সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ১৭ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২৯ এপ্রিল, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ বৈশাখ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

হিলারির ওপর ই-মেইল বিতর্কের ছায়া

donald_trump_ap_2-550x269আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে পরিচালিত সব শেষ জরিপেও দেশব্যাপী হিলারি ক্লিন্টন এগিয়ে আছেন। আর যেসব অঙ্গরাজ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে, সেখানেও এগিয়ে হিলারি। তবে তার ই-মেইল বিতর্ক এবং ক্লিন্টন ফাউন্ডেশনের অনুদান বিতর্ক তার পিছু ছাড়ছে না। পিছু ছাড়ছেন না তার প্রতিদ্বন্দ্বি ডোনালল্ড ট্রাম্পও। ভোটারদের সংশয়ও কাটছেনা।

গত সোমবার ট্রাম্প বক্তৃতা দেন ওহাইও’র আক্রন শহরে। সেখানে তিনি আবারও আক্রমণ করেন হিলারি ক্লিন্টনকে। এ সময় ট্রাম্প বলেন, আমার প্রতিদ্বন্দ্বি পররাষ্ট্র মন্ত্রী থাকা কালে যা করেছেন, তাকে দূর্নীতি ছাড়া আর কি-ইবা বলা যায়? আমি মিসেস ক্লিন্টনের দুর্নীতি নিয়ে মর্মাহত। তিনি যা করেছেন তা অপরাধ, এটা সবাই জানে। এ সময় সমবেত জনতা চিৎকার করে হিলারি ক্লিন্টনের নিন্দা করে।

হিলারি ক্লিন্টনের ই-মেইল বিতর্ক এখনো তদন্তাধীন। ট্রাম্পের জন্য এ বিতর্ক একটা সুযোগ করে দিয়েছে। তিনি বলছেন হিলারি ক্লিন্টন ওয়াশিংটনের ক্ষমতাধরদের অংশ। তিনি জনগণের স্বার্থের ধারক হতে পারেন না।
এ মাসের গোড়ার দিকে ওয়াশিংটন পোস্ট/এবিসি নিউজ পরিচালিত জরিপে দেখা গেছে ৫৯ শতাংশ ভোটার মনে করে হিলারি ক্লিন্টন সৎ মানুষ নন। আর একই জরিপে ৬২ শতাংশ বলেছিলো ট্রাম্প নির্ভরযোগ্য নয়।
ট্রাম্প পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে হিলারির তীব্র সমালোচনা করেন। বলেন তিনি যা করেছেন তা দুর্নীতি এবং তিনি ছিলেন ধান্দাবাজির কেন্দ্রে। ট্রাম্প বলেন, আমরা সরকারকে বিশেষ স্বার্থের বাইরে নিয়ে যেতে চাই। তিনি বলেন, নভেম্বরের ৮ তারিখে একটা নতুন সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে। সেই সরকার জনগণকে সেবা দেবে। দেশকে সেবা দেবে। কোন বিশেষ স্বার্থকে, দাতাদের ও লবিস্টদের সেবা করবেনা।

বিশ্লেষকরা বলছেন, হিলারি ক্লিন্টনকে আক্রমণ করার জন্য ট্রাম্পের পক্ষে এটা ভালো সময়। কেননা হিলারি এ সপ্তাহ কাটিয়েছেন তহবিল সংগ্রহে। ক্যালিফোর্নিয়াতে হিলারি বড় তহবিল গঠনের জন্য কাজ করেন।
সম্প্রতি হিলারির জন্য খারাপ খবর এসেছে ফেডারেল জাজের দপ্তর থেকে। বিচারক পররাষ্ট্র মন্ত্রালয়কে হিলারির ই-মেইলগুলো প্রকাশ করতে ২৩ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পরিকল্পনা প্রকাশ করতে বলেছে। ই-মেইল বিতর্কের তদন্তের অংশ হিসেবে এফবিআই ১৫ হাজার দলিলপত্র জব্দ করেছে। ধারণা করা হচ্ছে এগুলো প্রকাশিত হবে নির্বাচনের দিন ঘনিয়ে আসলে।

হিলারির এই বিতর্কিত বিষয়গুলো ট্রাম্পের বিতর্কিত বিষয়গুলোর ওপর ছায়া ফেলবে। ইতোমধ্যেই ট্রাম্প তার প্রচার দলে রদবদল করেছেন। ফলও এসেছে এ রদবদলে। তারা এখন নজর দিচ্ছে হিলারি ক্লিন্টন, ক্লিন্টন ফাউন্ডেশন ও হিলারির বিতর্কিত ই-মেইলগুলোর ওপর। ইতোমধ্যেই ট্রাম্পের প্রচার শিবির বলেছে, হিলারি ক্লিন্টনকে ক্লিন্টন ফাউন্ডেশন সম্পর্কে পরিষ্কার জবাব দিতে হবে।
হিলারি শিবির ট্রাম্পের প্রচারণার জবাবে বলেছে ট্রাম্প এই ইস্যুটিকে সামনে এনেছেন নিজের দোষ ঢাকার জন্যে।

ট্রাম্প আগেও ই-মেইল ও ক্লিন্টন ফাউন্ডেশন নিয়ে কথা বলেছেন। বিশ্লেষকরা বলছেন, এবারের সমালোচনার ধারা ও তীব্রতা ভিন্ন। ই-মেইল ও ফাউন্ডেশন হিলারির ভবিষ্যত নির্ধারণে ভূমিকা রাখবে বলেও মনে করছেন তারা। সম্প্রতি জুডিশিয়াল ওয়াচ একটি ই-মেইল প্রকাশ করেছে। এতে ক্লিন্টন ফাউন্ডেশনের একজন কর্মকর্তা হিলারি ক্লিন্টনের একজন শীর্ষ সহযোগিকে বলেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী যেন বাহরাইনের যুবরাজের সঙ্গে একটা বৈঠকের ব্যবস্থা করে দেন। বাহরাইনের যুবরাজের চ্যারিটি প্রতিষ্ঠান ক্লিন্টন গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভকে ৩২ মিলিয়ন ডলার অনুদান দিয়েছিলো। রাজনীতি সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সত্যি কথা হলো হিলারি ক্লিন্টন ব্যক্তিগত ইমেইল সার্ভার ব্যবহার করেছিলেন। আর এর জন্য তাকে পরিষ্কার জবাব দিতে হবে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: