শিক্ষক হলেও তিনি কৌশলে ইংরেজি বই পড়ান।
প্রায় দু’বছর পূর্বে প্রভাংশু শেখর তালুকদার বিদ্যালয়ের মসজিদকে ‘গুদামঘর’ বোরকা পরা ও ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করেন। এর প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন এবং মিছিল সমাবেশ করেছিলেন। এলাকাবাসীর তোপের মুখে এখন তিনি কামালবাজার বসবাস করছেন। প্রধান শিক্ষক দরবেশ আলী দুর্বলতার কারণে ওই শিক্ষকের দাপট চরমে পৌঁছেছে। সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক পাঠ্যসূচি সময়মতো শেষ হয় না। এর ফলে প্রতি বছর বিদ্যালয়ের ফলাফলে গুণগত মান বাড়ছে না। বছরখানেক পূর্বে প্রধান শিক্ষককে শারীরিক অযোগ্য মনে করে তার আত্মীয়স্বজনরা তাকে অব্যাহতি দিয়ে বাড়িতে নেওয়ার চেষ্টা করলে জনৈক সদস্য অর্থের বিনিময়ে তাকে রেখে দেন।
গত ১৬ ফ্রেব্রুয়ারি পরিচালনা কমিটির এক সভায় প্রধান শিক্ষক ও সহকারী প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম এবং কর্তব্য অবহেলার অভিযোগ উত্থাপিত হলে তারা ক্ষমা প্রার্থনা করেন। তারা আগামীতে বিদ্যালয়ের স্বার্থের পরিপন্থি কোনো কাজে জড়িত থাকলে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
এ ব্যাপারে সিলেট জেলা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, তিনি একটি অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
পরিচালনার কমিটির সভাপতি তাজ উদ্দিন খাঁন জানান, প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়টি ছাত্র, অভিভাবক ও শিক্ষকদের নিকট থেকে জানতে পেরেছি। বিষয়টি প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: