সর্বশেষ আপডেট : ৫০ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চা এর মূল্য স্বর্ণের ৩০ গুণ!

tea1472435273ডেইলি সিলেট ডেস্ক: চা এর মূল্য স্বর্ণের চেয়েও বেশি! হ্যাঁ, এমন একটি বিস্ময়কর ঘটনা ঘটেছিল ২০০২ সালে যখন চীনের ঐতিহ্যবাহী চা হিসেবে পরিচিত ‘দা হং পাও’ চা পাতা মাত্র ২০ গ্রাম কেনার জন্য একজন ধনী ক্রেতা ১ লাখ ৮০ হাজার ইয়ান (প্রায় ২৮ হাজার ডলার) খরচ করেছিলেন।

এমনকি এমন একটি সংস্কৃতিতে যেখানে প্রায় ১,৫০০ বছর ধরে চা পানকে একটি শিল্প হিসেবে মূল্যায়িত করা হয় (এবং যেখানে চা এর এমন একটি শ্রেণীবিন্যাস আছে যা ফরাসি ওয়াইনকেও সাধারণ করে তোলে), সেখানে এই মূল্য বিস্ময়কর।

আসল ‘দা হং পাও’ চা পাতার এর মূল্য পরিমাণগত দিক দিয়ে শুধু স্বর্ণের মূল্যের সমানই নয়, বরং তা স্বর্ণের মূল্যের চেয়েও ৩০ গুণ বেশি। এক গ্রাম দা হং পাও চা পাতা কেনার জন্য আপনাকে ব্যয় করতে হবে ১ হাজার ৪০০ ডলার এবং এক পাত্র চা পাতার জন্য ১০ হাজার ডলার। এটি বিশ্বের সবচেয়ে দামি চা।

দক্ষিণ চীনের কুয়াশাচ্ছন্ন নদীতীর শহর ফুজিয়ানের এক চা ব্যবসায়ী জিয়াও হু সংবাদমাধ্যম বিবিসিকে বলেন, ‘এই চা পাতা দেখলে এটাকে একজন ভিক্ষুকের যোগ্য খাবার বলেই মনে হতে পারে কিন্তু এটার মূল্যটা একজন সম্রাটের জন্য উপযুক্ত এবং বুদ্ধের মতো যাদের হৃদয় আছে তাদের জন্য।’

পাহাড়ে ঘেরা ফুজিয়ানের উয়িশান শতাব্দী ধরে চায়ের জন্য বিখ্যাত। জিয়াও এবং তার পরিবার বহু প্রজন্ম ধরে চা ব্যবসায় জড়িত। নিজেদের বাগান থেকে দা হং পাও চা পাতা সংগ্রহ করেন।

জিয়াও হু বলেন, ‘এখন প্রকৃত দা হং পাও চা গাছ তেমন একটা দেখাই যায় না। আর চাইলেই এই চায়ের চাষ বাড়ানোও অসম্ভব। এই কারণে প্রকৃত দা হং পাও চা পাতা পাওয়া যায় খুবই সামান্যই। এর ওপর আছে সরকারের নিয়ন্ত্রণ। চীনের কয়েকজন বিশেষ ব্যবসায়ীই মূলত সংগ্রাহকদের কাছ থেকে আসল দা হং পাও চা পাতা কেনেন।’

তিনি বলেন, ‘এখনো পাহাড়ের মাঝে বসন্তের সময় গিয়ে চা দেবতা লু ইউকে ডাকেন, যেন গাছে নতুন কান্ড আসে।’

উশিয়ান অঞ্চলে অনেক কম দামেও দা হং পাও চা পাতা পাওয়া যায়। মোটামুটি মানের দা হং পাও এক কেজি মাত্র ১০০ ডলারেই কেনা যায়। কিন্তু প্রকৃত সংস্করণ অত্যন্ত উচ্চ মূল্যেই বিক্রি করা হয়।

স্থানীয় একজন চা মাস্টার জিয়াংনিং উ বলেন, ‘প্রকৃত দা হং পাও চা পাতা খুবই দামি, এক কথায় বললে অমূল্য। কারণ মূল চা গাছ এখন খুব কমই আছে। বছরে মাত্র কয়েক শ’ গ্রাম প্রকৃত দা হং পাও উৎপাদিত হয় এবং গাছগুলো সব সময় সশস্ত্র পাহারায় থাকে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: