সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

স্কুলছাত্রী রিশার হত্যাকারী কে এই ওবায়দুল?

151580_1নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর কাকরাইলে কাটিং মাস্টার ওবায়দুলের ছুরিকাঘাতেই উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার রিশা খুন হন। ইতিমধ্যে হত্যাকাণ্ডে সম্পৃক্ততার অভিযোগে ওবায়দুলের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার এসআই মোশাররফ হোসেন জানান, গত বুধবার উইলস লিটলফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে ওভারব্রিজে রিশাকে ছুরিকাঘাতের পর থেকেই পলাতক রয়েছেন কাটিং মাস্টার ওবায়দুল।

মামলার বিবরণে জানা যায়, প্রায় ৬ মাস আগে মায়ের সঙ্গে ইস্টার্ন মল্লিকার শপিং কমপ্লেক্সের বৈশাখী টেইলার্সে যায় রিশা। সেখানে একটি ড্রেস সেলাই করতে দেয় সে। পরে দোকানের রিসিটে বাসার ঠিকানা ও তার মায়ের মোবাইল নম্বর দেয়। পরে সেই রিসিট থেকে মোবাইল নম্বর নিয়ে টেইলার্সের কাটিং মাস্টার ওবায়দুল খান রিশাকে ফোনে উত্ত্যক্ত করত। পরে ফোন নম্বরটি বন্ধ করে দিলে ওই যুবক স্কুলে যাওয়ার পথে রিশাকে উত্ত্যক্ত করতে থাকে। প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় রিশাকে ছুরিকাঘাত করা হয় বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রায় ১ বছরের মতো রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের ইস্টার্ন মল্লিকা শপিং মলের তৃতীয় তলায় বৈশাখী লেডিস টেইলার্সের কাটিং মাস্টার হিসেবে কর্মরত ছিল ওবায়দুল কাদের। সর্বশেষ গত রমজানের সময় রিশার মায়ের অভিযোগে চাকরিচ্যুত হয় সে।

ওবায়দুলের গ্রামের বাড়ি দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ এলাকায়। জানা গেছে, তার মা বাবা কেউ নেই।

টেইলার্সের মালিক মো জাকির হোসেন বলেন, আমার দোকানে এক বছর কাজ করেছে ওবায়দুল। সে ঠিকমতো কাজ করত না। আমার কাস্টমারের অর্ডার ঠিকমতো ডেলিভারি দিতে পারছিলাম না। তারপর ওই মেয়ের মা আমার কাছে তার সম্পর্কে বিচার দিলে আমি তাকে বিদায় করে দিই।

পাশের আরেক দোকানদার রস্তম আলী বলেন, সে আমার দোকানেও ৬/৮ মাস কর্মরত ছিল। ঠিকমতো কাজ করত না বলেই আমি তাকে বিদায় করে দিয়েছিলাম।

ছেলেটির চলাফেরা খারাপ ছিল না উ্ল্লেখ করে মার্কেটের আক্তার হোসেন নামে অপর এক ব্যক্তি জানান, ছেলেটি শান্ত প্রকৃতির ছিল। তবে মাঝে মাঝে কাজ ফেলে মিছিল-মিটিংয়ে যেত।

জাকির হোসেন আরো জানান, এলিফ্যান্ট রোডের ঘরোয়া হোটেল ভবনের ৫ তলায় একটি মেস ভাড়া করে থাকতো সে। কিন্তু ওই বাসায় গিয়ে তার ব্যাপারে জানতে চাইলে বাসার অন্যান্যরা জানান, সে ৪-৫ মাস আগে বাসা ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে।

রমনা থানার তদন্ত কর্মকর্তা (এসআই) মোশাররফ হোসেন আরো জানান, এ ঘটনায় রুবেল নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

ওবায়দুলের সঙ্গে রুবেলের যোগাযোগ ছিল। দুইদিন আগে ওবায়দুল ফোন করে রুবেলকে জিজ্ঞাসা করছিল, মার্কেটের কী অবস্থা? ইস্টার্ন মল্লিকা মার্কেটে তার বিষয়ে কোনো আলোচনা হচ্ছে কি না? ওবায়দুলের কলের বিষয়টি রুবেল মার্কেটের লোকদের জানিয়েছিল।

রিশার স্কুলের শিক্ষক শরীফুল ইসলাম জানান, রিশা স্কুলে সবসময় হাসিখুশি থাকতো। মেধাবী রিশা খুবই চঞ্চল প্রকৃতির ছিল।

কাকরাইলে উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে ফুট ওভারব্রিজের ওপর বুধবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার রিশাকে ছুরিকাঘাত করা হয়।

গুরুতর আহতবস্থায় উদ্ধার করে রিশাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তার পেটের বাম পাশে ও বামহাতে ছুরিকাঘাত করা হয়।

ছুরিকাঘাতে আহত হওয়ার পাঁচদিন পর রবিবার সকাল সাড়ে ৮টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় রিশা। রাজধানীর বংশালের ১০৪ সিদ্দিক বাজারে রিশার বাসা। আরটিএনএন

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: