সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ০ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আগস্টে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা এখনও উড়িয়ে দেয়নি সরকার

ww-211নিউজ ডেস্ক: চলছে শোকের মাস আগস্ট। এই মাসেই স্বপরিবারে খুন হয়েছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপর গ্রেনেড হামলা হয়। আর এই মাসেই জঙ্গিদের আরেক দফা হামলার পরিকল্পনা ছিল। যা এখনো পুরোপুরি মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলেনি সরকার।

গত মাসেই দেশে দু’দফা বড় ধরনের জঙ্গি হামলা হয়েছিল। গোয়েন্দা প্রতিবেদনে আগস্ট মাসে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা করা হয়েছিল মাসের শুরুর দিকেই। তবে মাসের বাকী দিনগুলোতেই এ ধরনের হামলার আশঙ্কা এই মুহুর্তেই উড়িয়ে দিচ্ছে না সরকার।
জানা গেছে, সম্ভাব্য যে কোনো হামলা দমনে সতর্ক রাখা হয়েছে সোয়াত, সিটিটিসি ও বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট। যদিও সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, এখন আগের যে কোনো সময়ের তুলনায় নিরাপত্তাবাহিনী যে কোনো ধরনের প্রতিকূল অবস্থার মোকাবেলা করতে প্রস্তুত। তবুও সতর্কতার কোনো বিকল্প নেই, গোয়েন্দাদের মতে।
এরই মধ্যে গোয়েন্দারা দেশে অন্তত ৪টি জঙ্গি সংগঠনের তৎপরতা ও নাশকতা চেষ্টার প্রমাণ পেয়েছে। এসব সংগঠনের বিষয়ে সরকারের উচ্চ মহল থেকে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা রয়েছে বলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। তবে গোয়েন্দারা এই মুহুর্তে কেবল জেএমবির তৎপরতাকেই হুমকি মনে করছেন।

যদিও নিরাপত্তাবাহিনীর কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিশেষ করে কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্তানা উদ্ধার এবং গুলশান হামলার মাস্টারমাইন্ডদের সনাক্ত করা, গত কয়েক সপ্তাহে বেশ কয়েকজন জেএমবি সদস্যকে গ্রেপ্তার, আনসারুল্লাহ বাংলা টিম এবং বেশ কয়েকজন নব্য জেএমবি সদস্য গ্রেপ্তারের পর কার্যত জঙ্গি নেটওয়ার্ক ভেঙ্গে পড়েছে। তবুও অগোছালো জেএমবি সদস্যরাও অপরিকল্পিতভাবে কোনো অঘটন ঘটাতে পারে বলেও আশঙ্কা করছে গোয়েন্দারা। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টরা আশঙ্কা করছেন, শোকের মাসে কোনো ধরনের নাশকতার পরিকল্পনা থাকলেও থাকতে পারে জঙ্গি নামধারী সন্ত্রাসীদের।
জানা গেছে, গোয়েন্দাদের হাতে তথ্য এসেছে, আবারো সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করছে নিষিদ্ধ ঘোষিত এই সংগঠনটির কর্মীরা। তাই আবার জঙ্গি হামলা হতে পারে এমন গোয়েন্দা তথ্যে রাজধানীতে বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা।

কল্যাণপুরের আস্তানা উদ্ধারের পরও গোয়েন্দা কর্মকর্তারা প্রাথমিক ভাবে নিশ্চিত হতে পেরেছে, রাজধানীতে আরো অন্তত তিনটি জঙ্গি আস্তানায় বিষ্ফোরক মজুদ করা হয়েছে। কিন্তু আস্তানাগুলোর অবস্থান এখনও জানতে পারেননি গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। ওইসব আস্তানার খোঁজে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করছে সরকারের সকল নিরাপত্তা বাহিনীরা। একই সঙ্গে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) প্রতি রাতে পরিচালিত ব্লক রেইডেও জেএমবি সদস্যদের পাশাপাশি এ ধরনের আস্তানার খোঁজ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।
এদিকে গত মাসেই পদ্মা সেতুর বিষয়ে গোয়েন্দাদের একটি সংস্থা সরকারের কাছে প্রতিবেদন দিয়েছিল এই মর্মে, সম্পূর্ণ দেশীয় অর্থায়নে প্রথমবারের মতো দেশে বৃহৎ প্রকল্প হিসেবে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। এর সঙ্গে দেশের ইমেজ অনেকাংশে জড়িত। তাই দেশের সুনাম নষ্ট করতে, এই প্রকল্পে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা রয়েছে। এমনকি গত ৩১ জুলাই সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার ভুলতা ফ্লাইওভার প্রকল্পের নির্মাণকাজ পরিদর্শনে গিয়ে এমন আশঙ্কার কথাই বলেছিলেন।
মন্ত্রী আগস্ট মাসে দেশে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছিলেন, ‘গুলশান ও শোলাকিয়া হামলার পর আমরা শঙ্কিত। জঙ্গিরা হয়তো আগস্ট মাস হামলার জন্য বেছে নিতে পারে। ওই মাসে তারা একটি অঘটন ঘটাতে পারে। তাই প্রশাসনকে সকল প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে’।

এসব বিষয়ে ডিএমপির সিনিয়র সহকারী (মিডিয়া) পুলিশ কমিশনার এ এস এম হাফিজুর রহমান বলেন, নাশকতার বিষয়ে জঙ্গিদের কয়েকটি পরিকল্পনার কথা সরকার জানতে পেরেছে। সে মোতাবেক ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছে। শোকের মাস আগস্ট ঘিরেও নিরাপত্তা নিশ্চিতের লক্ষ্যে সকল নিরাপত্তা নিশ্চিতের দায়িত্বে থাকা বাহিনীর সদস্যরা কাজ করছেন।
তিনি আরো বলেন, তবে শুধু আগস্ট নয়, যে কোনো পরিস্থিতি দেশে জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দমনে সরকার এরই মধ্যে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছে। তাই এ বিষয়ে কঠোর নীতি গ্রহণ করা হয়েছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: