সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ১৫ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রকট সমস্যায় জর্জরিত

tahirpur sastho complex_30321তাহিরপুর সংবাদদাতা : সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেটিতে একের পর এক সমস্যা লেগেই আছে প্রতিনিয়ত। ফলে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ৭টি ইউনিয়নের ২৫১গ্রামের সাড়ে তিন লক্ষাধিক অসহায় জনসাধারন। চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়নের জন্য ১৯৭৮সালে উপজেলা সদরের সূর্যেরগাঁও কান্দাহাটি গ্রামের ১০একর জমির উপর ২১শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি নির্মিত হয়। কিন্তু উপজেলাবাসীর চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়ন হয় নি আজও। চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়নের জন্য দুই বছর গ্রামে থাকার নির্দেশ দিয়ে চিকিৎসক নিয়োগ দিলেও তাহিরপুর বাসীর জন্য কোন ডাক্তার জোটেনি। ফলে হাজার হাজার জনসাধারণ চরম অসহায় হয়ে পরেছে। যেন দেখার কেউ নেই।

tahirpur sastho complex1_30321_0জানাযায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে র্দীঘ দিন ধরেই কর্মকর্তা,কর্মচারীর ও প্রয়োজনীয় ঔষধ শূন্যতা বিরাজ করছে। ফলে উপজেলার একমাত্র হাসপাতালটি যেন নিজেই রোগী হয়ে লাইফ সার্পোটে আছে। ডাক্তার, নার্স যোগদানের পর থেকেই অন্যত্র বদলি হয়ে যাওয়ার জন্য তদবির শুরু করে বদলীও হয়ে যায় অর্থের বিনীময়ে। কোন ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা হচ্ছে না। পরীক্ষা নিরীক্ষা করার জন্য যেতে হচ্ছে বাহিরে। যার জন্য দূর-দূরান্ত থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।
তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রকট সমস্যায় জর্জরিত

গত ২৮জুলাই বৃহস্পতিবার থেকেই হাসপাতালের পানি সরবরাহের জন্য পাম্প মেশিনের সমস্যার দেখা দেয়। এর পর থেকে আজ রবিবার পর্যন্ত এক মাস পানির পাম্পটি অচল হয়ে পরে আছে। মেরামত না হওয়ায় ও ৫টি টিউবওয়েল নষ্ট থাকায় আবাসিক কোর্য়াটার ও হাসপাতালতে ভর্তি থাকা রোগীদের গোসল, টয়লেট ও বিশুদ্ধ পানি পান করতে চরম দূর্ভোগের মধ্যে দিন পার করছে।হাসপাতালে ৩টি জেনারেটার ১১বছর যাবৎ নষ্ট হয়ে পরে আছে। বিদ্যুৎ চলে গেলে হাসপাতালের ওয়ার্ডে ভর্তি থাকা রোগীরা গরমে ছটফট করে। হাসপাতালের জন্য একটি নৌ এ্যাম্বোল্যান্স থাকলেও চালক না থাকায় বর্ষায় কোন কাজে আসেনি। ৫বছর আগে একটি এক্সরে মেশিন বরাদ্ধ হলেও রেডিও গ্রাফার পদ না থাকায় একটি রোমের ভিতরে থেকেই নষ্ট হচ্ছে। নৌ-এম্বুল্যান্স থাকলেও ড্রাইভার ৩বছর ধরে না থাকায় হাসপাতালের পুকুরের পানিতে ডুবে নষ্ট হয়ে গচ্ছা যাচ্ছে সরকারের কোটি টাকার সম্পদ।
ফার্মানিষ্ট,ডেন্টাল, ল্যাব টেকনোলজিষ্ট র্দীঘ ৭বছর ধরেই শূন্য রয়েছে।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১১জন ডাক্তারের স্থলে ১জন মেডিকেল অফিসার রয়েছে, ১৫জন নার্সের মধ্যে ২জন,প্রধান অফিস সহকারী ১জন,ক্যাশিয়ার ১জন,ভান্ডার রক্ষক ১জন,স্বাস্থ্য সহকারী ১৯টি পদ শূন্য,জুনিয়র মেকানিক ১জন, ওয়ার্ড বয় ২জন,নাইট র্গাড ১জন, গার্ডেনার ১জন, কুক মশালছী ১জন, ঝাড়–দার ৩জন, এমএলএসএস ৩জনের পদ শুন্য রয়েছে।
অন্যদিকে, উপজেলার উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলোতে ১২বছর যাবৎ এমবিবিএস ডাক্তার নেই। জোরাতালি দিয়ে কোন রকমে ফার্মাসিষ্টেই চালাচ্ছে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলো। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা লোকজন জানান, ডাক্তার নাই, ঔষধ নাই এই হাসপাতালে জোড়া তালি দিয়ে নাম মাত্র চিকিৎসা দেওয়া হয়। সরকার হাসপাতাল বানাইছে কি এইতার লাগি, ডাক্তার নাই, হাসপাতাল না থাকলেই ভালা অইত। তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পঃ পঃ কর্মকর্তা জানান-স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের শূন্য পদ গুলোর বিষয়ে উর্ধবতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে।

শুন্য পদ গুলো পূরনের জন্য কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া খুবেই প্রয়োজন। তাহিরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন বলেন,উপজেলার একমাত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এই অসহায় অবস্থা র্দীঘ দিন ধরেই চলছে বার বার সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ কে বলেও কোন কাজ হচ্ছে না। তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন-তাহিরপুর হাসপাতালের চিকিৎসা সেবার উন্নতির জন্য চিকিৎসক, নার্স সহ শুন্য পদে নিয়োগ দেওয়ার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ গুরুত্ব দিচ্ছে না যা খুবই দুঃখ জনক। এভাবে একটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চলতে দেওয়া যায় না।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: