সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৫ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ওরা আকাশছোঁয়া স্বপ্ন দেখে ..

pic1ddlssশিক্ষাঙ্গন ডেস্ক ::

দুর্গম পথঘাট ও সামাজিক কুসংস্কার কোনো কিছুই বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি কিশোরগঞ্জের জ্ঞানপিপাসু, চরবালিকাদের। তাদের লক্ষ্য একটাই- জীবনকে বিকশিত করতে হলে চাই শিক্ষা। আর নিজেদের দুর্বৃত্ত কিংবা বখাটেদের হাত থেকে রক্ষার জন্য চাই কারাতে-জুডোর মতো আত্মরক্ষামূলক প্রশিক্ষণ। বিদ্যালয় ও আত্মরক্ষামূলক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে যাতায়াত করতে তারা বাইসাইকেল ব্যবহার করছে।

তবে উপযুক্ত পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে সংগ্রামী চরবালিকাদের অনেকেই কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছার আগেই ঝরে পড়ছে। ব্রহ্মপুত্র নদের বিশাল চরাঞ্চল নিয়ে গঠিত কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার জাঙ্গালিয়া ইউনিয়ন। এ পশ্চাৎপদ জনপদের অধিকাংশ রাস্তাঘাটই কাঁচা, জরাজীর্ণ ও ব্যবহার অনুপযোগী।

এখানকার দুর্গম ও গহিন চর এলাকায় অবস্থিত চরটেকি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের সাইকেলে যাতায়াত, ভালো ফলাফল ও আরক্ষামূলক প্রশিক্ষণ গ্রহণের বিষয়গুলো এখন জেলা তথা দেশের অন্য অঞ্চলের নারী শিক্ষার্থীদের অনুকরণীয় বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সামাজিক কুসংস্কার ছিন্ন করে দুর্গম পথে সারি সারি, শত শত সাইকেলে চড়ে অদম্য সাহসী এসব চরবালিকাদের স্কুল ও আত্মরক্ষামূলক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে যাতায়াতকে সমাজ-সচেতন লোকজন নারী জাগরণের অংশ হিসেবে দেখছে।সালোয়ার-কামিজ ও কেডস পরে সাইকেলে চড়ে গন্তব্যে যাচ্ছে মেয়েরা। এ এলাকার অভিভাবকদের এখন আর বাখাটেদের ভয়ে মেয়েদের নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় সময় কাটাতে হয় না।

pic3ddlss1গত রোববার চরটেকি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় সরেজমিন পরিদর্শনকালে দেখা গেছে, দুর্গম ও জরাজীর্ণ কাঁচা সড়ক মাড়িয়ে চার শতাধিক চরবালিকা বাইসাইকেলে করে স্কুলে আসছে। স্কুল মাঠের আঙ্গিনায় জমা পড়ে আছে সারি সারি বাইসাইকেল। এ সময় কথা হলে ৭ কিলোমিটার পথ সাইকেলে পাড়ি দিয়ে তারাকান্দি গ্রাম থেকে আসা দশম শ্রেণীর ছাত্রী হিমিকা তাহমিদা আশামণি জানায়, এ দূরের পথ পাড়ি দিতে সে বাবার আগ্রহেই বাইসাইকেল চালানো শিখেছে।

প্রথম প্রথম পথে-ঘাটে ‘টিটকারি’ (বাজে মন্তব্য) শুনতে হয়েছে। এখন অধিকাংশ ছাত্রীই বাইসাইকেল ব্যবহার করায় সে ধরনের সমালোচনা ও মন্তব্য এখন আর শুনতে হয় না। ৭ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে গান্ধরচর এলাকা থেকে আসা নবম শ্রেণীর ছাত্রী আর্নিকা মারজান ও উত্তর চরকাওনা গ্রাম থেকে আসা হুমাইয়া জাহান শুভ্রা জানায়, আগে স্কুলে আসার পথে রাস্তাঘাটে বখাটেরা উৎপাত করত।

আর এ কারণে আমরা সাইকেল চালানোর পাশাপাশি আত্মরক্ষার জন্য জুডো ও কারাতে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি। এখন আমাদের কোনো সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় না।এ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণীতে পড়ুয়া চরটেকি গ্রামের এক ছাত্রীর পিতা কৃষক মিলন মিয়ার সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, লেখাপড়ার প্রতি প্রবল আগ্রহ দেখে রাস্তাঘাট ও দূরত্ব বিবেচনায় আমরা অভিভাবকরাই মেয়েদের বাইসাইকেল কিনে দিয়েছি। জানা গেছে, ১৯৯৩ সালে এ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়।

প্রথম বছর এসএসসি পরীক্ষায় পাসের হার ছিল শূন্যের কোটায়। পরের বছরই সে ধাক্কা সামলে উঠে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। অভিভাবকের সচেতন করার পাশাপাশি শিক্ষকরা ছাত্রীদের নিয়ে কঠোর অনুশীলন শুরু করে। এর পর থেকে এ বিদ্যালয়ে পাসের হার দাঁড়ায় শতভাগে।

pic2ddlss1এ বিদ্যালয় থেকে বেরিয়ে যাওয়া শিক্ষার্থীদের অনেকেই এখন মেডিকেল কলেজসহ দেশের শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অধ্যায়ন করছে।তবে উপযুক্ত পৃষ্ঠপোষকতার অভাব ও আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে অনেকে ভালো ফলাফল করেও ঝরে পড়ছে।

চলতি বছর এ বিদ্যালয় থেকে ৭২ জন ছাত্রী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৮ জন শিক্ষার্থী এ প্লাস পায় এবং পাসের হার ছিল শতভাগ। বর্তমানে বিদ্যালয়ে মোট ৫৫০ জন ছাত্রী ও ১১ জন শিক্ষক রয়েছেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমিনুল হক জানান, স্কুলের চারপাশে রাস্তাঘাটগুলো কাঁচা ও জরাজীর্ণ থাকায় শিক্ষার্থীদের স্কুলে যাতায়াত করতে চরম দুর্ভোগ-ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। এছাড়াও রয়েছে স্কুলের অবকাঠামোগত সমস্যা।

এখানে একটি বহুতল একাডেমিক ভবন নির্মাণের পাশাপাশি বিজ্ঞানাগার ও পাঠাগার স্থাপন খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: