সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জকিগঞ্জে ছেলেধরা আতংক : মাদ্রাসা ছাত্র নিয়ে যাবার অভিযোগে জনতার হাতে আটক ১

01.-daily-sylhet-jakiganj-newsজকিগঞ্জ প্রতিনিধি: জকিগঞ্জ উপজেলা জুড়ে ছেলেধরা আতংক বেশ কয়েক দিন থেকে বিরাজ করছে জনমনে। কিছুদিন পর পর উপজেলার কোথাও না কোথাও এই চক্রটির তৎপরতা শুনা যায়। গত রমজান মাসে উপজেলার সোনাসার এলাকা থেকে সুনামগঞ্জের এক ছেলেধরা যুবক একটি বাচ্চাকে নিয়ে যাবার পথে জকিগঞ্জ পৌর শহরে আটক করে উত্তম মদ্যম করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় জনতা।

গত প্রায় দুই সপ্তাহ আগে ফুলতলী এলাকা থেকেও ৬ষ্ট শ্রেণীর একটি মাদ্রাসা ছাত্র নোহা গাড়ী করে নিয়ে যাবার চেষ্টা করা হয়। কিন্ত ছেলেটির চতুরতায় সড়ক বাজার এলাকা থেকে গাড়ী থেকে পালিয়ে রক্ষা পায়। চলতি সপ্তাহে জকিগঞ্জ ইউপির মানিকপুর গ্রামে এক মহিলার ঘর থেকে সন্ধ্যা পরে একটি শিশু নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হলে বাচ্চাটির চিৎকারে লোকজন জড়ো হলে ছেলেধরা চক্রটির সদস্যরা পালিয়ে যায় বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। চক্রটিকে ধরতে মসজিদের মাইকে এলান করা হলেও এলাকাবাসী ছেলেধরা চক্রের কোন সদস্য এলাকায় খুজে পাননি।

সর্বশেষ শনিবার জকিগঞ্জ সদর ইউনিয়নের মুমিনপুর গ্রামের মসজিদে মাগরিবের নামাজে যাওয়ার পথে জকিগঞ্জ ফাজিল সিনিয়র মাদ্রাসার নবম শ্রেীর ছাত্র সুহেল আহমদকে ছেলেধরা চক্রের এক সদস্য মুখে ও গলায় টিপে ধরে নিয়ে যাবার চেষ্টা করে এক যুবক। তাৎক্ষণিক বিষয়টি মুমিনপুর গ্রামের বিলাল আহমদ নামের এক ব্যক্তি দেখে ফেলায় ছেলেটিকে ছেড়ে দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে ছেলেধরা চক্রের এ সদস্যটি। পরে এলাকার স্থানীয় জনাত ধাওয়া করে যুবকটিকে আটক করে। আটক যুবকের বাড়ী গোলাপগঞ্জ উপজেলার আওতাধীন বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে। পরে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী উত্তম মধ্যম দিয়ে তাকে জকিগঞ্জ থানা পুলিশে সোর্পদ করেছেন। যুবকটির কাছে দুটি মোবাইল ফোন সেট ছিলো বলে এলাকাবাসী জানান।

ছেলেধরা চক্রের সদস্যর হাত থেকে উদ্ধার হওয়া মাদ্রাসা ছাত্র সুহেল আহমদ রারাইগ্রামে আব্দুল জলিলের পুত্র। সে জকিগঞ্জ ফাজিল সিনিয়র মাদ্রসায় নবম শ্রেণীতে লেখাপড়া করে। সুহেল জানায়, মুমিনপুর গ্রামের মৃত মখলিছুর রহমানের বাড়ীতে তার নানার বাড়ী। সে এখানে থেকেই লেখাপড়া করে। শনিবার মাগরিবের আগ থেকে এ যুবকটি তাকে টার্গেট করে গ্রামের মধ্যে কয়েকবার চক্কর দিয়েছে। মাগরিবের আজান হওয়ার পর আমি (সুহেল) মসজিদে যাওয়ার সময় গতিরোধ করে আমাকে নিয়ে মাজারে যাওয়ার কথা বলে যুবকটি। আমি অসম্মতি জানালে আমার মূখ ও গলাটিপে ধরে নিয়ে যাবার চেষ্ট করে। কিন্তু এ সময় লোকজন এই রাস্তা দিয়ে আসায় আমাকে ছেড়ে দৌঁড় দেয়। তখন আমি লোকজনকে বিষয়টি বিস্তারিত বললে ধাওয়া করে তাকে আটক করা হয়। রারাইগ্রামের কালন মাওলানা জানান, প্রায় সপ্তাহ দিন পূর্বেও ইলাবাজ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণীর তান্নি বেগম নামের একটি ছাত্রীকে কে বা কারা নিয়ে যাবার চেষ্ট করে। ছাত্রীটির শোর চিৎকারে বয়স্ক এক লোক ইলাবাজ ব্রীজ এলাকায় একটি গাড়ী থেকে তাকে উদ্ধার করেন। অতিরিক্ত বৃদ্ধ লোক হওয়ায় অপহরনকারীকে তিনি আটক করতে পারেননি।

জকিগঞ্জে বেশ কয়েকটি ছেলেধরাদের তৎপরতার ঘটনায় স্কুল ও মাদ্রাসা পড়–য়া শিক্ষার্থীদের অভিভাবক দুঃশ্চিন্তায় রয়েছেন। জকিগঞ্জ ইউনিয়নের মেম্বার ও উপজেলা শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মুকিত বলেন, এখন শুধু ছেলেধরা চক্রটির তৎপরতার খবর পাওয়া যায়। জকিগঞ্জ উপজেলায় কিছুদিন থেকে আশংকাজনক হারে এ চক্রটি বৃদ্ধি পেয়েছে। ছেলেধরা চক্রের ব্যাপারে প্রশাসন’সহ সবাই সর্তক থাকলে রোধ করা সম্ভব। এলাকায় কোন অপরিচিত লোকের সন্দেহজনক চলাফেরা দেখলে বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ও প্রশাসনকে জানাতে তিনি অনুরোধ করেছেন। এবং কোন অপরিচিত কারো ডাকে সাড়া এবং কোন প্রকার খাদ্য গ্রহণ না করে সর্তকভাবে চলাচলের আহবান জানিয়েছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: