সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ৪০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ শাহজালাল (র.)-এর ওরস

dailysylhetnewspic24aug16স্টাফ রিপোর্টার ::
ওলিকুল শিরোমণি হজরত শাহজালাল (র.) মাজারের ৬৯৭তম বার্ষিক ওরস বুধবার ভোররাতে আখেরি মোনাজাত ও শিরনি বিতরণের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে। দুই দিনব্যাপী ওরসে ভক্ত-আশেকানদের ঢল নেমেছিল মাজার এলাকায়।
এর আগে গতকাল মঙ্গলবার বাদ ফজর গিলাপ ছড়ানোর মাধ্যমে শুরু হয় পবিত্র এই ওরস মোবারক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকেও মাজারে গিলাপ নিয়ে যান মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সিটি মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরানসহ নেতৃবৃন্দ।
ওরসকে ঘিরে মাজার প্রাঙ্গণে বসেছিল বাউলদের আসর। বাউলসাধকরা হৃদয় উজাড় করে নিবেদন করেছেন ভক্তিমূলক ও পীর-মুর্শিদি গান। কিছুক্ষণ পরপর জাল্লে জালাল বাবা শাহজালাল, লালে লাল বাবা শাহাজালাল স্লোগান তুলে মাজার প্রাঙ্গণ সরগরম করে রাখেন।
ওরস উপলক্ষ্যে ভক্ত-আশেকানরা দেড়শতাধিক গরু ও খাসি নিয়ে আসেন নজরানা হিসেবে। সারাদেশ থেকে আসা ভক্ত-আশেকানদের মধ্যে শিরনি বিতরণের জন্য পশুগুলো গতকাল বাদ মাগরিব জবাই করা হয়। ওই মাংস দিয়ে রান্না করা শিরনি মাজারে আগতদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।
গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টা পর্যন্ত জিকির ও এবাদত বন্দেগির মাধ্যমে ভক্তরা সময় অতিবাহিত করবেন। বুধবার ভোররাতে আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে দু দিনব্যাপী ওরস শেষ হয়। মোনাজাতের পর পরই অগণিত ভক্তদের মাঝে বিতরণ করা হয় শিরনি।
এছাড়া দেশি-বিদেশি ভক্ত-আশেকানরা গিলাপ-হজরত শাহজালাল (রহ.) তরবারির রেপ্লিকা ও লাল সালু মাথায় বেঁধে মাজারে আসছেন। দু দিনব্যাপী ওরসে মানুষের ঢল নামে। শাহজালালের মাজার প্রাঙ্গণ থেকে নগরের অলিগলিতে ভক্তদের সমাগম ঘটে। নগরে বিরাজ করে উৎসবের আমেজ।
শাহজালাল (র.) ৬৯৭ তম বার্ষিক ওরসে আসা ঢাকার মুগদা এলাকার রহিম মিয়া জানান, ওরস শুরুর সপ্তাহখানেক আগেই সিলেট পৌঁছেন তিনি। রহিম জানান, প্রতিবছর ‘বাদশার বাড়িতে’ (শাহজালালে মাজার) দুই তিনবার না আসলে শান্তি পাই না। এ জন্যই প্রতিবছর ওরসের সপ্তাহখানেক আগেই সিলেট আসি।
৩৬০ আউলিয়া আশেকান পরিষদের সভাপতি শেখ মো. মখন মিয়া চেয়ারম্যান ভোররাতে জানান, মঙ্গলবার ভোরে গিলাপ চড়ানোর মাধ্যমে শুরু হওয়া ওরস বুধবার ভোরে আখেরি মোনাজাত ও শিরনি বিতরণের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে।
মাজার কমিটি সূত্রে জানায়, ওরসে আগত অতিথিদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশের পাশাপাশি ভক্ত আশেকানদের সমন্বয়ে ১৮০০ স্বেচ্ছাসেবক নিরাপত্তা কর্মী হিসেবে কাজ করেন। এছাড়া ওরসে কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা সেবার জন্য মেডিকেল টিমের পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ বিভাগের আলাদা টিম মাজার এলাকায় সার্বক্ষণিক ছিল।
এছাড়া ওরসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মাজার কমিটির পক্ষ থেকে ২৪ সিসি ক্যামেরা ও পুলিশের পক্ষ থেকেও আরো ২০ টি সিসি ক্যামেরার পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে স্পাই ক্যামেরা বসানো হয়। মাজারের ওরস নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে সবকিছু পরিচালিত হয়। সিসি ক্যামেরার নিয়ন্ত্রণ করে মহানগর পুলিশের একটি দল।
হজরত শাহজালাল (র.)-এর মাজারের সরেকওম (মোতোয়ালি) ফতেহ উল্লা আল আমান বলেন, খুবই সুন্দর ও স্বাভাবিক নিয়মেই ওরস সম্পন্ন হয়েছে। ভক্তদের সুন্দরভাবে মাজারে জায়গা করে দেওয়া হয়েছে।
সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার মুহাম্মদ রহমত উল্লাহ বলেন, ওরস উপলক্ষ্যে ৫ স্তরের নিরাপত্তা বলয় ছিল। কোনো ধরনের বিশঙ্খলা ছাড়াই শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ওরস শেষ হয়েছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: